• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ২৯ রমজান ১৪৪২

বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ সক্ষমতা বাড়ান

| ঢাকা , শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০

বিদ্যুৎ উৎপাদনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশে বাড়ানো হয়নি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন। গত এগারো বছরে সঞ্চালন লাইন বেড়েছে তিন গুণেরও কম। অথচ এই সময়ের মধ্যে বিদ্যুতের উৎপাদন বেড়েছে পাঁচ গুণেরও বেশি। গত বৃহস্পাতিবার প্রকাশিত সংবাদ-এর প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে- ২০০৯ সালে দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ছিল প্রায় ৫ হাজার মেগাওয়াট। বর্তমানে এই সক্ষমতা বেড়ে হয়েছে প্রায় ১৮ হাজার মেগাওয়াট। অন্যদিকে ২০০৯ সালে দেশে সঞ্চালন লাইন ছিল ৮ হাজার সার্কিট কিলোমিটার। বর্তমানে সেটি বেড়ে হয়েছে ১২ হাজার সার্কিট কিলোমিটার।

প্রয়োজনের তুলনায় সঞ্চালন লাইন কম হওয়ায় বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতার সর্বোচ্চ ব্যবহার করা যাচ্ছে না। আগামীতে একাধিক বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদনে নামলে সঞ্চালন ও বিতরণ সংকট আরো বাড়বে। বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণের দায়িত্ব পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশ লিমিটেডের (বিজিসিবি)। উৎপাদনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে রাষ্ট্রীয় এই সংস্থা সঞ্চালন লাইন ও বিতরণ লাইন বাড়াতে পারেনি। সংস্থাটির কর্তাব্যক্তিরা লোকবল সংকটের অজুহাত দিচ্ছেন।

গত ১১ বছর ধরে সরকার বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে কাজ করছে। প্রশ্ন হচ্ছে- বিষয়টি বিদ্যুৎ সঞ্চালনের দায়িত্বে নিয়োজিত কর্তাব্যক্তিদের মাথায় ছিল কিনা। মাথায় থাকলে গৃহীত প্রকল্পগুলোর লোকবল সংকট দূর করা হলো না কেন? বিদ্যুৎ সংশ্লিষ্ট কোন প্রকল্পে সরকার বরাদ্দ কত দিয়েছে তা জানা যায় না। তাহলে কাক্সিক্ষত হারে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন বাড়েনি কেন। নাকি কোন গোষ্ঠী চায় যে, দেশের মানুষ এখনো বিদ্যুৎ সংকটে থাকুক।

চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সত্ত্বেও এর সুফল সরকার সবার ঘরে পৌঁছে দিতে পারছে না। এই ব্যর্থতার দায়ভার বিজিসিবি এড়াতে পারে না। তাদের এই ব্যর্থতার কারণ খতিয়ে দেখে সরকারকে অবশ্যই ব্যবস্থা নিতে হবে। বিজিসিবির কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করতে হবে। সংস্থাটির যেসব প্রকল্পে লোকবলের অভাব আছে সেসব প্রকল্পে দ্রুত নিয়োগ দিতে হবে। উৎপাদনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সঞ্চালন লাইন বাড়ানো না গেলে আগামীতে বড় ধরনের সংকট দেখা দেবে। আমরা চাই না বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতার খেসারত জাতি দিক। এ বিষয়ে আমরা সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।