• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ২৯ রমজান ১৪৪২

চিকিৎসক-স্বাস্থ্যকর্মীর সঙ্গে

বাড়িওয়ালাদের অমানবিক আচরণ বন্ধে আইনি নোটিশ

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , শনিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২০

চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে বাড়িওয়ালাদের অযৌক্তিক ও অমানবিক আচরণ বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং সামাজিকসহ অন্যান্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে একটি সুনির্দিষ্ট আইন প্রণয়নের নির্দেশনা চেয়ে সংশিষ্টদের প্রতি লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

নাইটিংগেল মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হসপিটালের সহকারী অধ্যাপক ডা. মো. ওবায়দুর রহমানের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তানজিম আল ইসলাম এ নোটিশ প্রেরণ করেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব, আইন মন্ত্রণালয় সচিব এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবের সরকারি ই-মেইলে এ নোটিশ পাঠানো হয়। বুধবার করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশে প্রথম একজন চিকিৎসক মৃত্যুবরণ করার পরিপ্রেক্ষিতে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের বীমা আইনসহ বিভিন্ন বিষয়ে আইন ও বিধিমালা করতে এই নোটিশ। নোটিশে বলা হয়, সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী দেশের সরকারি-বেসরকারি চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রাণঘাতী এ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সুস্থ করে তুলতে নিষ্ঠার সঙ্গে নিরলস চিকিৎসাসেবা প্রদান করে যাচ্ছেন। প্রাণঘাতী এ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে দেশের মানুষকে সুরক্ষা দিতে হলে বর্তমানে কর্মরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের এ নিরলস চিকিৎসাসেবার কোন বিকল্প নেই। যেহেতু করোনাভাইরাস একটি সংক্রামক রোগ, তাই পর্যাপ্ত পারসোনাল প্রটেকশন ইকুইপমেন্ট (পিপিই) না থাকার কারণে করোনা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসাসেবা প্রদান করতে গিয়ে অনেক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন। করোনায় আক্রান্ত হওয়ার এ ঝুঁকি নিয়ে যেখানে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরা নিরলস চিকিৎসাসেবা প্রদান করে যাচ্ছেন, সেখানে পত্রপত্রিকা মারফত জানা যাচ্ছে, একদল বাড়িওয়ালা বর্তমান পরিস্থিতিতে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের বাসা ছেড়ে দেয়ার মতো অযৌক্তিক ও অমানবিক নির্দেশ প্রদান করছেন। এমনকি তাদের সঙ্গে চরম দুর্ব্যবহার পর্যন্ত করছেন যা তাদের মানসিকভাবে দুশ্চিন্তার মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। অথচ প্রাণঘাতী করোনার এ পরিস্থিতিতে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের কাছ থেকে নিরলস চিকিৎসাসেবা পেতে হলে তাদের মানসিকভাবে নির্ভার রাখাটা অত্যন্ত জরুরি।