• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ২৯ রমজান ১৪৪২

শীতলক্ষ্যা পাড়ে ময়লার ভাগার

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ)

| ঢাকা , শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) : শীতলক্ষার কাঞ্চনঘাটে এভাবেই ফেলা হচ্ছে ময়লা -সংবাদ

নারায়ণগঞ্জের প্রবাহমান শীতলক্ষ্যা এখন যেন ময়লার ভাগাড়। নদীর দুই তীরের হাট বাজার, কলকারখানা ও মানববর্জ্য প্রকাশ্যেই ফেলা হচ্ছে নদীতে। সবচেয়ে ভয়াবহ পরিবেশ রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌর এলাকায়। এতে একদিকে যেমন নদী দূষণ হচ্ছে, তেমনি স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ছে নদী পাড় ও নদীকে কেন্দ্র করে জীবিকাবাহী মানুষের। হুমকির মুখে পড়েছে নদীর জীববৈচিত্র্য।

স্থানীয়রা জানান, স্থানীয় শিল্প কারখানা, হাটাবাজারের সৃষ্ট ময়লা আবর্জনা সরাসরি নদীর তীরে রাখা হয়েছে। আর এসব ময়লা গড়িয়ে পড়ছে নদীতে। এতে রূপ নিয়েছে ময়লা ভাগারে। রাত হলেই এসব ময়লা বেকু দিয়ে নদীতে ফেলা হয়ে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। এতে নদীর পরিবেশ ধ্বংস হচ্ছে। হুমকির মুখে পড়েছে নদীর জীববৈচিত্র্য। এসব ময়লার কারণে নদীর পানিতে পঁচা দূর্গন্ধের জন্য আশেপাশের জনবসতি হয়ে পড়েছে অতিষ্ট। সরকার রাজধানীর আশেপাশের নদী রক্ষার জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করলেও অস্থায়ী ময়লার ভাগার সরানোর ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নেননি। তাই নদীর তীরের পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

স্থানীয় বাসিন্দা আছমা আক্তার রূপা বলেন, শিশুদের বিদ্যালয়ে নেয়ার জন্য প্রতিদিন নদী পারাপারের সময় এ নদীর পচা পানির দুর্গন্ধে বিরক্ত হই। আবার কাঞ্চন খেয়া ঘাটের পাশে ময়লার ভাগার থাকায় এ অবস্থা আরো সুচনীয়। কাঞ্চন ভারত চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা আমেনা আক্তার লিপি বলেন, এক সময় শীতলক্ষ্যার পানি নদী পারের লোকজন পান করতেন। এখন পান করা তো দূরের কথা নদী পারে দাড়ানোই যায় না। স্থানীয় বাসিন্দা জুলহাস মিয়া বলেন, কাঞ্চন বাজার-পিতলগঞ্জ খেয়া ঘাটে কাঞ্চনে প্রকাশ্যে ময়লার ভাগার রাখা রয়েছে। পাশেই খেয়া ঘাট। একদিকে হাজারো লোকের চলাচলে অসুবিধা অন্যদিকে নদীর সর্বনাশ ঘটাচ্ছে একটি পক্ষ। তাই নদী রক্ষায় কর্তৃপক্ষের উদ্যোগ জরুরি।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার মুড়াপাড়া বাজার, তারাবো বাজার, ডেমরার চনপাড়া, বেলদী বাজার, আতলাপুর বাজারসহ নদী পাড়ের হাট বাজারের সকল আবর্জনা ফেলার স্থান হিসেবে নির্ধারন করা হয়েছে শীতলক্ষ্যাকে। একইভাবে নদী পারের শিল্পকারখানার বর্জ্য ফেলা হচ্ছে নদীতে। উপজেলার মুড়াপাড়ার ক্রিস্টাল সল্ট কারখানার লবনের খাঁদ ফেলে মিঠা নদীর পানিতে লবণাক্ত করে তুলেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে জেলেরা। আগের তুলনায় মাছ না পেয়ে অতি কষ্টে জীবিকা নির্বাহ করছে। অভিযোগ রয়েছে ইটিপি প্ল্যান বাস্তবায়ন না করায় এ সমস্যা বেড়েই চলছে।

রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি কলামিষ্ট ও গবেষক লায়ন মীর আবদুল আলীম বলেন, নদীর বাঁচাও আন্দোলনের মাধ্যমে দীর্ঘদিন যাবৎ নদী রক্ষার জন্য নানা সচেতনমুলক কর্মসূচী বাস্তবায়ন করে আসছি। তথাপিও একটি পক্ষ জোড় করেই নদীকে ময়লার ভাগারে পরিণত করছে। যা মেনে নেয়া যায় না। নদী মাতৃক এ দেশ রক্ষায় নদী রক্ষার বিকল্প নাই।

এ বিষয়ে কাঞ্চন পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, কাঞ্চন বাজারের ময়লা ফেলার জন্য নতুন স্থান তৈরির চেষ্টা করছি। কোন অবস্থাতেই ময়লা ফেলতে দেয়া হবে না। নদী রক্ষায় প্রশাসনকে সহযোগিতা করা হবে।

এ বিষয়ে রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মমতাজ বেগম বলেন, নদী রক্ষায় ইতোমধ্যে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। ময়লার ভাগার বিষয়ে জানলাম। সংশ্লিষ্ট শিল্প কারখানা মালিক, জনপ্রতিনিধিদের তা সরিয়ে নিতে নোটিস করা হয়েছে। এরপরও কোন পক্ষ এমন কাজে জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।