• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাড় ১৪২৮ ৬ জিলকদ ১৪৪২

করোনা গুজব

ঠেকাতে হিমশিম খাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী

    সংবাদ :
  • মাসুদ রানা
  • | ঢাকা , বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০

সারাবিশ্বের মতো বাংলাদেশও প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক ও উৎকণ্ঠায় রয়েছে। এই আতঙ্ককে কাজে লাগিয়ে একের পর এক গুজব ছড়াচ্ছে সাইবার অপরাধীরা। কখনও থানকুনি পাতা, কখনও রং চা, কালিজিরা, তেলাপিয়া মাছ খাওয়া, মাওলানার স্বপ্ন দেখা, কিংবা নতুন নতুন ভুয়া মৃত্যুর খবরে প্রতিদিনই সরব হয়ে উঠছে ইউটিউব, ফেসবুক ও অসংখ্য ভুয়া অনলাইন নিউজপোর্টাল। সাধারণ মানুষও এগুলো বিশ্বাস করছে অবলীলায়। শুধু গুজবই নয় লকডাউনকে কেন্দ্র করে পুলিশের পুরনো বিভিন্ন ছবি এডিট করে মাস্ক লাগিয়ে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াসহ অন্যান্য মাধ্যমে। ফলে করোনা নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই গুজবকারীরা থেকে যাচ্ছে ধরাছোঁয়ার বাইরে।

এসব রটনাকারীদের বিরুদ্ধে এরইমধ্যে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গুজব ছড়ানো ৩০টি কনটেন্ট বন্ধ করার পাশাপাশি দেশজুড়ে শতাধিক আইডি শনাক্ত করা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে ১৫ জনকে। সাইবার প্যাট্রোলিং করছে র‌্যাব ও পুলিশ। শীঘ্রই সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে বলে হুঁশিয়ারি দেয়া হয়েছে। এ অবস্থায় গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বলেছেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার ও গুজব ছড়ালে সঙ্গে সঙ্গে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়াও করোনা সম্পর্কে আপডেট দেয়া ও এ দুর্যোগে বিভিন্ন অফার দেয়ার ফাঁদ পেতে হ্যাক করে নেয়া হচ্ছে শত শত আইডি। বিতরণ করা হচ্ছে বিভ্রান্তিকর লিফলেটও।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারকে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলতে এবং অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টির অপচেষ্টা করছে একটি চক্র। এরই অংশ হিসেবে করোনার ভুয়া প্রতিশেষক ও আক্রান্ত রোগীর মনগড়া পরিসংখ্যান দেয়াসহ নানাভাবে গুজব সৃষ্টি করা হচ্ছে। দেশে করোনা রোগী শনাক্তের পরেই থানকুনিপাতা, রং চা, তেলাপিয়া মাছ, কালিজিরা খেলে করোনা সেরে উঠবে এমন গুজব ছড়িয়ে পড়লে এগুলো খেতে মানুষের হিড়িক পড়ে যায়। ফেসবুক মেসেঞ্জারে করোনায় চট্টগ্রামে ১৮-১৯ জনের মৃত্যুর একটি ভুয়া ৩৫ সেকেন্ডের অডিও ভাইরাল হয়। পরে এ ঘটনায় ইফতেখার মোহাম্মদ আদনান নামে এক চিকিৎসককে গ্রেফতার করে পুলিশ। এরপর একের পর ভুয়া মৃত্যু ও পুলিশের বিরুদ্ধে প্রপাগান্ডা ছড়ানো শুরু হয়। এরইমধ্যে ‘মুসলমানদের জন্য করোনাভাইরাস কোন আতঙ্কের কারণ নয়, বরং কাফিরদের প্রতি চরম আজাব-গজব’ এই শিরোনামের লিফলেট বিতরণকালে গত ২৯ মার্চ রাজধানী থেকে ৬ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

