• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ২৯ রমজান ১৪৪২

১১০ কিলোমিটার নৌপথ উদ্ধার করে ঢাকাকে বাসযোগ্য করুন

| ঢাকা , শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০

ময়লা-আবর্জনা ও দখল-দূষণে বিলীন হচ্ছে ঢাকার চারপাশের ১১০ কিলোমিটার বৃত্তাকার নৌপথ। বুড়িগঙ্গা, তুরাগ, শীতলক্ষ্যা, বালু ও ধলেশ্বরী এই ৫টি নদী নিয়ে ১১০ কিলোমিটার নৌপথ। রাজধানীর যানজট কমাতে ঢাকার চারপাশের নৌপথে যাত্রী ও পণ্য পরিবহনের বৃত্তাকার নৌপথ চালুর পরিকল্পনা নেয়া হয় ২০০০ সালে। ১০ বছরেও উদ্ধার হয়নি ১১০ কিলোমিটার নৌপথ। এ নিয়ে গত বুধবার সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

রাজধানীর নদ-নদীগুলোর ড্রেজিং ও ব্যবস্থাপনা বাবদ যে শত শত কোটি টাকা বরাদ্দ এবং ব্যয় হয় তা কোথায় যায়- সেটাই প্রশ্ন। বিশ্লেষকরা বলছেন, বরাদ্দ ও ব্যয়কৃত টাকা কোথায়-কীভাবে ব্যয় হচ্ছে, তা তদন্ত করে বের করা দরকার। বলাবাহুল্য এ খাতের অর্থ নিয়ে দুর্নীতির বিষয়টি পুরনো। যুগের পর যুগ ধরে চলে আসছে। এ নিয়ে বহু লেখালেখিও হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এর কোনো প্রতিকার পাওয়া যায়নি। পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের একশ্রেণীর দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও ঠিকাদার বছরের পর বছর ধরে অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িয়ে আছে। এর সাথে রয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতা আর গাফিলতি। এসব কারণে ঢাকার চারপাশের ১১০ কিলোমিটার নৌপথ দশ বছরেও উদ্ধার হয়নি। যেখানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ শত শত কোটি ডলার খরচ করে নতুন নদী সৃষ্টি করছে, এমনকি মধ্যপ্রাচ্যে মরুভূমি খননের মাধ্যমে নদী তৈরি করা হচ্ছে, সেখানে প্রকৃতির অপার দান আমাদের নদ-নদী টিকিয়ে রাখা হচ্ছে না, দখলবাজি এবং দূষণে হারিয়ে যাচ্ছে নদী।

পর্যাপ্ত ড্রেজিংয়ের অভাব, দখল-দূষণের মাধ্যমে তা ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছি আমরা। নদী বাঁচলে দেশ বাঁচবে- এই অতি গুরুত্বপূর্ণ স্লোগানটি পরিবেশবিদ থেকে শুরু করে বিশেষজ্ঞরা বছরের পর বছর তুলে ধরলেও পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর টনক নড়ছে না। রাষ্ট্রের অর্থ ব্যয় হচ্ছে এবং তা একটি শ্রেণীর দুর্নীতির অন্যতম উৎস হয়ে উঠেছে।

আমরা মনে করি, ঢাকার চারপাশের ১১০ কিলোমিটার নৌপথসহ সারা দেশের নৌপথ সচল করার জন্য সরকারের বিশেষ প্রকল্প হাতে নেয়া উচিত। নদ-নদী অবৈধভাবে দখল এবং তীর থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ জোরালো করতে হবে। ঢাকার ১১০ কিলোমিটার নৌপথ বাঁচাতে এবং নৌপথ উদ্ধার ও সচল করতে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। যাতায়াত ব্যবস্থা পণ্য পরিবহন এবং ব্যবসা-বাণিজ্য সহজ ও অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রার গতি বৃদ্ধি করতে নৌপথকে সচল করা অপরিহার্য।