• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ২৮ বৈশাখ ১৪২৮ ২৮ রমজান ১৪৪২

পটুয়াখালী ২৫০ শয্যার হাসপাতাল

৫৮ পদে ১২ চিকিৎসক খুঁড়িয়ে চলছে স্বাস্থ্যসেবা

সংবাদ :
  • স্বপন ব্যানার্জী, পটুয়াখালী

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০

পটুয়াখালী ২৫০ শয্যার হাসপাতাল এখন চিকিৎসক সঙ্কটে ভুগছে। হাসপাতালে চিকিৎসকের পদ রয়েছে ৫৮ জন। এর মধ্যে ৪৪টি পদই শূন্য রয়েছে। কর্মরত আছেন মাত্র ১৪ জন চিকিৎসক। এর মধ্যে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ও সহকারী পরিচালককে বেশিরভাগ সময় প্রশাসনিক কাজে ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে। মাত্র ১২ জন চিকিৎসক দিয়ে চলছে এই হাসপাতাল।

এই অবস্থায় অন্য বিভাগ থেকে দুইজন চিকিৎসক এনে চালাতে হচ্ছে জরুরি বিভাগ এবং বহির্বিভাগে কোন চিকিৎসক নেই। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পাঁচজন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (স্যাকমো) দিয়ে চলছে হাসপাতালের বহির্বিভাগ। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ১৯৭৯ সালে শহরের কালিকাপুর এলাকায় এক শ’ শয্যার জেনারেল হাসপাতাল নির্মাণ করা হয়। ১৯৯৬ সালে এটি ১৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। পড়ে ২০০৫ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারিতে এই হাসপাতালকে ২৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়। এর জন্য অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা হলেও লোকবল বাড়ানো হয়নি।

২৫০ শয্যার জনবল কাঠামো অনুযায়ী হাসপাতালটিতে তত্ত্বাবধায়কসহ ৫৮ জন চিকিৎসক থাকার কথা। কিন্তু এখন কর্মরত আছেন মাত্র ১৪ জন। এই হাসপাতালে দীর্ঘদিনের চিকিৎসক সঙ্কট নিরসনে কর্তৃপক্ষ বার বার উদ্যোগ নিলেও সে উদ্যোগ পূর্ণতা পায়নি। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ও সহকারী পরিচালককে প্রশাসনিক দায়িত্বে থাকতে হচ্ছে। বাকি ১২ জন চিকিৎসককে হাসপাতালের জরুরি বিভাগ ও আন্তঃবিভাগের সকল চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম চালাতে হচ্ছে। এই ১২ জন চিকিৎসকের মধ্যে সিনিয়র কনসালটেন্ট ১০টি পদের মধ্যে সিনিয়র কনসালটেন্ট (সার্জারি), সিনিয়র কনসালটেন্ট (শিশু) ও সিনিয়র কনসালটেন্ট (মেডিসিন) এই তিনজন কর্মরত রয়েছে। বাকি সাতটি পদই শূন্য। জুনিয়ার কনসালটেন্ট ১১টি পদের মধ্যে কর্মরত আছেন গাইনী, অ্যানেস্থেশিয়া ও কার্ডিওলোজি। বাকি আটটি পদ শূন্য। আবাসিক ফিজিশিয়ান, আবাসিক সার্জন ও আবাসিক মেডিকেল অফিসার এই তিনটি পদে কর্মরত থাকলেও অ্যানেসস্থেটিস্ট তিনটি পদই শূন্য রয়েছে। এছাড়াও প্যাথলোজিস্ট রেডিওলোজিস্ট এই দুইটি পদও শূন্য।

এদিকে হাসপাতালে মেডিকেল অফিসারের ১০টি পদ থাকলেও কর্মরত আছেন মাত্র তিনজন। সাতটি পদই শূন্য। সহকারী রেজিস্ট্রার ১১টি পদে কর্মরত আছেন মাত্র দুই। নয়টি পদ শূন্য। আয়ুর্বেদিক মেডিকেল অফিসার কর্মরত থাকলেন জরুরি মেডিকেল অফিসারের চারটি পদই শূন্য রয়েছে। এদিকে গত মঙ্গলবার সকালে সরেজমিন এই ২৫০ শয্যার হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, চিকিৎসা সেবা নিতে আসা রোগীদের দীর্ঘলাইন। হাসপাতালের বহির্বিভাগে উপসহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (স্যাকমো) রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছে।

সদর উপজেলার বশাকবাজার এলাকার রোকেয়া বেগম জানান, তার শিশুকন্যা সুমি (৪) বেশ কদিন ধরে জ্বরে ভুগছে। তাকে নিয়ে সে এই হাসপাতালে এসেছে। চিকিৎসকের কাছ থেকে ব্যবস্থাপত্র নেয়ার পর সে জানতে পারে তার সন্তান কোন চিকিৎসকের সেবা পায়নি, সেবা দিয়েছেন একজন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (স্যাকমো)। এরকম বরগুনা জেলার আমতলী উপজেলার মহিষডাঙ্গা গ্রামের কালাম ফকিরের একমাত্র সন্তান জিসানকে (৫) উন্নত চিকিৎসার জন্য সকালে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যার হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। টিকিট কেটে বহির্বিভাগে চিকিৎসা হয়েছে জিসানের কিন্তু পরে শিুটির বাবা জানতে পারে সন্তানের চিকিৎসা হয়েছে। স্যাকমোর হাতে। শুধু শিশু সুমি কিংবা জিসানই নয়, পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা হাসপাতালে বহির্বিভাগে সেবা নেয়ার পর জানতে পানে তারা বড় কোন চিকিৎসককে দেখাতে পারেননি। কালাম ফকির বলেন, বড় ডাক্তার দেখাবো, এর জন্য এখানে স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে এখানে আসা হয়েছে। কিন্তু কোন ডাক্তারের চিকিৎসা পাওয়া যায়নি।

চিকিৎসকের সহকারী হিসেবে কাজ করার কথা থাকলেও হাসপাতালে বহির্বিভাগে কিভাবে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন জানতে চাইলে কয়েকজন স্যাকমো জানায়, সেবা নিতে আসা রোগী জটিল মনে হলে আমরা হাসপাতালের কনস্যালটেন্ট বরাবরে রেফার করে তারা। তারা শুধু বহির্বিভাগেই নয়, প্রয়োজনে জরুরি বিভাগেও চিকিৎসা সেবা দেয়ার দায়িত্ব পালন করতে হয় তাদের। হাসপাতালের তথ্য অনুযায়ী ২০১৯ সালে এক বছরে পটুয়াখালীর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে মোট এক লাখ ৮০ হাজার ১২৮ জন রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ৪৪ হাজার ৫৬৬ জন, মহিলা ৪৬ হাজার ৬৫১ জন, শিশু ৪৪ হাজার ৯১১ জন এবং জরুরী বিভাগে ৪৪ হাজার রোগী সেবা নিয়েছে।

হাসপাতালের বহির্বিভাগে স্যাকমো চিকিৎসকের সেবা প্রদান প্রসঙ্গে হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক চিকিৎসক মোহাম্মদ আবদুল মতিন বলেন, উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার (স্যাকমো) আগে এই পদটি চিকিৎসক সহকারী হিসেবে কাজ করতো। তবে এখন অফিসিয়ালভাবে স্যাকমো হিসেবে পরিচিত। এই হাসপাতালে স্যাকমোর কোন পদ নেই। বহির্বিভাগে পাঁচজন স্যাকমো স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালকের নির্দেশে এই হাসপাতালে পদায়ন হয়েছে।