• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ১৭ জিলহজ ১৪৪১, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭

মুজিব শতবর্ষ

মুজিব শাসন আমল : ১৯৭২

| ঢাকা , শনিবার, ০৭ মার্চ ২০২০

image

৭ মার্চ

গোপালগঞ্জের পল্লীতে রেশন বণ্টনে অব্যবস্থা চলছে

গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর। গোপালগঞ্জ মহকুমার পূর্বাঞ্চলীয় রঘুনাথপুর ও গোপালপুর ইউনিয়নের গ্রামাঞ্চলের শতকরা ৯ জন লোক শরণার্থী। বিগত বিপর্যয়কালে তারা দেশত্যাগে বাধ্য হয়েছিল। বর্তমানে তাদের সকলেই প্রায় প্রত্যাবর্তন করেছে। দেশে ফিরে তারা তাদের কোনো দ্রব্যই ফেরৎ পায়নি অথচ সরকার যে সাহায্য দিচ্ছেন তা প্রয়োজনের তুলনায় অতি সামান্য। প্রকাশ, বাড়িঘর হারা যেসব শরণার্থীর জন্য তাঁবু দান করেছে তার বিলিবণ্টনেও নানা অব্যবস্থা দেখা যাচ্ছে। দেখা গেছে যে, যে পরিবারের বাড়িঘর মোটেই নেই তারা তাবু থেকে বঞ্চিত হয়েছে আর যাদের বাড়িঘর আছে তারাই হয়েছে তার অংশীদার। যাদের বাড়িঘর পাকিস্তান দালালেরা সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করেছে এমন কি ভিটে মাটিও কেটে নিয়েছে তাদের ভাগ্যে একটি তাঁবু জুটেনি। এছাড়া সদ্য ফিরে আসা শরণার্থীদের ৩/৪ সপ্তাহের মধ্যে রেশন দেয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ শোনা গেছে। পক্ষান্তরে যারা রেশন পাচ্ছে তার পরিমাণও অতি নগণ্য। মাথাপিছু পৌনে এক সের চাল আর আধা সের গম মাত্র। অধিকন্তু এতে স্থানীয় ও শরণার্থীরাও নাকি ভাগ বসাচ্ছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে যে, রোগে শোকে জর্জরিত শরণার্থীদের শেষ কোথায়?

আগামীকাল থেকে বাংলাদেশ বিমান সার্ভিস চালু

আগামিকাল বৃহস্পতিবার থেকে বাংলাদেশ বিমানের অভ্যন্তরীণ রুটে নিয়মিত বিমান সার্ভিস চালু হবে। বলে বাংলাদেশ বিমানের জনৈক উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। প্রথম পর্যায়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-যশোর ও ঢাকা-সিলেটের মধ্যে নিয়মিত বিমান চলাচল করবে। সময় সূচি নিম্নরূপ : ঢাকা-চট্টগ্রাম ফ্লাইটঃ ঢাকা ছাড়বে সকাল সাড়ে ৭টায়। চট্টগ্রাম ছাড়বে ৮টা ৪০ মিনিটে।

ঢাকা যশোর ফ্লাইট : ঢাকা ছাড়বে বিকেল ১টায় যশোর ছাড়বে বিকেল ২টায়। ঢাকা-সিলেট ফ্লাইটঃ ঢাকা ছাড়বে সকাল ১০টায় এবং সিলেট ছাড়বে ১১টা ৫ মিনিটে।

মুক্তিসংগ্রামের স্মারক জাদুঘরে জমা দিন- বঙ্গবন্ধু

প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মুক্তি সংগ্রামের চিহ্ন সম্বলিত প্রবন্ধাদি, দলিলপত্র অথবা অন্য যে কোনো ধরনের বস্তু ঢাকা জাতীয় মিউজিয়ামে জমা দেওয়ার জন্যে গতকাল মঙ্গলবার জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। মুজিবনগরে গঠিত বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আনুগত্য প্রকাশের পর কোলকাতায় বাংলাদেশ মিশনে আনুষ্ঠানিকভাবে উত্তোলিত বাংলাদেশের পতাকাটি ঢাকা মিউজিয়ামের কিউরেটরের কাছে হস্তান্তর করার সময় বঙ্গবন্ধু উপরোক্ত আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ ভারত চুক্তি স্বাক্ষরিত- চারটি প্রধান রেলসেতু চার মাসে মেরামত হবে

বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এ চুক্তি মোতাবেক ভারত বাংলাদেশের চারটি প্রধান রেলসেতু আগামি চার মাসের মধ্যে মেরামত সমাপ্ত করবে। যোগাযোগমন্ত্রী জনাব মনসুর আলী অপরাহ্নে ঢাকায় ভারতীয় রেলওয়ে বোর্ডের চেয়ারম্যানের সঙ্গে সাক্ষাতের পর এ তথ্য প্রকাশ করেন। চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে ভারতীয় রেলের সাত সদস্যের একটি দল মন্ত্রী মহোদয়ের সঙ্গে একঘণ্টা আলাপ করেন এবং সেতু মেরামতের পরিকল্পনাটি চূড়ান্ত করেন। এটা বাস্তবায়িত করতে মোট ১০ কোটি টাকা ব্যয় হবে এবং ভারতই এ টাকা দেবে। বর্তমান ব্যবস্থাপনা মোতাবেক ভারতের রেল কর্তৃপক্ষ হার্ডিঞ্জ ব্রিজ, ভৈরব, তিস্তা এবং পুরানো ব্রহ্মপুত্র ব্রিজ মেরামত করবে। মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বর্বর পাকিস্তানবাহিনী উপরোক্ত ব্রিজগুলোর সংঘাতিকভাবে ক্ষতিসাধন করে। জনাব মনুসর আলী বলেন যে, এ রেলসেতুগুলোর মেরামত সমাপ্ত হলে দেশের রেল যোগাযোগ প্রভূত উন্নত হবে। ভারতের রেল কর্তৃপক্ষ আগামি এক মাসের মধ্যে রাজশাহীর সঙ্গে মালদহের রেল যোগাযোগ সম্পন্ন করবেন বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তিনি আরও বলেন, ভারত আমাদেরকে ওয়াগন, ফেরি ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র আমাদের দেশের রেল যোগাযোগ উন্নত করতে সাহায্য করবে।

অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি- চালের বাজারদর বেড়ে যাচ্ছে

ময়মনসিংহ। গত এক সপ্তাহে ময়মনসিংহে চালের দাম যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে বাজারে চালের প্রচুর আমদানি থাকা সত্ত্বেও চাল বর্তমানে প্রতি মণ ৫৪ থেকে ৬০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। ফলে স্থানীয় জনসাধারণ দারুণ অবস্থার সম্মুখীন হচ্ছেন। শোনা যায়, বহু অসৎ ব্যবসায়ী অধিক মুনাফার লোভে চাল গুদামজাত করছে। স্থানীয় রেশন দোকান থেকে সরকারি কর্মচারী ছাড়া অন্যান্য লোককে নিয়ন্ত্রিত মূল্যে চাল বা গম দেয়া হচ্ছে না বলেও অভিযোগ শোনা গেছে। রেশনের দোকান থেকে নিয়ন্ত্রিত মূল্যে নিয়মিতভাবে চাল দেয়া হলে খোলাবাজারে চালের দাম কমে যেত বলে জনসাধারণ মনে করে। টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার থেকে আজাদের সংবাদদাতা জানিয়েছেন যে, সেখানে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির দাম দিন দিন বেড়ে চলছে। বিধ্বস্ত বাংলার জনসাধারণ ও অগ্নিমূল্যে দ্রব্যাদি ক্রয় করতে পারছেন না। এর পেছনে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীগণ জড়িয়ে আছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

