• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ৩১ মার্চ ২০২০, ১৭ চৈত্র ১৪২৬, ৫ শাবান ১৪৪১

নদী দখলদারদের তালিকা অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নিন

| ঢাকা , সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯

দেশের ৬০ জেলার ৪৫ হাজারেরও বেশি নদী দখলদারের তালিকা তৈরি হয়েছে। এখনও ৪টি জেলার তালিকা পাওয়া যায়নি। বাকি জেলাগুলোর তালিকা পেলে নদী দখলদারদের সংখ্যাটা আরও বাড়বে। জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সূত্রে জানা গেছে এ তথ্য। গত ফেব্রুয়ারি মাসে কমিশন নদী দখলদারদের তালিকা করার জন্য ডিসিদের আনুষ্ঠানিকভাবে অনুরোধ করে। তারই পরিপ্রেক্ষিতে ৬০ জেলার ডিসি এ তালিকা প্রস্তুত করে কমিশনের কাছে জমা দিয়েছে।

সরকারি হিসাবে নদী দখলদারদের যে চিত্র প্রকাশ পেয়েছে তা এক কথায় ভয়াবহ। অনেকে আশঙ্কা করছেন, সরকারি হিসাবের ফাঁকফোকর গলিয়ে অনেক দখলদারই হয়তো তালিকায় স্থান পায়নি। দেশে নদী দখলের এক মহোৎসব চলছে। যে যেভাবে পারছে নদীনালা দখল করে নিজের আখের গোছাচ্ছে। দখলের জায়গায় ঝুপড়ি ঘর থেকে শুরু করে বড় বড় শিল্প কারখানা গড়ে উঠছে। প্রশ্ন হচ্ছে, দেশের সব নদী-নালা দখল হয়ে গেল কী করে। দখলের ঘটনা তো একদিনে ঘটেনি। দশকের পর দশক ধরে নদী-নালা দখল হয়েছে। সংশ্লিষ্ট একটি কর্তৃপক্ষও দখলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় না। কোন কোন ক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে দখলদারদের অন্যায় মদদ দেয়ায় অভিযোগ পাওয়া যায়। আদালতের নির্দেশে রাজধানী বা অন্য কোথাও লোক দেখানো উচ্ছেদ অভিযান চলে। উচ্ছেদের পর আবারও নদী-নালা দখল হয়ে যায়। নদী-নালা দখলমুক্ত রাখার জন্য মনিটরিং বা প্রয়োজনীয় কাজ করা হয় না। এ ব্যাপারে আদালত বা প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা উপেক্ষা করা হচ্ছে।

নদী দখলদারদের তালিকা করা একটি ভালো খবর। আমরা চাইব, তালিকা ধরে সব দখলদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। নদী রক্ষায় সংশ্লিষ্ট সব কর্তৃপক্ষকে একযোগে কাজ করতে হবে। উদ্ধার হওয়া নদী-নালা যেন পুনরায় দখল হয়ে না যায়, সেটা নিশ্চিত করা জরুরি। দখলদারদের বিরুদ্ধে সরকারকে আইনি পদক্ষেপ নিতে হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হয় না বলে হাজার হাজার মানুষ দখলদারে পরিণত হয়েছে। নদী রক্ষায় ক্রাশ প্রোগ্রাম গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে।