• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বৃহস্পতিবার, ০১ অক্টোবর ২০২০, ১৩ সফর ১৪৪২, ১৬ আশ্বিন ১৪২৭

রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালান

| ঢাকা , রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯

রাজধানীর ড্রেনগুলো আবর্জনায় পূর্ণ হয়ে গেছে। দুই সিটি করপোরেশনের অধীনে থাকা ২ হাজার ৮শ’ কিলোমিটার ড্রেন নিয়মিত পরিষ্কার করা হয় না। মাঝে মাঝে ড্রেন পরিষ্কার করে আবর্জনা ফেলে রাখা হয় রাস্তার ওপর। সেই আবর্জনা আবার ড্রেনেই পড়ে। বক্স কালভার্ট ও স্টর্ম স্যুয়ারেজগুলো পানি নিষ্কাশনের জন্য উত্তম অবস্থায় নেই। যে কারণে অল্প বৃষ্টিতেই রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতা দেখা দিচ্ছে। ভারি বৃষ্টি হলে জলাবদ্ধতা আরও প্রকট আকার ধারণ করতে পারে। এ নিয়ে গত শনিবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

জলাবদ্ধতা এখন জাতীয় সমস্যায় পরিণত হয়েছে। রাজধানী ঢাকা বা বন্দরনগরী চট্টগ্রামের মধ্যে এই সমস্যা সীমাবদ্ধ নেই। রাজধানীতে জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্ব আসলে কার- সেটা নিয়ে বহুদিন ধরেই প্রশ্ন রয়েছে। সিটি করপোরেশনের পাশাপাশি ওয়াসাও জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করে। মূলত ড্রেন পরিষ্কারের মধ্যেই সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব সীমাবদ্ধ বলে অবস্থাদৃষ্টে মনে হয়। স্যুয়ারেজ লাইনগুলো পরিষ্কারের দায়িত্ব ওয়াসার। আবার রাজধানীর বৃষ্টির পানি অপসারণের দায়িত্ব পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো)। এসব সংস্থার কাজে কোন সমন্বয় নেই। জলাবদ্ধতা নিরসনের কাজ একক কর্তৃপক্ষকে দেয়ার কথা বলছেন বিশেষজ্ঞরা। বিশেষজ্ঞদের মতে পাউবোকেই এই দায়িত্ব দেয়া উচিত।

আমরা মনে করি একটি একক কর্র্তৃপক্ষকে রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্ব দেয়া হলে অবস্থার উন্নতি হতে পারে। একাধিক কর্তৃপক্ষ দায়িত্বে থাকায় কেউই জলাবদ্ধতা নিরসনের দায় নিত চায় না। এক কর্তৃপক্ষ আরেক কর্তৃপক্ষের কাঁধে দায় চাপায়। যে কারণে জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষ্যে নেয়া কোন প্রকল্পেই সুফল মিলছে না। সরকার বলেছিল, এ বছর রাজধানীবাসী জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি পাবে। সরকারের সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে বিভিন্ন প্রকল্প নেয়া হলেও নালাগুলোই এখনও আবর্জনামুক্ত করা যায়নি। এই অবস্থায় এ বছরও রাজধানীবাসীকে হয়তো জলাবদ্ধতার কবলে পড়তে হবে।

সরকার দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে নেয়ার কৃতিত্ব দাবি করে। অথচ রাজধানীকে এখনও বাসযোগ্য করা যায়নি। জলাবদ্ধতা, যানজট, ডেঙ্গু প্রভৃতির মতো সমস্যায় রাজধানীবাসীকে এখনও নাকাল হতে হচ্ছে। কেবল স্লোগানেই উন্নয়ন ঘটালে হবে না। রাজধানীকে বাসযোগ্য করতে হবে। এ জন্য জলাবদ্ধতার মতো সমস্যা থেকে নাগরিকদের মুক্তি দিতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাতে হবে।