• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭ ২৩ রজব ১৪৪২

৩২ দিন পর আইভী অফিসে

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

নারায়ণগঞ্জ সিটি কপোরেশনের মেয়র ডা সেলিনা হায়াৎ আইভী সিঙ্গাপুর থেকে উন্নত চিকিৎসা শেষে সিটি করপোরেশন কার্যালয়ে অফিস শুরু করেছেন। গতকাল সকাল থেকে তিনি অফিস করেন। দীর্ঘ ৩২ দিন চিকিৎসা ও বিশ্রাম শেষে নিজ কার্যালয়ে কাজ শুরু করেন। যদিও অসুস্থ অবস্থায় বাসায় বিশ্রামে থাকার সময় সিটি করপোরেশনের বেশ কিছু জরুরি ও গুরুত্বপূর্ণ ফাইলে সই করেন মেয়র। তবে তিনি জানান, তিনি আাগের থেকে অনেক সুস্থ আছেন। ব্লাডপ্রেসার কিছুটা আপডাউন করছে। সকাল ১১টায় ব্লাডপ্রেসার কিছুটা বাড়তি থাকলেও দুপুরে প্রেসার স্বাভাবিক ছিলো। তিনি জানান, ঘাড়ের বাম দিক থেকে বাম হাতে কিছুটা ব্যথা অনুভব করছেন। আইভী বলেন, ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়মিত ওষুধ সেবন করছেন। তার শরীরে ভিটামিন ‘ডি‘ এর অভাব রয়েছে। এছাড়া শরীরের স্টেরয়েড দেয়ার কারণে শরীর কিছুটা ফোলা দেখাচ্ছে। এটা স্বাভাবিক হতে কিছুটা সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন ডাক্তার। গত ১৮ জানুয়ারি সিটি করপোরেশন কার্যালয়ে জাতীয় দৈনিকের দুই সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলার সময় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে তাকে দ্রুত রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পাঁচদিন চিকিৎসা শেষে ২৩ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জে এসে বাবার কবর জিয়ারত করে বাড়ি ফিরে বিশ্রাম নেন। ২৬ জানুয়ারি খাজা নিজামউদ্দিন আউলিয়ার মাজার জিয়ারত করতে ভারতের আজমীর শরিফ যান। ৩১ জানুয়ারি দেশে ফিরেন। দেশে ফিরে ডাক্তারের পরমর্শে বাসায় বিশ্রামে ছিলেন। ১১ ফেব্রুয়ারি উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে যান। সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে ১৭ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জে বাসায় ফিরে আসেন। উল্লেখ্য গত (১৬ জানুয়ারি) নারায়ণগঞ্জের ফুটপাতে হকার বসানোকে কেন্দ্র করে সাংসদ শামীম ওসমান ও মেয়র আইভীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে মেয়র আইভীসহ অর্ধশত লোক আহত হয়। অস্ত্র বের করে আইভীর দিকে তেড়ে আসে যুবলীগ সন্ত্রাসী নিয়াজুল। এ ঘটনায় সিটি করপোরেশনের আইন কর্মকর্তা বাদী হয়ে ১৩ জনের নাম উল্লেখ করে মেয়র আইভীর প্রাণনাশের অভিযোগে এনে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়। কিন্তু ঘটনার পর ৩৪ দিন পেরিয়ে গেলে মামলা হয়নি। কোনো আসামিকে গ্রেফতার করেনি পুলিশ। নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার মঈনুল হক জানান, ১৬ জানুয়ারির সংঘর্ষের ঘটনায় দুটি অভিযোগ পেয়েছি। দুটি অভিযোগ জিডি হিসেবে নথিভুক্ত করে পুলিশ যে মামলা করেছে তার সঙ্গে তদন্ত চলছে। তিনি বলেন, এ ঘটনায় জেলা প্রশাসকের নির্দেশে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে ওই কমিটির রিপোর্টের ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।