• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ০২ আগস্ট ২০২১, ১৮ শ্রাবণ ১৪২৮ ২২ জিলহজ ১৪৪২

ব্যাংক-বীমায় বড় উত্থান শেয়ারবাজারে

সংবাদ :
  • অর্থনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , বুধবার, ০৯ জুন ২০২১

পতন দিয়ে শুরু হলেও শেষ পর্যন্ত উত্থানে শেষ হয়েছে শেয়ারবাজারের লেনদেন। গতকাল ব্যাংক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বীমার উপর ভর করে শেয়ারবাজার ভালো একটা অবস্থানে পৌঁছেছে। এদিন শেয়ারবাজারের সব সূচক বেড়েছে। একই সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর। তবে কিছুটা কমলেও দুই হাজার টাকার ঘরেই হয়েছে টাকার পরিমাণে লেনদেন। আগের দুই কার্যদিবস পতন হয়েছিল শেয়ারবাজারে।

গতকাল ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৪৭.২৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ২৩.১৫ পয়েন্টে। ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১.১১ পয়েন্ট এবং ডিএসই-৩০ সূচক ০.৮৬ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে ১ হাজার ২৯০.৫৪ পয়েন্টে এবং ২ হাজার ১৯৫.৯৮ পয়েন্টে। গতকাল ডিএসইতে টাকার পরিমাণে লেনদেন ২ হাজার ৬৫ কোটি ২৭ লাখ টাকা টাকার লেনদেন হয়েছে যা আগের দিন থেকে ১৮ কোটি ১ লাখ টাকা কম। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ২ হাজার ৮৩ কোটি ২৮ লাখ টাকার। ডিএসইতে গতকাল ৩৬৯টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ১৮১টির বা ৪৯.০৫ শতাংশের, শেয়ার দর কমেছে ১৪৫টির বা ৩৯.২৯ শতাংশের এবং ৪৩টির বা ১১.৬৫ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১১৩.৯৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৪৩১.১৮ পয়েন্টে। সিএসইতে গতকাল ৩০০টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১৪৮টির দর বেড়েছে, কমেছে ১১১টির আর ৪১টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে। সিএসইতে ৮৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসই’র ব্লক মার্কেটে ৪৭টি কোম্পানির ৩৮ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর ৬৭ লাখ ৬৯ হাজার ৩২০টি শেয়ার ৮৬ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ৩৮ কোটি ১০ লাখ ৭৩ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবয়েচে বেশি অর্থাৎ ১০ কোটি ৮১ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে গ্রামীণফোনের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১০ কোটি ৫০ হাজার টাকার বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবলের এবং তৃতীয় সর্বেচ্চ ২ কোটি ৫১ লাখ ১ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে এসকে ট্রিমসের।

এছাড়া আমান কটনের ২০ লাখ ৪৩ হাজার টাকার, অ্যাডভেন্ট ফার্মার ৬৯ লাখ ২৬ হাজার টাকার, আমান ফিডের ১৭ লাখ ৯১ হাজার টাকার, আনোয়ার গ্যালভানাইজিংয়ের ১৭ লাখ ৪০ হাজার টাকার, এপেক্স ট্যানারির ৭ লাখ ৪৪ হাজার টাকার, এশিয়া প্যাসিফিক জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের ২৪ লাখ ২৯ হাজার টাকার, বিডি ফাইন্যান্সের ৩৬ লাখ ৫০ হাজার টাকার, বেক্সিমকোর ৯ লাখ ১০ হাজার টাকার, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের ২৬ লাখ ৮০ হাজার টাকার, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সর ৫ লাখ ৭ হাজার টাকার, ডমিনেজ স্টিলের ৬ লাখ ৯০ হাজার টাকার, এমারেল্ড অয়েলের ৬ লাখ ৩০ হাজার টাকার, ফেডারেল ইন্স্যুরেন্সের ২৭ লাখ ৭৮ হাজার টাকার, ফারইস্ট নিটিংয়ের ১০ লাখ ৫৭ হাজার টাকার, ফরচুনের ১ কোটি ৬৪ লাখ ৪৮ হাজার টাকার, গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সের ৮৯ লাখ ৫৪ হাজার টাকার, গ্রিনডেল্টা মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ৯ লাখ ২ হাজার টাকার, গ্রিনডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ২ হাজার টাকার, ইসলামিক ফাইন্যান্সে ৮ লাখ ৬০ হাজার টাকার, ইসলামী ইন্স্যুরেন্সের ৬ লাখ ৪৬ হাজার টাকার, যমুনা ব্যাংকের ৬ লাখ ৭৮ হাজার টাকার, লংকাবাংলা ফাইন্যান্সের ১ কোটি ২৫ লাখ ৩৫ হাজার টাকার, লুব-রেফের ১৭ লাখ ৪২ হাজার টাকার, মোজাফফর হোসাইন স্পিনিংয়ের ১৮ লাখ টাকার, ন্যাশনাল ফিডের ৫১ লাখ ২৭ হাজার টাকার, ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্সের ১ কোটি ১৯ লাখ ৮ হাজার টাকার, ন্যাশনাল পলিমারের ৫ লাখ ৩৪ হাজার টাকার, এনআরবিসি ব্যাংকের ২ কোটি ৪৩ লাখ ৮১ হাজার টাকার, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ৮ হাজার টাকার, পিএফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ১ কোটি ১৬ লাখ টাকার, পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের ৫০ লাখ ২২ হাজার টাকার, প্রগতি ইন্স্যুরেন্সের ১০ লাখ ৭৪ হাজার টাকার, প্রাইম ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ১৮ হাজার টাকার, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ৬ হাজার টাকার, কাশেম ইন্ডাস্ট্রিজের ২৯ লাখ ২১ হাজার টাকার, আরডি ফুডের ২৫ লাখ ৬০ হাজার টাকার, আরএন স্পিনিংয়ের ৩২ লাখ ৯০ হাজার টাকার, সাইফ পাওয়ারের ৭ লাখ ৬৫ হাজার টাকার, সালভো কেমিক্যালের ১০ লাখ ৭০ হাজার টাকার, সী পার্লের ১৫ লাখ ২২ হাজার টাকার, সিলভা ফার্মার ৮ লাখ ৫৫ হাজার টাকার, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্সের ৩২ লাখ ৭ হাজার টাকার, স্ট্যান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সের ৬ লাখ ৬৭ হাজার টাকার এবং ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের ৪১ লাখ ৬৩ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে।

