• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবন ১৪২৮ ১৬ জিলহজ ১৪৪২

রংপুর বদরগঞ্জে

ওসির ফরমানে থানায় প্রবেশ নিষিদ্ধ

ফোন ধরেন না, মামলা রেকর্ড করেন না

সংবাদ :
  • লিয়াকত আলী বাদল, রংপুর

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১১ জুন ২০২০

রংপুরের বদরগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান থানায় সাধারণ মানুষের বিশেষ করে ভুক্তভোগীদের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ করে ফরমান জারি করেছেন। কারও কোন অভিযোগ থাকলে থানার গেটে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করার পর অভিযোগ জমা দিয়ে চলে যাবার জন্য বলা হয়। ফোন করলে পরে আসেন বলে রেখে দেন তিনি।

জানা গেছে, করোনা সংক্রমণের পর থেকে বদরগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমান অলিখিত নির্দেশনা জারি করে থানায় সাধারণ মানুষের প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ করেন। তিনি বেশিরভাগ সময় থানা চত্বরে বাস ভবনে থাকেন। সহকর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছেন, কারও কোন বিষয়ে অভিযোগ থাকলে থানার গেটে অপেক্ষা করতে হবে। এরপর থানা থেকে একজন এসে লিখিত অভিযোগটি নিয়ে যায়; বলা হয় তদন্ত করতে যাওয়া হবে। কবে যাওয়া হবে, কোন অফিসার যাবেন, তা না বলে অপেক্ষা করার কথা বলা হয়।

সরজমিন বদরগঞ্জ থানায় গিয়ে দেখা গেছে থানার প্রধান গেটের একটা অংশ খোলা রাখা হলেও কাউকেই ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয় না। বদরগঞ্জ থানার বৈরামপুর কালুপাড়া গ্রামের শাহীন মিয়া অভিযোগ করেন দুবৃর্ত্তরা তার তিনটি হাড়ি ভাঙ্গা আম বাগানের গাছ কেটে দিয়েছে। ফলন্ত গাছ কেটে দিয়ে তার ৩০ লাখ টাকা ক্ষতি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগ দেবার পর অন্তত ৭ বার ওসিকে ফোন করে অনুনয় বিনয় করলেও ওসি বা কোন পুলিশ দেখতেও যাননি।

লোহানীপাড়া গ্রামের এক নির্যাতিতা নারী থানায় ঢুকতে না পেরে লিখিত অভিযোগ দেন। এরপর এক মাস অতিবাহিত হলেও সেই অভিযোগ মামলা হিসেবে রেকর্ড হয়নি। এ ব্যাপারে বেশ কয়েকবার ওসিকে ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

অন্যদিকে মধুপুর ইউনিয়নের চারানীপাড়া গ্রামে একই পরিবারের চারজনকে কুপিয়ে আহত করে। গুরুতর আহত অবস্থায় তারা রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন বেশ কয়েকদিন। এ ঘটনায় কয়েকদিন পর মামলা নেয়া হলেও আসামিদের গ্রেফতারে কোন পদক্ষেপ নেয়নি পুলিশ। বরং পুলিশ নির্বিকার।

রাধারনগর ইউনিয়নের সাতঘরিয়া পাড়ার মাহাতাব উদ্দিনের গাছ কেটে নিয়ে যায় দুবৃর্ত্তরা। এ ঘটনায় ওসি মামলা নেয়নি। তবে প্রতিপক্ষের দেয়া অভিযোগ মামলা হিসেবে রেকর্ড করে উল্টো তাদের গ্রেফতার করার পাঁয়তারা করছে পুলিশ। এ ধরনের অসংখ্য অভিযোগ ওসি হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে।

স্থানীয় সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী আফরোজা বেগম অভিযোগ করেন ওসির কাছে যদি সাধারণ মানুষ বিচার না পায় তাহলে কার কাছে যাবে?

বদরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক টুটুল চৌধুরী বলেন, বিষয়টি নিয়ে তিনি স্থানীয় সংসদ সদস্যের সঙ্গে কথা বলবেন।

রংপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডিউক চৌধুরী বলেন, বিষয়টি তিনি গুরুত্বের সঙ্গে দেখছেন।

সার্বিক বিষয়ে বদরগঞ্জ থানার ওসি হাবিবুর রহমানের সঙ্গে সরকারি মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ‘আমাকে তো সব কিছু দেখে কাজ করতে হবে। মানুষকে হয়রানি ও মামলা না নেবার বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা।’