• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই ২০২১, ১১ শ্রাবন ১৪২৮ ১৫ জিলহজ ১৪৪২

দেশে করোনায় মৃত্যু হাজার ছাড়ালো

২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত ৩১৯০ জন : মৃত্যু ৩৭

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১১ জুন ২০২০

image

দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে। এছাড়া একদিনে সর্বোচ্চ ৩ হাজার ১৯০ জন শনাক্ত হয়েছে গতকাল।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের তথ্যমতে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জন প্রাণ হারিয়েছেন। ফলে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ১২ জনে। শনাক্ত হয়েছেন আরও ৩ হাজার ১৯০ জন। করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় ৭৪ হাজার ৮৬৫ জনে। সুস্থ হয়েছেন আরও ৫৬৩ জন। ফলে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন মোট ১৫ হাজার ৯০০ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা জানান, করোনা শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬ হাজার ৯৯৪টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৫ হাজার ৯৬৫টি নমুনা। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো চার লাখ ৪১ হাজার ৫৬০টি।

এদিকে জোন ভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার করোনা পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণে আনার উদ্যোগ নিয়েছে। ইতোমধ্যে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় জোনভিত্তিক লকডাউন বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। তবে করোনা মোকাবিলায় পর্যাপ্ত সময় পেয়েও সমন্বিত পদক্ষেপ না নিয়ে এলোমেলো সিদ্ধান্তে পরিস্থিতি সামাল দেয়া কতটা সম্ভব হবে তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন চিকিৎসকরা।

বুলেটিনে বলা হয়, নতুন করে যারা মারা গেছেন, তাদের ৩৩ জন পুরুষ এবং চার জন নারী। এদের মধ্যে ২৫ জন মারা গেছেন হাসপাতালে এবং ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে বাসায়। এদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ২৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে সাতজন, রাজশাহী বিভাগে একজন, সিলেট বিভাগে একজন, বরিশাল বিভাগে দু’জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগে একজনের মৃত্যু হয়েছে। বয়সের দিক থেকে ১১ বছ?রের ঊ?র্ধ্বে একজন, ত্রিশোর্ধ্ব তিনজন, চল্লিশোর্ধ্ব পাঁচজন, পঞ্চাশোর্ধ্ব ১০ জন, ষাটোর্ধ্ব ১০ জন সত্তরোর্ধ্ব সাতজন এবং ৮০ বছরের বেশি বয়সী একজন।

বুলেটিনে বলা হয়, এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় রোগী শনাক্তের হার ১৯ দশমিক ৯৮ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক ২৪ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৫ শতাংশ। আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে আরও ৫৩৮ জনকে। এ প?র্যন্ত আই?সো?লেশনে নেয়া হয় ১২ হাজার ৯৬৬ জনকে। আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ১৮৮ জন। এ পর্যন্ত ছাড় পেয়েছেন চার হাজার ৭২৩ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন আট হাজার ২৪৩ জন। হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক মিলিয়ে কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে তিন হাজার ১৫৬ জনকে। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে নেয়া হয়েছে তিন লাখ নয় হাজার ১৮৩ জনকে। ছাড় পেয়েছেন ২ হাজার ৮৩ জন। এ পর্যন্ত মোট ছাড় পেয়েছেন দুই লাখ ৫১ হাজার ৪৭২ জন। বর্তমানে হোম ও প্রাতিষ্ঠানিক মিলিয়ে কোয়ারেন্টিনে রয়েছেন ৫৭ হাজার ৭১১ জন।