• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ৯ শ্রাবন ১৪২৮ ১৩ জিলহজ ১৪৪২

জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশের ম্যাচ আজ

সংবাদ :
  • বিশেষ প্রতিনিধি

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ২০ জুলাই ২০২১

image

হারারেতে টাইগারদের হোয়াইটওয়াশের প্রস্তুতি

জিম্বাবুয়ে সফরে এখন পর্যন্ত টাইগারদের সাফল্য শতভাগ। একমাত্র টেস্টে ২২০ রানের জয়ের পর ওডিআই সিরিজের টানা দুই ম্যাচে যথাক্রমে ১৫৫ রান ও তিন উইকেটের জয়ে রীতিমতো উড়ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এক ম্যাচ হাতে রেখেই তিন ম্যাচের সিরিজ জিতে নেয়া বাংলাদেশ দল আজকের ম্যাচে স্বাগতিকদের হোয়াইটওয়াশ করতে চাইবে। হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে আজ বাংলাদেশ সময় দুপুর দেড়টায় শুরু হবে ম্যাচটি।

আইসিসি ওডিআই সুপার লীগ চালু হওয়াতে ৫০ ওভারের ফরম্যাটে প্রতিটা ম্যাচই প্রতিটা দলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। গত মে মাসে শ্রীলঙ্কা সিরিজে বাংলাদেশ দলের হাত থেকে শেষ ম্যাচটা ফস্কে গিয়েছিল। তেমনটা এবার আর হতে দিতে চাইবে না টাইগাররা। আবার জিম্বাবুয়েরও চাই দশ পয়েন্ট। কেননা, এই সিরিজটার পর চলতি বছরের শেষদিকে দুই দলের সামনেই অপেক্ষা করছে বড় দলগুলোর কঠিন চ্যালেঞ্জ।

বেশ কিছুদিন ফর্মের বাইরে থাকার পর বাংলাদেশের এ যাবৎকালের সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান জিম্বাবুয়ে সফরে নিজেকে আবার খুঁজে পেয়েছেন। প্রথম ম্যাচে তার পাঁচ উইকেট শিকারের কারণেই জিম্বাবুয়ে মাত্র ২৯ ওভারের মধ্যে অলআউট হয়। দ্বিতীয় ম্যাচে তো সাকিবের একক কৃতিত্বেই জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে অপরাজিত ৯৬ রানের ইনিংসটার আগে দ্বিতীয় ম্যাচে জিম্বাবুয়ের দুটো উইকেটও শিকার করেন তিনি। বিশেষ করে রোববারের ম্যাচের শেষ ২০ ওভারে বাংলাদেশ দল যখন ম্যাচ থেকে প্রায় ছিটকে যাচ্ছিলো, তখন সাকিব একাই হাল ধরেছিলেন।

ওডিআই সিরিজে টানা দুটো ম্যাচে জয় পেলেও প্রথম ম্যাচে লিটন কুমার দাসের সেঞ্চুরি এবং দ্বিতীয় ম্যাচে সাকিবের ইনিংসটা অবশ্য বাংলাদেশের ব্যাটিং ডিপার্টমেন্টের ফাঁক ফোকরগুলো বেশ ভালোভাবেই চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়েছে। হাঁটুর ইনজুরিতে ভুগছেন দেশসেরা ওপেনার তথা ৫০ ওভারের ফরম্যাটে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক তামিম ইকবাল। অনেকদিন পর রানে ফিরেছেন লিটন কুমার দাস। চলতি বছরে মোহাম্মদ মিথুন আর মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত কিছুতেই নিজেদের খুঁজে পাচ্ছেন না। মিডল অর্ডারে মুশফিকুর রহিমের অভাবটা বেশ ভালোভাবেই টের পাচ্ছে বাংলাদেশ দল। সিরিজের শেষ ওডিআই ম্যাচ জিতে স্বাগতিকদের হোয়াইটওয়াশ করতে হলে শেষদিকে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মেহেদি হাসান মিরাজ, আফিফ হোসেন ও মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের ব্যাটে প্রথম দুই ম্যাচের মতই ঝড় ওঠা চাই।

সবচেয়ে বড় কথা হলো, টিম ম্যানেজমেন্টের পরিকল্পনামতোই বাংলাদেশ দলের টপ অর্ডারের অন্তত একজন ব্যাটার বড় স্কোর গড়তে সক্ষম হয়েছেন।

অন্যদিকে জিম্বাবুয়ে দলে নেই তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান বা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। তারপরও স্বাগতিকরা রোববারের ম্যাচে ওয়েসলি মাধভেরের ব্যাটিং নৈপুণ্য কিংবা প্রথম ম্যাচে রেজিস চাকাভার হাফ সেঞ্চুরির ইনিংস থেকে অনুপ্রেরণা পেতে পারে। গত বছর অভিষেক হওয়ার পর টানা তিনটা ওডিআই সিরিজে হাফ সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন মাধভেরে। ফিল্ডিংয়ে বিশেষ করে পয়েন্টে দারুণ এক ফিল্ডার তিনি। তার অফ ব্রেক বোলিংও দলের প্রয়োজনে কাজে লাগতে দেখা যায়। সিরিজের স্বাগতিক দল চাইছে ব্যাটাররা যেনো সুন্দর সূচনাটাকে শেষ পর্যন্ত টেনে নিয়ে যায়। দ্বিতীয় ম্যাচে তাদের ব্যাটাররা আরেকটু ভালো করলেই বাংলাদেশ দল কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তো। সেই ম্যাচে দুর্ভাগ্যের শিকার হন অধিনায়ক ব্রেন্ডন টেলর। তবে রেজিস চাকাভা ও ডিয়ন মায়ার্সের ব্যাট হাতে জ্বলে ওঠার ওপর অনেক কিছুই নির্ভর করে। দুই ওপেনার তিনাশে কামুনহুকামোয়ে এবং তাদিওয়ানাশে মারুমানি শুরুর দিকের অন্তত ১৫টা ওভার কাটিয়ে দিতে পারলে স্বান্ত্বনার জয়ের পথে এগাতে পারবে হয়তো জিম্বাবুয়ে।

গত রোববার পর্যন্ত টাইগাররা টানা ১৮টা ম্যাচে পরাজিত করেছে জিম্বাবুয়েকে। মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ খেলতে নামবেন দ্বিশততম ওডিআই। ফর্মে ফিরেছেন সাকিব আল হাসান। লিটন কুমার দাস, আফিফ হোসেন এবং টপ অর্ডারে তামিম ইকবাল জ্বলে উঠলে বাংলাদেশ দলের টানা জয়ের সংখ্যাটা হবে ১৯, ওডিআই সুপার লীগে যোগ হবে আরো দশটি পয়েন্ট। এমন সুযোগ হাতছাড়া করতে চাইবে না টাইগাররা। আজকের ম্যাচটার পরের দিনই পবিত্র ঈদুল আজহা। এই জয়টা ঈদের আনন্দ যে বহুগুনে বাড়িয়ে দেবে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।