• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮ মহররম ১৪৪২, ০৯ আশ্বিন ১৪২৭

কেমন আছেন দেশের আইজউদ্দিনেরা

মীর আবদুল আলীম

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০

পাঠক যারা ঢাকায় থাকেন তাদের অধিকাংশই আইজ উদ্দিনকে চেনেন। দেড় দশক আগে কেবল দেয়াল লিখনের মাধ্যমে আইজ উদ্দিন ঢাকাবাসীর কাছে অল্পসময়ে বেশ পরিচিত হয়ে উঠেছিলেন। বোধকরি চেহারায় আইজ উদ্দিনকে কেউ চেনে না। বছর ১৭-১৮ আগে ঢাকার বিভিন্ন দেয়ালে লেখা থাকতো ‘কষ্টে আছে আইজ উদ্দিন’। আনাড়ি হাতে ঢাকার অনেক দেয়ালজুড়েই লেখা থাকত তা। এসব লেখা মুছে গেছে এরই মধ্যে। আইজ উদ্দিন বেঁচে আছেন কিনা তা জানি না। তবে ধারণা করি, বড্ড কষ্টে থাকা আইজ উদ্দিন বেঁচে থাকলে হয়তো তিনি তার ওই কর্ম এখনও চালিয়ে যেতেন। আইজ উদ্দিন বেঁচে থাক আর নাই থাক এরই মধ্যে গোটা দেশে হাজারো আইজ উদ্দিনের জন্ম হয়েছে এ কথা নিশ্চিত বলা যায়। যারা চাকরি করেন তারা গ্যাস, বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি, বাসাভাড়া, পরিবহন ভাড়া বৃদ্ধি, সন্তানের শিক্ষা ব্যয় বৃদ্ধিসহ নিত্যপণ্যের আকাশছোঁয়া উচ্চমূল্যের নিষ্পেষণে অনেকেই আজ আইজ উদ্দিন বনে গেছেন। যারা ব্যবসা-বাণিজ্য করেন তাদের অনেকেরই ব্যবসা এখন আগের গতি নেই। উৎপাদন, বেচাকেনা কমে গেছে। ব্যবসা বাণিজ্যে স্থবিরতা, গার্মেন্টস, শিল্পকারখানা একে একে বন্ধ হয়ে যাওয়া, আমজনতার নিত্য টানাপোড়েন, সড়ক মৃত্যু, ধর্ষণ, গুম, খুনসহ নানা কারণে দেশের মানুষ সুখে নেই; শান্তিতে নেই।

ব্যবসা বাণিজ্যও ভালো নেই। দেশের স্পিনিং মিলগুলোতে সুতার পাহাড় জমে গেছে, অন্যদিকে অর্থাভাবে টেক্সটাইল মিলগুলোতে পূর্ণ উৎপাদন নেই, চিনি কলের চিনি বিক্রি হচ্ছে না, গার্মেন্টস, ডায়িংসহ অন্যন্য শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। সকল ব্যবসাতেই কোন না কোনভাবে ধস নেমেছে। তবে এটাও সত্য গত ৪ দশকে দেশের অর্থনীতি অনেক এগিয়ে গেছে। খাদ্য উৎপাদন ও মানুষের আয় বেড়েছে, শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যসেবার প্রসারও ঘটেছে। কিন্তু কোনটাই হয়নি পরিকল্পিতভাবে। তদারকি ও জবাবদিহিতার অভাবে সেবার মান কমে যাওয়ায় নানা খাতে ব্যয় বেড়ে গেছে বহুগুণ। ফলে ব্যয় বাড়লেও আয় কমে যাচ্ছে সবার।

দেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা কেটে গেলেও বিনিয়োগ পরিস্থিতির তেমন কোনো উন্নতি হয়নি। বরং আগে রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে দেশের অর্থনীতির যেসব নেতিবাচক প্রবণতা প্রকাশ পাচ্ছিল যেমন- রাষ্ট্রীয় ও ব্যক্তি বিনিয়োগ হ্রাস পাওয়া, রেমিটেন্সের প্রবাহে ভাটা- এ পরিস্থিতি এখনও অব্যাহত রয়েছে। বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ বাড়ছে। অলস টাকার পরিমাণ বেড়েছে। এটি দেশে বিনিয়োগ পরিস্থিতির স্থবিরতাই নির্দেশ করে। উদ্যোক্তারা নানা কারণে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করার ঝুঁকি নিতে চাইছেন না। তাই সব কিছুতেই এখন মন্দাভাব। সবচেয়ে বেশি কষ্টে আছে শহরে বসবাসকারী নিম্ন ও মধ্য আয়ের কর্মজীবী মানুষ।

