• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২

করোনা আক্রান্ত নন এমন রোগীরা চিকিৎসাবঞ্চিত হচ্ছে, মারা যাচ্ছে

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৪ মে ২০২০

চিকিৎসা পাচ্ছেন না দেশের করোনাভাইরাস ভিন্ন অন্য রোগে আক্রান্তরা। করোনার কোন ধরনের উপসর্গ থাক আর না থাক নেগেটিভ রিপোর্ট ছাড়া রোগী দেখছেন না হাসপাতালের চিকিৎসকরা। অন্যদিকে পজেটিভ রিপোর্ট ছাড়া করোনার জন্য নির্ধারিত হাসপাতালগুলো ভর্তি করছে না। ফলে করোনা পরীক্ষা করানোর আগেই হাসপাতালে ঘুরতে ঘুরতে মারা যাচ্ছেন অনেক রোগী। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

করোনাভাইরাস গোটা জনগোষ্ঠীর ওপর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। যারা কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হচ্ছে তারাই শুধু ভোগান্তিতে পড়ছে না যারা আক্রান্ত নয় তারাও ভোগান্তিতে পড়ছে। আমরা আরও আগে থেকে দেখছি যে, যারা করোনা রোগী না তারা হাসপাতালে ঠিকমতো চিকিৎসা পাচ্ছে না।

এখানে এক ধরনের আস্থার সংকট দেখা যাচ্ছে। প্রথমতো নিশ্চিত হতে পারছে না সাধারণ রোগী যে চিকিৎসা নিতে আসছে সে করোনায় আক্রান্ত কিনা। এই সংকট দিন দিন বাড়বে। আর এই অনিশ্চয়তা থাকত না যদি ব্যাপক টেস্টের ব্যবস্থা থাকত।

আরেকটি বিষয় হলো, করোনা থাকার পরও তথ্য গোপন করে অনেক রোগী চিকিৎসা নিতে গিয়ে চিকিৎসকদেরও আক্রান্ত করেছে। এতে চিকিৎসকদের মধ্যেও দ্বিধা ও ভীতি কাজ করছে। আর হাসপাতালগুলো যে রোগীর স্বজনদের কাছে করোনামুক্ত সনদ বা করোনা নেগেটিভ সনদ চাইছে সরকার কি এই বিধি আরোপ করেছে। যদি না করে থাকে তাহলে হাসপাতালগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না কেন? এ ধরনের নীতি যদি সরকার না নিয়ে থাকে তাহলে হাসপাতালগুলো তো সেটা চাইতে পারে না। বাস্তবে করোনাভাইরাস আক্রান্ত কিনা এই পরীক্ষা করানো ততটাই কঠিন যতটা সংশ্লিষ্ট রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করানো। প্রশ্ন হচ্ছে একজন ক্রিটিক্যাল রোগী সার্টিফিকেট পাবে কোথায়? এটাও তো বাস্তবসম্মত চিন্তা নয়- যে করোনার রোগী নেগেটিভ না পজিটিভ। সেটা আগে নির্ধারণ করে তবে রোগীকে ভর্তি করা হবে। এটা খুবই দুঃখজনক যে হাসপাতাল ঘুরে ঘুরে রোগীরা চিকিৎসা পাচ্ছে না এবং মৃত্যুবরণ করছে। আমরা চাই সব রোগীকে চিকিৎসা দিতে হবে। হাসপাতালে রোগীর চিকিৎসা করাতে হলে বাধ্যতামূলক করোনা নেগেটিভ সনদের ব্যাপারে সরকারের কি সুস্পষ্ট নীতি রয়েছে? করোনা ভিন্ন অন্য রোগাক্রান্তদের চিকিৎসার ব্যাপারে কি কোন মনিটরিং রয়েছে? এর ফলে হয়তো দেখা যাবে করোনা নেই এমন রোগীই বেশি মারা যাবে।

আমরা মনে করি, এর একটা সুরাহা হওয়া দরকার। সেবা কাজে নিয়োজিত থেকে চিকিৎসকরা দায়িত্ব পালনে অস্বীকৃতি জানাবে এবং হাসপাতালগুলো রোগী ভর্তি নেবে না এবং সনদ চাইবে, তা হতে পারে না। এই দুঃসময়ে সবচেয়ে জরুরি হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা। যেসব হাসপাতাল চিকিৎসা দিচ্ছে না তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা যেমন নিতে হবে তেমনি যেসব হাসপাতাল করোনা চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত নয় সেই সব হাসপাতালে রোগী ভর্তি করাতে গড়িমসি করছে, সনদ চাইছে তাদের বিরুদ্ধেও সরকারকে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।