• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ২৯ রমজান ১৪৪২

বেহাল সড়ক-মহাসড়ক

জোড়াতালির সংস্কার আর কত দিন

| ঢাকা , রোববার, ২৮ জুলাই ২০১৯

বর্ষা শুরুর আগে সরকারি হিসাবে দেশের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক-মহাসড়কের ৪ হাজার ২৪৭ কিলোমিটার খারাপ ছিল। এরপর ভারি বর্ষা ও বন্যায় তলিয়েছে অনেক সড়ক। কিছু সড়ক এখনও পানির নিচে। সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদফতর বলছে, বন্যায় ২৩ জুলাই পর্যন্ত ১৮টি জেলার ৪৫০ কিলোমিটার সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। চলছে জোড়াতালির মেরামতও। আসন্ন ঈদুল আজহায় যানবাহনের চাপ বেড়ে গেলে এ জোড়াতালির সড়ক ঘরমুখী মানুষকে কতটা স্বস্তি দিতে পারবে, তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে।

ঈদের আগে দেশের সড়ক-মহাসড়কের বেহালদশা সত্যিই উদ্বেগের। বলার অপেক্ষা রাখে না, দেশে সড়ক দুর্ঘটনা উদ্বেগজনক পর্যায়ে পৌঁছেছে। প্রতিদিন দেশের কোথাও না কোথাও দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছে মানুষ। এ দুর্ঘটনার অন্যতম বড় কারণ ভাঙাচোরা সড়ক। শুধু তা-ই নয়, ভাঙাচোরা সড়কের কারণে মানুষ দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত। ঈদের আগে ভাঙাচোরা সড়কে জনদুর্ভোগ যে আরও বাড়বে সেটা বলাবাহুল্য। কাজেই দ্রুত সড়ক সংস্কারের বিষয়টি সরকারের কাছে অধিকতর গুরুত্ব পাওয়া উচিত। বর্ষা ও বন্যায় যেসব সড়ক-মহাসড়কের স্থানে স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে, সেগুলো কতদিন আগে নির্মাণ বা মেরামত করা হয়েছিল, তা খতিয়ে দেখা দরকার। প্রতিটি সড়ক-মহাসড়কেরই স্বাভাবিক স্থায়িত্ব প্রত্যাশিত। কোন সড়ক পাঁচ বছর, কোনোটি ১০ বছর টেকসই হওয়ার কথা। কিন্তু দেখা যায়, নির্মাণ সম্পন্ন হওয়ার এক-দুই বছরের মধ্যেই সেগুলো ভেঙেচুরে যায়, খানাখন্দের সৃষ্টি হয়। তারপর বেহাল সড়ক-মহাসড়কের ভাঙাচোরা জায়গায় বিপুল অর্থ ব্যয় করে মেরামত চালানো হয়, কিছুদিন পরই সেগুলো আবার ভেঙেচুরে যায়। কাজেই দায়সারা গোছের কাজের সংস্কৃতি থেকে আমাদের বেরিয়ে আসতে হবে।

সড়ক-মহাসড়ক শুধু সংস্কার করলে হবে না, নির্মাণকাজের মান হতে হবে উন্নত। সড়ক মেরামতে অনিয়ম ও দুর্নীতি হয় বেশি। এ কারণে কাজ হয় নিম্নমানের। ফলে সড়কগুলো দ্রুত নষ্ট হয়ে যায়। সওজে বড় প্রকল্পে মনোযোগ বেশি বলে মেরামতে মনোযোগ একটু কম। আর মেরামত কাজটাও হয় অর্থবছরের শেষের দিকে, বর্ষা মৌসুমে। বর্ষা মৌসুমে মেরামত টিকবে না-এটাই স্বাভাবিক। মেরামত করতে হবে শুষ্ক মৌসুমে এবং তা পরিপূর্ণভাবেই করতে হবে। অনিয়ম বন্ধে শূন্য সহনশীলতা নীতি অনুসরণ করতে হবে। নতুন সড়ক নির্মাণের ক্ষেত্রে উপকরণ ব্যবহার এবং প্রযুক্তিগত কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। যেমন, সড়কের পিচ করার ক্ষেত্রে মডিফায়েড বিটুমিন ব্যবহার করা যায়। এই বিটুমিন ব্যবহার করা হলে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে যেভাবে উঁচু-নিচু হয়ে গেছে, তা হয়তো হতো না।