একটু বেশি রোজগার আর সন্তানদের ভালো শিক্ষার আশায় মুখ গুঁজে ঢাকা মহানগরীসহ অন্যন্য শহরে পড়ে থাকতে হচ্ছে চাকরিজীবী আইজ উদ্দিনদের। গত ৫ বছরে জাতীয় পর্যায়ে পারিবারিক আয় বেড়েছে ৫৯ শতাংশ, আর খরচ বেড়েছে ৮৪.৫ শতাংশ। পারিবারিক ভোগ-ব্যয়ের অর্ধেকেরও বেশি প্রায় ৫৫ শতাংশ জুড়ে রয়েছে খাদ্য। সবচেয়ে কম আয়ের পরিবারে খাদ্যের পেছনে খরচ হয় ৭২ শতাংশ, সবচেয়ে বেশি আয়ের পরিবারে খাদ্যবহির্ভূত খাতে খরচ ৫৯ শতাংশ। যেসব পরিবারের আয় মাঝামাঝি পর্যায়ে, খাদ্যের পেছনে মোট সংসার খরচের ৬১ থেকে ৬৫ শতাংশ ব্যয় হয় তাদের। সবচেয়ে বেশি দরিদ্র পরিবারের সঙ্গে সমাজের উঁচু স্তররের মানুষের আয়ের বৈষম্য বেড়েছে। তবে পাঁচ বছরে দরিদ্র পরিবারের আয় খানিকটা বাড়লেও ধনীদের আয় কমেছে বলে জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে। ব্যবসায়ীরা নানা ফন্দি ফিকিরসহ ডলারের দাম বাড়ার অজুহাতে পণ্যমূল্য বাড়িয়ে তার মুনাফা ঠিক রাখতে পারেন। রিকশাওয়ালারা চালের দাম বাড়ার অজুহাত দেখিয়ে ভাড়া বাড়িয়ে নিতে পারেন। কিন্তু চাকরিজীবী আইজউদ্দিনরা তাদের বেতন চাইলেই বাড়াতে পারেন না। একটি পদের পেছনে যেখানে হাজার হাজার আবেদনপত্র পড়ে, সেখানে এক চাকরি ছেড়ে অন্য চাকরিতে ঢোকার সুযোগও নেই। ফলে একটু ভালো করে বাঁচার আশাটি আর তাদের পূরণ হচ্ছে না। ঢাকা মহানগরীতে সীমিত আয়ের মানুষের বসবাসের অর্থ দাঁড়িয়েছে ‘শুধু বেঁচে থাকার জন্য বেঁচে থাকা।’ এসব মানুষের এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা আবাসন। এক সময় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসনের নিশ্চয়তা ছিল। এখন তাঁদের অর্ধেকেরও সেই সুযোগ নেই। বেসরকারি খাতের ব্যাপক প্রসারের সঙ্গে ঢাকায় যে বিপুলসংখ্যক মানুষের জীবিকার ব্যবস্থা হয়েছে, নিয়োগকারীদের পক্ষ থেকে তাদের জন্যও আবাসনের কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি। ফলে শ্রমিক-কর্মচারী থেকে শুরু করে পদস্থ কর্মকর্তা পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি নির্বিশেষে সর্বস্তরের চাকুরের নিজের থাকার ব্যবস্থা নিজেরই করতে হয়। উচ্চ আয়ের মানুষজন যেখানে প্লট ও ফ্ল্যাট কেনার চেষ্টা করছে, মধ্য ও নিম্ন আয়ের মানুষজন তেমনি সাধ্যের মধ্যে ভাড়া বাসা খুঁজছে। চাহিদা বাড়ার কারণে বল্গাহীনভাবে বেড়ে চলেছে বাসা ভাড়া, জমি ও ফ্ল্যাটের দাম। আবাসনের তীব্র সংকটের কারণে মানুষের আয়ের অর্ধেকই চলে যাচ্ছে বাড়ি ভাড়া, জমি বা ফ্ল্যাটের কিস্তি পরিশোধ বা এ বাবদ নেয়া উচ্চ সুদে ব্যাংকের ঋণ পরিশোধে। আবাসন সুবিধা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চাকরির শর্তের মধ্যেই রয়েছে। তবে অপ্রতুল জোগানের কারণে সবাই এ সুযোগ পান না। ব্রিটিশ আমলে নতুন একটি থানা তৈরির সঙ্গে সঙ্গে পুলিশদের থাকার ব্যবস্থা করা হতো। থানার লাগোয়া কোয়ার্টার থাকত। আগে ঢাকা শহরে থানা ছিল ৯টি, এখন ৪৭। কিন্তু পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের থাকার ব্যবস্থা নেই। ঢাকায় সব শ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ফ্ল্যাট রয়েছে ১২ হাজার ৪৫০টি, যা চাহিদার মাত্র ৭ শতাংশ। ৯৭ ভাগ কর্মকর্তা-কর্মচারীকেই নিজেদের উদ্যোগে থাকার ব্যবস্থা করতে হয়। তাদের বেতনের সঙ্গে বাড়িভাড়া যা দেয়া হয় সে টাকায় ঢাকায় বাসা ভাড়া পাওয়া যায় না।

