• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ১০ মে ২০২১, ২৭ বৈশাখ ১৪২৮ ২৭ রমজান ১৪৪২

মুজিববর্ষে

ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোধে নানা পদক্ষেপ

বছরের শুরুতেই আক্রান্ত ২৪০

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , মঙ্গলবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২০

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে গতকাল পর্যন্ত মরণব্যাধি ডেঙ্গুজ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২৪০ জন। ডেঙ্গুজ্বরের বাহক অ্যাডিস মশা নিয়ন্ত্রণে এখনও চলছে ঢিলেঢালা ভাব। এখনও বিভিন্ন এলাকায়, অফিসপাড়ায় অ্যাডিস মশাসহ অন্যান্য মশার বিস্তার রয়েছে। অন্যদিকে, মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে এবার আগাম পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তারা মুজিববর্ষ পালনের অংশ হিসেবে আগামী এপ্রিল মাসকে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার মাস হিসেবে ধরে ১৮ ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। এ নিয়ে গত ২৩ ফ্রেব্রুয়ারি মহাখালী স্বাস্থ্য অধিদফতরে উচ্চ পর্যায়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই বৈঠকে ডা. আফসানা আলমগীর খান অ্যাডিস মশা নিয়ে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালিত জরিপ কাজটি গত ১৮ থেকে ২৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাজধানীর ৯৮টি ওয়ার্ডের ১০০টি স্থানে ১ হাজার হাউজহোল্ডে জরিপ চালানো হয়। জরিপে মৌসুম পরবর্তী সময়েও ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বেশকিছু এলাকায় অ্যাডিস মশার ঘনত্ব স্বাভাবিক মাত্রার কাছাকাছি বলে পরিলক্ষিত হয়। প্লাস্টিক ড্রাম, প্লাস্টিক বালতি, পরিত্যক্ত টায়ার, নির্মাণাধীন ভবনের মেঝেতে জমানো পানিতে অ্যাডিস মশার বংশবিস্তার বেশি পরিলক্ষিত হয়। এছাড়াও এডাল্ট অ্যাডিস মশার ঘনত্ব নির্ণয়ে বিজি সেন্টিনেল ট্র্যাপ-২ ব্যবহার করা হয়। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৯টি ওয়ার্ডে ১৩৭টি ট্র্যাপে ১৩০টি যেখানে মৌসুম পূর্বে ছিল ১৪১টি ট্র্যাপ ৭৮টি।

বিশেষজ্ঞরা জরিপ ফলাফলের ওপর তাদের মতামতে বলেন, অ্যাডিস মশার বংশবিস্তার রোধে ও বিভিন্ন সংস্থার মধ্যে সমন্বয় ও সহযোগিতা বৃদ্ধির ওপর গুরুত্ব দেন। এ বছর মুজিববর্ষ পালনের অংশ হিসেবে এপ্রিল থেকে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া মাস হিসেবে নিয়ে গৃহীত পদক্ষেপগুলোর মধ্যে রয়েছে, ডেঙ্গু বিষয়ক চিকিৎসা নিয়ে ট্রেনিং (চলতি ফেব্রুয়ারি মাস থেকে)। যা এপ্রিল মাসেও চলমান থাকবে। দেশের সব মেডিকেল কলেজের মেডিসিন, শিশু, গাইনি অবস এর সহযোগী অধাপক, সহকারী অধ্যাপক, রেজিস্ট্রার, সিনিয়র কনসালটেন্ট, ইনডোর মেডিকেল অফিসার, ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসার ও আইসিইউ, সিসিইউ চিকিৎসকদের ডেঙ্গু ম্যানেজমেন্ট বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। দেশের সব সদর হাসপাতালের চিকিৎসকদের এ প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। গত বছরের ডেঙ্গু পরিস্থিতিকে মাথায় রেখে ডেঙ্গু ম্যানেজমেন্ট গাইডলাইন আপডেট করা হচ্ছে।

ডেঙ্গু সচেতনতা বিষয়ক পোস্টার তৈরির কাজ চলছে। উপজেলা থেকে শুরু করে সারাদেশে এ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এপ্রিল মাসে দেশের সব বিভাগ, জেলা ও উপজেলায় ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া বিষয়ক সচেতনতামূলক জনসম্পৃক্ত সভা অনুষ্ঠিত হবে। স্কুল ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদেরও ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়ার সচেতনতা সম্পর্কে জানাতে সভা করা পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। সিটি করপোরেশন ও পৌর মেয়রদের নিয়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা বিষয়ক সভা করে ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেয়া হবে। আর ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া মোকাবিলায় বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার সহায়তায় ডেঙ্গু স্ট্র্যাটিজিক প্ল্যান ও ইন্টিগ্রেটেড ভেক্টর ম্যানেজমেন্ট ড্রাফট এর কাজ শুরু হয়েছে।