লক্ষ লক্ষ টাকার ধাতব দ্রব্য পাচার হয়ে যাচ্ছে

সিরাজগঞ্জ। চোরাকারবারীদের সক্রিয় দুস্কার্যের ফলে প্রতিদিন বাংলাদেশ থেকে বিপুল পরিমাণ সোনা রূপা, তামা কাসাসহ বহুবিধ মূল্যবান ধাতব জিনিসপত্র বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া সীমান্ত বর্তী জেলাসমূহ থেকেও প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণ খাদ্যশস্য, মাছ, ডিম, ঘি এবং বিদেশ থেকে আমদানিকৃত প্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী অবৈধ পথে অন্য দেশে চলে যাচ্ছে। খবরে জানা গেছে যে, বর্তমানে সীমান্ত অঞ্চলে কালোবাজারে বাংলাদেশের টাকার মান শতকরা দশ থেকে পনের টাকা কমে গেছে। এতে বাংলাদেশের চোরাকারবারীরা নগদ টাকা দিয়ে অন্যদেশের জিনিসপত্র কিনে নিয়ে এসে লাভবান হচ্ছে না। তাই তারা আমাদের দেশে দাম কম অথচ দেশে দাম বেশি এমন সব জিনিসের দিকে ঝুঁকে পড়েছে। উদাহরণস্বরূপ বলা যেতে পারে যে, অন্য দেশে তামা কাসার দাম বিশ টাকা সের হলেও আমাদের দেশে তার দাম বারো তেরো টাকার বেশি নয়। বাংলাদেশের উৎকৃষ্ট মানের খাদ্যশস্য, মাছ, ডিম ও ঘিয়ের বেলায়ও একই কথা খাটে। ফলে এসব ভাগ্যবান চোরাকারবারীরা একঢিলে দুই পাখি মেরে দ্বিগুণ টাকা রোজগার করছে। অন্যদিকে বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময়ে বাংলাদেশের জন্য যেসব জিনিস ও কাপড়চোপড় কিনে আনা হয়েছিল কাগুজে টাকার বিনিময়ে তাও চলে যাচ্ছে অন্যত্র। একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তি অন্য একটি দেশ ঘুরে এসে আজাদ প্রতিনিধির কাছে বলেন যে, বিদেশি বাজারে বাংলাদেশের এসব দ্রব্য প্রচুর বিক্রি হচ্ছে। তার মতে অবিলম্বে চোরাচালান বন্ধ করতে না পারলে আমাদের অর্থনীতি দারুণভাবে বিপর্যস্ত হবে। তিনি আরও জানিয়েছেন যে, বিদেশ থেকে চোরাকারবারীরা প্রধানত প্রসাধনী দ্রব্য, কিছু বিড়িপাতা, নিম্নমানের কাপড়চোপড় প্রভৃতি নিয়ে আসছে। যার মধ্যে একমাত্র বিড়িপাতা ছাড়া আর কিছুই আমাদের অর্থনৈতিক প্রগতির সহায়ক হচ্ছে না। বরং আমাদের উৎপাদনকে ব্যাহত করছে।

শহীদ মিনার ভেঙে ফেলেছে- দুষ্কৃতকারীদের খুঁজে

বের করতে হবে

কুমিল্লা। সম্প্রতি কে বা কাহারা শহরতলীর চাঁদপুর গ্রামের নবনির্মিত শহীদমিনারটি ভেঙে ফেলেছে। ফলে স্থানীয় রাজনৈতিক মহল, ছাত্র সমাজ ও গ্রামবাসীরা ক্ষোভে ফেটে পড়ে এবং ভাঙা শহীদমিনারের পাদদেশে এক প্রতিবাদ সভা হয়। সভায় বিভিন্ন বক্তা রাতের অন্ধকারে শহীদমিন ভাঙার ঘৃণ্য কাজের তীব্র নিন্দা করেন ও দোষী ব্যক্তিদের খোঁজ করে বের করার জন্য জনসাধারণকে বিশেষভাবে অনুরোধ করেন। বক্তাগণ এ ব্যাপারে অবিলম্বে সরকারি তদন্তের দাবি জানান। সভায় সভাপতিত্ব করেন শহর উত্তরাঞ্চল ন্যাপ শাখার সভাপতি জনাব আবু তালেব।

সূত্র : দিনলিপি, বঙ্গবন্ধুর শাসন সময়, ১৯৭২