• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ২৯ রমজান ১৪৪২

এক বছরে ‘তথ্য আপা’র সেবা পেলেন সাড়ে ৫ হাজার নারী

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, বদলগাছী (নওগাঁ)

| ঢাকা , সোমবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

পতœীতলা (নওগাঁ) : ‘তথ্য আপা’ কার্যালয়ে সেবাপ্রার্থী সুবিধাবঞ্চিত নারীদের ভিড় -সংবাদ

নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলায় জনপ্রিয় হয়ে উঠছে নারীদের জন্য ডিজিটাল সেবা তথ্য কেন্দ্রের ‘তথ্য আপা’। মূল সেবা কার্যক্রমের পর থেকে এই উপজেলায় মে/২০১৯ ইং থেকে জানুয়ারি/২০২০ ইং মাস পর্যন্ত এই তথ্য সেবা কেন্দ্র থেকে সেবা পেয়েছেন ৫৪৭৮ জন সুবিধাবঞ্চিত নারীরা।

সরেজমিনে বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় তথ্য আপার তথ্য কেন্দ্র অফিসে গিয়ে দেখা যায়, তথ্য কেন্দ্রের কার্যালয়ের ভেতরে নজিপুর সরকারি কলেজের ২-৩ জন শিক্ষার্থী বিনামূল্যে তথ্য সেবা নিতে বসে আছেন। সেখানে কেউ চাকরির খবরাখবর, কেউ ইন্টারনেট সম্পর্কে বিভিন্ন ধারণা, কেউ ইন্টারনেটের বিভিন্ন প্রয়োজনীয় ওয়েবসাইট সম্পর্কে জেনে নিচ্ছেন। আবার কেউ কিভাবে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে হয় তা শিখছেন। আবার কেউবা ব্লাড প্রেসার মাপার জন্য এসেছেন। আর ওই সেবা দিতে সহযোগিতা করছেন তথ সেবা সহকারী নুপুর বানু ও তথ্যসেবা কর্মকর্তা হাসি খাতুন।

উপজেলা তথ্য আপা অফিস সূত্রে জানা যায়, ‘তথ্য আপা’র তথ্যকেন্দ্রটি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়ন প্রকল্পের (১ম পর্যায়ে) ১৩টি উপজেলায় এই সেবা কার্যক্রম চালু হয়। ১ম পর্যায়ে এই ১৩টি উপজেলার মধ্যে পত্নীতলা উপজেলায়ও চালু হয় তথ্য আপা কেন্দ্রটি। কিন্তু চালু হলেও অফিসে ডিজিটাল অফিস সরঞ্জামদি ও জনবল সঙ্কটের কারণে বেশি দূর অগ্রসর হতে পারেনি। পরে প্রকল্পের (২য় পর্যায়ে) সারাদেশে ৪৯০টি উপজেলায় এই সেবা চালু হয়। যার মেয়াদ ধরা হয়েছে এপ্রিল ২০১৭ সাল থেকে মার্চ ২০২২ সাল পর্যন্ত। এই উপজেলায় তথ্য সেবা কেন্দ্রে একজন তথ্য সেবা কর্মকর্তা, দু’জন তথ্য সেবা সহকারী ও একজন অফিস সহায়ক রয়েছেন।

বিনামূল্যে সেবা প্রদানের জন্য ব্লাড প্রেসার পরিমাপের যন্ত্র, ওজন পরিমাপের যন্ত্র, ডায়াবেটিস পরীক্ষার যন্ত্রাংশ ও ল্যাপটপ সঙ্গে নিয়ে গিয়ে তথ্য আপারা বিনামূল্যে গ্রামের সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা ও ইন্টারনেট সেবা প্রদান করছে। যার কারণে গ্রামের সুবিধাবঞ্চিত মহিলারা ঘরে বসে পাচ্ছেন প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা ও ইন্টারনেটের সেবা প্রদান।

পৌরসভা এলাকার কোলনীপাড়া নামক গ্রামের রোকছানা খাতুন নামে আরেক শিক্ষার্থী বলেন, আমি আজকে এখানে এসেছি ব্লাড প্রেসার ও ইন্টারনেটে চাকরির খোঁজ-খবর নিতে। তিনি আরও বলেন, আমি গরিব ঘরের মেয়ে তাই আমার খরচ করার কোন টাকা নেই তাই আমি এই তথ্য আপা অফিসে এসে বিনামূল্যে এখানে ইন্টারনেটের মাধ্যেমে চাকরির খোঁজ-খবর নিয়ে চাকরির আবেদন করে থাকি। উপজেলা তথ্য সেবা সহকারী মোসা. নুপুর বানু বলেন, এই সেবা কার্যক্রমে যোগদানের পরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। অফিসের পাশাপাশি বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে ডিজিটাল সেবাটা কি এবং কিভাবে ওই সেবা পাওয়া যাবে এইসব বিষয়ে উঠান বৈঠক এর মাধ্যেমে গ্রামের সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের সঙ্গে আলোচনা করে থাকি। আস্তে আস্তে এই উপজেলায় আমাদের এই ‘তথ্য আপা’র তথ্যকেন্দ্রটি সাধারণ মানুষের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। উপজেলা তথ্য সেবা কর্মকর্তা হাসি খাতুন দৈনিক সংবাদকে বলেন, তথ্য সেবা কেন্দ্রে সকল সেবা বিনামূল্যে দেয়া হয়। এখানে শুধুমাত্র নারীদের সেবা প্রদান করা হয়ে থাকে।