করোনাভাইরাস নিয়ে ফেসবুকে আপত্তিজনক পোস্ট দেয়ায় পাবনার ঈশ্বরদী পৌর যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালামকে (৩২) গত ৩০ মার্চ রাতে গ্রেফতার করে পুলিশ। একই অভিযোগে ফেনীতে দুটি গ্রুপের এডমিনকে এবং পিরোজপুরে দুই যুবককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এদিকে, গত কয়েকদিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায়, ‘করোনাভাইরাসকেন্দ্রিক সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার কাজে নিয়োজিত পুলিশ সদস্য এক রিকশাচালককে পিটিয়ে আহত করেছেন’ শিরোনামে একটি ছবি ভাইরাল হয় যা গত বছরের। পুলিশের আরেকটি ছবি ‘লকডাউনের মধ্যে বাইরে বের হওয়ায় পুলিশ ওই যুবককে মারধর করছে’ বলে ফেসবুকে পোস্ট করা হয়েছে। মহিলা পুলিশ সদস্যের মুখে মাস্ক পরিয়ে এই ছবিটি দিয়েও এক শ্রেণীর লোক গুজব রটিয়েছে। ছবিটি সারাদেশে পেট্রল বোমা হামলার সময় বিএনপির পার্টি অফিসের সামনের এক ঘটনার। একইভাবে পুলিশের বেশ কয়েকটি পুরনো ছবি মুখে মাস্ক লাগিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ানো হলেও পুলিশ এখন পর্যন্ত কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি।

জানতে চাইলে পুলিশ সদরদফতরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, চাঁদপুর, খাগড়াছড়ি, চট্টগ্রাম, রাজধানী ও কিশোরগঞ্জ থেকে করোনার গুজব ছড়ানো হচ্ছে। এ সংক্রান্ত ৫০টি আইডি শনাক্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বিটিআরসিতে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি গুজবে জড়িত ৮২টি আইডি, পেজ ও সাইডের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।

সিটিটিসির সাইবার ক্রাইম অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের এডিসি নাজমুল ইসলাম বলেন, করোনার প্রাদুর্ভাব ছড়ানোর আগেই সাইবার ক্রাইম ইউনিট তৎপরতা বৃদ্ধি করে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন ভুয়া তথ্য ছড়ানোর দায়ে ৩০টি ফেসবুক আইটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সারাদেশের আরো শতাধীক আইডি শনাক্ত করা হয়েছে। ৭ জনকে সাইবার ক্রাইম ইউনিটে ডেকে সতর্ক করে তাদের পোস্ট সংশোধন করতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি সাইবার ক্রাইম ইউনিটের অভিযানে সারাদেশ থেকে ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গুজব যেই ছড়াক না কেন তাকে ছাড় দেয়া হবে না বলে জানান সাইবার ক্রাইম ইউনিটের এ কর্মকর্তা।

র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার প্রধান লে. কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম বলেন, করোনা ভাইরাস নিয়ে যেন কেউ গুজব সৃষ্টি করে ফায়দা হাসিল করতে না পারে সে ব্যাপারে সতর্ক রয়েছে র‌্যাব। ইন্টারনেটে গুজব রোধে আমাদের মনিটরিং অব্যাহত থাকবে। র‌্যাব সূত্র জানায়, করোনা নিয়ে গুজব ছড়ানোয় সারাদেশে এখন পর্যন্ত অন্তত ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সিআইডির ফরেনসিক বিভাগের ডিআইজি শেখ নাজমুল আলম বলেন, করোনার গুজব প্রতিরোধে পুলিশ ও সাইবার ক্রাইম ইউনিটের পাশাপাশি সিআইডিও তৎপর রয়েছে। এটা স্পষ্ট যারা করোনা নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে তারা উদ্দেশ্যপ্রদিতভাবে কাজটি করছে। সুতরাং যে বা যারাই এই কাজ করছে সবাইকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আওতায় আনা হবে।

গত ২৯ মার্চ পুলিশ হেডকোয়ার্টাসে এক অনুষ্ঠানে পুলিশ প্রধান (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন, করোনা ভাইরাস সম্পর্কে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভ্রান্তিকর তথ্য ও গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।