• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১১ শ্রাবন ১৪২৮ ১৫ জিলহজ ১৪৪২

ডিএসসিসিতে

১৫৩ ভবনে অ্যাডিস মশার লার্ভা

আড়াই লাখ টাকা জরিমানা

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১১ জুন ২০২০

অ্যাডিস মশা নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে নগরবাসীকে ডেঙ্গু থেকে সুরক্ষা দিতে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযানের পঞ্চম দিনে নগরীর ৫৪টি ওয়ার্ডে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানকালে ৩ হাজার ৪৬২টি বাড়ি, স্থাপনা, নির্মাণাধীন ভবন পরিদর্শন করে ১৫৩টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। এছাড়া ৯ হাজার ২৫৮টি বাড়ি/স্থাপনায় অ্যাডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ১৪টি মামলায় মোট ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অন্যান্য বাড়ি ও স্থাপনার মালিককে সতর্ক করা হয়। গত ৬ জুন থেকে পর্যন্ত এই ৫ দিনে ৫৪টি ওয়ার্ডে মোট ৬৭ হাজার ৫৯২টি বাড়ি, স্থাপনা, নির্মাণাধীন ভবন পরিদর্শন করে মোট ৮৫৪টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায় এবং ৪৬ হাজার ৮০১টি বাড়ি/স্থাপনায় অ্যাডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এছাড়া এ ৫ দিনে মোট ৪ লাখ ৩৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। চিরনি অভিযান চলাকালে যেসব বাড়ি/স্থাপনায় অ্যাডিস মশার লার্ভা কিংবা অ্যাডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যাচ্ছে, তার ছবি, ঠিকানা, মোবাইল নম্বরসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় তথ্য তাৎক্ষণিকভাবে একটি অ্যাপে সংরক্ষণ করা হচ্ছে। এর ফলে চিরনি অভিযান শেষে ডিএসসিসির কোন কোন এলাকায় অ্যাডিস মশা বংশবিস্তার করে তার একটি ডাটাবেস তৈরি হবে। ডাটাবেস অনুযায়ী পরবর্তীতেও তাদের মনিটর করা সহজ হবে।

উত্তরা এলাকায় মোট ৬৯১টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে ২১টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ৫৩৭টি স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এ সময় ৩টি স্থাপনার মালিককে মোট ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। মিরপুর-২ অঞ্চলের আজ মোট ২ হাজার ৮৬৬টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে ১৫টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ১ হাজার ৮১৭টি বাড়ি/স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। এ সময়ে আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শফিউল আজম মিরপুর সেকশন ১২ ও ১৩ এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় ৬টি প্রতিষ্ঠানকে ৬টি মামলায় মোট ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। মহাখালী অঞ্চলের অধীনে মোট ১ হাজার ৬৪৪টি বাড়ি/স্থাপনা পরিদর্শন করে ৫৪টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ৯১৩টি বাড়ি/ স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা মীর নাহিদ আহসান মহানগর প্রজেক্ট ও পশ্চিম রামপুরা এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় ৩টি প্রতিষ্ঠানকে ৩টি মামলায় মোট ৬৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। একই সাথে নোংরা ও অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ থাকায় আরও ৩১টি প্রতিষ্ঠানকে সতর্ক করা হয়েছে।

মিরপুর-১০ অঞ্চলে ১ হাজার ৮০৭টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে ১৮টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ৮৫১টি বাড়ি/স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা সালেহা বিনতে সিরাজ কল্যাণপুর খালপাড় ও নতুন বাজার এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় ৩টি প্রতিষ্ঠানকে ৩টি মামলায় মোট ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। কারওয়ান বাজার অঞ্চলে মোট ১ হাজার ৯০১টি বাড়ি/স্থাপনা পরিদর্শন করে ১৩টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ১ হাজার ৬০৮টি বাড়ি/ স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

হরিরামপুর অঞ্চলে মোট ১ হাজার ৪৪২টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে ১৫টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ১ হাজার ১২১টি বাড়ি/স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় মোট ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। দক্ষিণখান অঞ্চলে মোট ৯২৯টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে ৯টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেলে বাড়ির মালিকদেরকে সতর্ক করে লার্ভা ধ্বংস করা হয়। এছাড়া ৭৭৩টি বাড়ি/ স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। উত্তরখান অঞ্চলে মোট ৮০৬টি বাড়ি/স্থাপনা পরিদর্শন করে ১৪টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ৫৭৩টি বাড়ি/ স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।

ভাটারা অঞ্চলে মোট ৪৯৫টি বাড়ি/স্থাপনা পরিদর্শন করে ১২টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ৩৫৩টি বাড়ি/ স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়। সাঁতারকুল অঞ্চলে মোট ৮৮১টি বাড়ি/স্থাপনা পরিদর্শন করে ১২টিতে অ্যাডিস মশার লার্ভা এবং ৭১২টি বাড়ি/ স্থাপনায় অ্যাডিস মশার প্রজনন উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।