বর্তমান সরকারের সময় জ্বালানি তেলের দাম লিটারে বেড়েছে ১৭ টাকা, তরলায়িত প্রাকৃতিক গ্যাসের (সিএনজি) দাম বেড়ে ইউনিটপ্রতি ১৬ টাকা থেকে ৩০ টাকা হয়েছে। ৬/৭ দফা বেড়েছে বিদ্যুতের দাম। এক বছরেই ডলারের দাম বেড়েছে প্রায় ২০ শতাংশ। ক্যাবের মতে গত দুই বছরে পারিবারিক বিদ্যুতের দাম বেড়েছে প্রায় ২৩ শতাংশ। বাস ভাড়া বেড়েছে ৩৫ শতাংশ। এর বিপরীতে সিএনজিচালিত অটোরিকশা ভাড়া নিয়ন্ত্রণে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে সরকার। বাসের সর্বনিম্ন ভাড়া কার্যকর করা যায়নি কখনো। দ্রব্যমূল্য সীমিত রাখার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিগুলো এখনো পূরণ করতে পারেনি সরকার। দরিদ্র মানুষের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি সম্প্রসারিত হয়েছে, কম দামের সরকারি চাল ও আটা কিনতে পারছেন নিম্নআয়ের মানুষ। সরকারি চাকরিজীবীদের অনেকে রেশন পাচ্ছেন। কিন্তু কোনো রকম সুবিধাহীন ঢাকার মধ্য আয়ের মানুষের কষ্ট শুধুই বেড়েছে। গ্রামে ফিরে যাওয়ার কোনো উপায় না থাকায় যানজট, পানিহীনতা, জলাবদ্ধতা, গ্যাস সংকট, লোডশেডিং, ভেজাল খাবারসহ নানা কষ্টের মধ্যেও ঢাকায় পড়ে আছেন তারা। প্রথম শ্রেণীর সরকারি গেজেটেড কর্মকর্তার চাকরি যে বেকারদের কাছে ব্যাপক আকর্ষণীয় তা পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারীদের সংখ্যা দেখলেই বোঝা যায়। কিন্তু বেতনটা মোটেও আকর্ষণীয় নয়। কারণ বর্তমান বাজারে মাস শেষে বেতনের ১৬ হাজার টাকায় অন্তত ঢাকায় সংসার চালানো সম্ভব নয়। তার ওপর বছর শেষে যেখানে বার্ষিক বেতন বৃদ্ধি হয় মাত্র সাড়ে সাতশ’ টাকার মতো। শতকরা হিসাব করলে দেখা যায়, বছর শেষে প্রথম শ্রেণীর সরকারি কর্মকর্তাদের বেতন পাঁচ শতাংশেরও কম বাড়ে। কিন্তু কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) হিসাবে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়েছে ১১ দশমিক ৯৬ শতাংশ।

ভালো বেতন দেয়ার ক্ষেত্রে দেশের বেসরকারি ব্যাংকগুলোর সুনাম আছে। এমনই একটি ব্যাংকের কর্মকর্তা মো. তানসেন জানান, বছর শেষে তাদের মূল বেতন ১০ শতাংশ বাড়ানো হয়। এর সঙ্গে অন্যান্য ভাতা যুক্ত হয়। ফলে মোট বেতনও প্রায় ১০ শতাংশ বাড়ে। বেসরকারি খাতেও যে হারে বেতন বাড়ে তা জীবনযাত্রার ব্যয়ের চেয়ে কম। পরিবারপ্রতি গড় মাসিক খরচ ২০০৫ সালের তুলনায় বেড়েছে ৮৪.৫ শতাংশ। ৫ বছর আগে মাসিক আয় পাঁচ হাজার ৯৬৪ টাকা হলে একটি পরিবারের চলে যেত। এখন সেখানে লাগছে ১১ হাজার ৩ টাকা। শহরে একটি পরিবারের গড় মাসিক আয় ১৬ হাজার ৪৭৫ টাকা, আর ব্যয় ১৫ হাজার ২৭৬ টাকা। সবচেয়ে বেশি চাপের মধ্যে রয়েছেন মধ্য আয়ের শহুরে মানুষ, যাদের পারিবারিক বাজেটের বড় অংশ চলে যাচ্ছে বাড়িভাড়া, পরিবহন, শিক্ষা, চিকিৎসার পেছনে। সংবিধানে নাগরিকদের যে পাঁচটি মৌলিক অধিকার সরকারের নিশ্চিত করার কথা তার মধ্যে এ চারটিও রয়েছে। অথচ এ খাতগুলোর কোনোটিতে সরকারের অংশগ্রহণ নেই বললেই চলে। কোনোটি থেকে সরকার হাত গুটিয়ে নিচ্ছে, কোনোটিতে অংশগ্রহণ থাকলেও তদারকি নেই।

