• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১২ মে ২০২১, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮ ২৯ রমজান ১৪৪২

খবর প্রকাশের পর

মরা আখিরা খনন কাজ বন্ধ করল প্রশাসন

সংবাদ :
  • প্র্রতিনিধি, পীরগঞ্জ (রংপুর)

| ঢাকা , বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০

রংপুরের পীরগঞ্জে প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে বিএডিসির (সেচ) অধীনে আখিরা মরা নদী খননে ব্যাপক অনিয়মের খবর দৈনিক সংবাদে প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসেছে রংপুরের বিএডিসি কর্তৃপক্ষ। গত সোমবার দুপুরে বিএডিসির নির্বাহী প্রকৌশলী ওই কাজ পরিদর্শনে এসে ৩টি স্থানে নদী খনন বন্ধের নির্দেশ প্রদানসহ সার্ভে টিম গঠন করে দিয়েছেন।

জানা গেছে, পীরগঞ্জের রায়পুর ইউনিয়নের বাহাদুরপুর থেকে শুরু হয়ে বড় আলমপুর, কাবিলপুর ইউনিয়ন হয়ে রামনাথপুর ইউনিয়নের ধাপেরহাটে আখিরা মরা নদী আখিরার মুল নদীতে সম্পৃক্ত হয়েছে। প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নদীটির ২০ কি.মি. খননে ১০টি গ্রুপে ১০ জন ঠিকাদার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। ১০টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওই খননের কাজ সাব ঠিকাদারের কাছে বিক্রি করে দেয়ায় সাব ঠিকাদাররা তাদের লভ্যাংশ ঠিক রাখতে অনিয়মের আশ্রয় নিয়েছে বলে এলাকাবাসী জানায়।

খনন পরিদর্শনে দেখা যায়, নদীর কোথাও বুক, কোথাও কোমর পানিতে কাজ চলছে। নদীর দু’পাড় উচু করে নদীর গভীরতা দেখানো হচ্ছিল। কাজের ব্যাপারে সাইনবোর্ডও নেই। এছাড়াও এলাকাবাসীর কাছ থেকে পাওয়া বিভিন্ন অনিয়মের খবর দৈনিক সংবাদে প্রকাশ হলে গতকাল রংপুর বিএডিসির নির্বাহী প্রকৌশলী নিজামুল ইসলাম খনন কাজ পরিদর্শনে আসেন। তিনি খবরের সত্যতা পেয়ে নদীটিতে পানি থাকায় শুধুমাত্র ৩টি গ্রুপের ৩টি স্থানে কাজ বন্ধের নির্দেশ দেন। পাশাপাশি সার্ভেয়ার সাদ্দাম হোসেনকে প্রধান করে ২ সদস্য বিশিষ্ট সার্ভে টিম গঠন করে খননকৃত কাজের পরীক্ষা করতে বলেন। পানিতে খননের ব্যাপারে রংপুর বিএডিসির (সেচ) নির্বাহী প্রকৌশলী নিজামুল ইসলাম বলেন, ডিজাইন এবং সিডিউল অনুযায়ী শতভাগ কাজ বুঝে নেয়া হবে। পানিতে খননকৃত কাজের ৫০ মিটার পর পর পরীক্ষা করতে বলেছি। সেইসঙ্গে ৩টি স্থানের পানি না শুকানো পর্যন্ত খনন কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছি।

উল্লেখ্য, নদীটির প্রায় ১৫ কি.মি. এলাকায় পানি রয়েছে।