গতকাল ডিএসই’র লেনদেনে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ১৪৫টির বা ৩৯.২৯ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর কমেছে। এদিন এমআই সিমেন্টের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ছিল সবচেয়ে কম। গত সোমবার এমআই সিমেন্টের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ৭২.৩০ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে এর শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়ায় ৬৯.২০ টাকায়। অর্থাৎ গতকাল কোম্পানিটির শেয়ার দর ৩.১০ টাকা বা ৪.২৮ শতাংশ কমেছে। এর মাধ্যমে এমআই সিমেন্ট ডিএসইর টপটেন লুজার তালিকার শীর্ষে উঠে আসে।

ডিএসইতে টপটেন লুজার তালিকায় উঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে বিডি ওয়েল্ডিংয়ের ৩.৬১ শতাংশ, ফার্স্ট ফাইন্যান্সের ৩.০৭ শতাংশ, জিকিউ বলপেনের ২.৮০ শতাংশ, স্কয়ার টেক্সটাইলের ২.৭৯ শতাংশ, আরামিট সিমেন্টের ২.৭৪ শতাংশ, আইটি কনসালটেন্টসের ২.৭৩ শতাংশ, বিএসআরএম স্টিলের ২.৬৮ শতাংশ, ইবিএল ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ২.৬৬ শতাংশ এবং মিরাকলের শেয়ার দর ২.৬৩ শতাংশ কমেছে। গতকাল ডিএসইতে লেনদেনে অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ১৮১টির বা ৪৯.০৫ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। এদিন ইসলামিক ফাইন্যান্সের শেয়ারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ ছিল সবচেয়ে বেশি। গত সোমবার ইসলামিক ফাইন্যান্সের শেয়ারের ক্লোজিং দর ছিল ২১ টাকায়। গতকাল লেনদেন শেষে এর শেয়ারের ক্লোজিং দর দাঁড়ায় ২৩.১০ টাকায়। অর্থাৎ গতকাল কোম্পানিটির শেয়ার দর ২.১০ টাকা বা ১০ শতাংশ বেড়েছে। এর মাধ্যমে ইসলামিক ফাইন্যান্স ডিএসইর টপটেন গেইনার তালিকার শীর্ষে ওঠে আসে।

ডিএসইতে টপটেন গেইনার তালিকায় ওঠে আসা অন্য কোম্পানিগুলোর মধ্যে ন্যাশনাল হাউজিং ফাইন্যান্সের ১০ শতাংশ, জেমিনি সী ফুডের ৯.৯৯ শতাংশ, এশিয়া ইন্স্যুরেন্সের ৯.৯৮ শতাংশ, ফনিক্স ইন্স্যুরেন্সের ৯.৯৮ শতাংশ, গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের ৯.৯৮ শতাংশ, আনোয়ার গ্যালভানাইজিংয়ের ৯.৯৭ শতাংশ, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সের ৯.৯৭ শতাংশ, ন্যাশনাল ফিড মিলের ৯.৯৬ শতাংশ এবং রানার অটোমোবাইলের শেয়ার দর ৯.৯৬ শতাংশ বেড়েছে।