নিম্নআয়ের মানুষ, যারা রিকশা বা অটোরিকশা চালান, তারা তাদের মতো করে আয় বাড়িয়ে নিচ্ছেন। আয় কমলেও উচ্চ আয়ের মানুষদের সমস্যা হচ্ছে কম। বেশি বিপদে রয়েছেন শুধু সনাতনী মধ্যবিত্ত শ্রেণীর মানুষ, যাদের জীবনবোধ ভিন্ন। তাদের মাসিক আয়ের ৬০ ভাগ চলে যায় বাড়িভাড়া, আর ২০ ভাগ খাবারে। দুই বাচ্চার পড়াশোনা আর স্কুলে যাতায়াতে খরচ হয় আয়ের ১০-১৫ ভাগ। তারপর রয়েছে চিকিৎসা। খাদ্যদ্রব্যের দাম বাড়লে হৈচৈ বেশি হয়। কিন্তু সবচেয়ে বেশি চাপ পড়ে বাড়িভাড়া বৃদ্ধির কারণে। সরকারের উচিত কঠোর আইন করে বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণ করা। আইন থাকলেও কখনো এর প্রয়োগ হয়নি। ঢাকায় বসবাসকারীর সংখ্যা এক কোটি হলে তাদের জন্য কমপক্ষে ২০ লাখ ফ্ল্যাটের দরকার। কিন্তু গত ২০ বছরে বেসরকারি আবাসন ব্যবসায়ীদের পক্ষে দুই থেকে তিন লাখের বেশি ফ্ল্যাট নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি। এ সময়ে ঢাকায় বসবাসকারীর সংখ্যা যে হারে বাড়ছে, আবাসন ব্যবস্থা তার সিকিভাগও বাড়েনি। সরকার ২২ হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণের যে উদ্যোগ নিয়েছে তা আবাসন সমস্যা সমাধানে তা কোনো ভূমিকাই রাখতে পারবে না। প্রবালের মতে, এখন ঢাকা শহরে প্রতিবছর এক লাখ থেকে দেড় লাখ ফ্ল্যাটের চাহিদা বাড়ছে। তার বিপরীতে বেসরকারি খাতে জোগান দেয়া সম্ভব হচ্ছে ২২ থেকে ২৩ হাজার ফ্ল্যাট। ঢাকা শহরে ফ্ল্যাটের দাম ৮৫ ভাগ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে।

মানুষের একদিকে বাসস্থান সমস্যা প্রকট, অন্যদিকে পারিবারিক ব্যয় বহুগুণে বেড়ে যাওয়ায় মহাসংকটে পড়েছে। সন্ত্রাসী কর্মকা- গড়ে কমলেও বেড়েছে ধর্ষণ, হত্যা, সড়ক দুর্ঘটনা। জনগণের কথা মাথায় রেখে যে কোন মূল্যে দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে হবে। এছাড়া পণ্যমূল্যসহ অন্যান্য ব্যয় যাতে কমে সেদিকে সরকারের নজরদারির বিকল্প নেই। সরকারের কার্যকর পদক্ষেপই পারে এক্ষেত্রে সফলতা এনে দিতে। সন্ত্রাস দমনের পাশাপাশি কঠিনভাবে বাজার তদারকি, বাড়িভাড়া নিয়ন্ত্রণসহ সব ক্ষেত্রে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোকে সদাই সজাগ থাকতে হবে।

[লেখক : সাংবাদিক, কলামিস্ট ও গবেষক]

  • কি বিচিত্র সেলুকাস

    এমআর খায়রুল উমাম

    ‘সত্যি সেলুকাস, কি বিচিত্র এই দেশ’। অনেক পুরনো দিনের কথা হলেও বাংলাদেশে

  • মুজিব শতবর্ষ

    মুজিব শাসন আমল : ১৯৭২

    ৮ ফেব্রুয়ারি ২৫ মার্চের মধ্যে ভারতের সৈন্য প্রত্যাহৃত হবে কোলকাতা। ভারতীয় সশস্ত্রবাহিনী আগামী ২৫

  • গণমাধ্যমে বঙ্গবন্ধু

    আওয়ামী লীগের অন্তর্বিরোধ জনাব সোহরাওয়ার্দী কর্তৃক মীমাংসার চেষ্টা আজাদের করাচি অফিস থেকে ২১ মার্চ। পূর্ব