• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ৪ আষাড় ১৪২৮ ৬ জিলকদ ১৪৪২

২ জেলায় চিকিৎসক সেবিকা পুুলিশসহ কোয়ারেন্টিনে ২২

| ঢাকা , রোববার, ২৬ এপ্রিল ২০২০

ঠাকুরগাঁও

জেলা বার্তা পরিবেশক, ঠাকুরগাঁও

ঠাকুরগাঁওয়ে আধুনিক সদর হাসপাতালে গাইনি ওয়ার্ডে এক নারীর চিকিৎসা দেয়ার পর জ্বর, সর্দি, কাশি উপসর্গ থাকায় করোনা পরীক্ষার জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নমুনা প্রেরণ করে স্বাস্থ্য বিভাগ। পরে নমুনায় ওই নারী করোনা শনাক্ত হওয়ায় সদর হাসপাতালের গাইনি বিভাগের ২ জন ও মেডিসিন বিভাগের ২ চিকিৎসকসহ ৯ জন নার্সকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া সরিয়ে নেয়া হয়েছে গাইনি ওয়ার্ড। গত বুধবার রাতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ঠাকুরগাঁও সিভিল সার্জন ডা. মাহফুজার রহমান শুক্রবার সন্ধ্যায় চার চিকিৎসক ও ৯ নার্স কোয়ারেন্টিনে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিরুল আজিজ চপল জানান, সদর হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ড জীবাণুমুক্ত করার জন্য রোগীদের সার্জারি ওয়ার্ডে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। গাইনি ওয়ার্ডের দুই চিকিৎসক, নয়জন নার্স ও ওই নারীর সংস্পর্শে আসা মেডিসিন বিভাগের দুই চিকিৎসককে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়েছে। করোনা পরীক্ষার জন্য তাদের সবারই নমুনা সংগ্রহ করে রংপুরে পাঠানো হয়েছে। এদিকে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসনও ওই নারীর সংস্পর্শে আসা ডাক্তার, টেকনিশিয়ানসহ সকলকে শনাক্ত করে কোয়ারেন্টিনে পাঠিয়েছে বলে জানান ঠাকুরগাঁও সিভিল সার্জন।

দশমিনায়

প্রতিনিধি, দশমিনা (পটুয়াখালী)

পটুয়াখালীর দশমিনায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারীদের মধ্যে স্যানিটারি ইন্সপেক্টর মো. শাহাবুদ্দিন করোনায় আক্রান্ত হলে এই আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশসহ ৯ জন হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠানো হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিস সূত্রে জানা যায়, করোনাভাইরাসে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও বাজার নিয়ন্ত্রণসহ ভেজাল বিরোধী অভিযানের জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার করে আসছিলেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মানস চন্দ্র দাশ, স্যানিটারি ইন্সপেক্টর মো. শাহাবুদ্দিন আহম্মেদ, উপজিলা ভূমি অফিসের অফিস সহকারী মো. শামীম হোসেন, স্টাফ মো. নুরুল হক, উপজেলা নির্বাহী অফিসের গাড়ির ড্রাইভার মো. মিজানুর রহমান ও দশমিনা থানার এস.আই, পিএসআইসহ সঙ্গীয় ৩ পুলিশ সদস্য। এর মধ্যে গত মঙ্গলবার স্যানিটারি ইন্সপেক্টরের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে আইসোলেশনে নেয়। এই ঘটনার পরে নিরাপত্তার জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকারী ওই ৯ জন হোম কোয়ারেন্টিনে চলে নেয়া হয়।