• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ জিলহজ ১৪৪০

গাজীপুরে

হাত-পা বাঁধা বস্তাবন্দী যুবক

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, কালিয়াকৈর (গাজীপুর)

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯

গাজীপুরে কালিয়াকৈরের হরিণহাটি এলাকা থেকে যুবক রহিম মন্ডলকে (২৭) বস্তাবন্দি হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করেছে কালিয়াকৈর থানার পুলিশ। সোমবার সকাল ৬টায় উপজেলার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের হরিণহাটি এলাকার হাফিজুর রহমান হাফনের বাসা সংলগ্ন রাস্তা থেকে মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়।

আহত রহিম মন্ডলের বাবা রাজ্জাক মন্ডল, গ্রাম শ্রীফলাকাঠি, উপজেলা সাদুল্লাপুর, জেলা গাইবান্ধা। তিনি দক্ষিণ হরিণহাটি এলাকার আসাদুল্লাহ বাবুর বাসায় তার বোনের সঙ্গে একটি টিনশেট ঘরে ভাড়া থেকে স্থানীয় এলাকায় রিকশা চালাতেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে হরিণহাটি এলাকার একটি রাস্তায় বস্তাবন্দি অবস্থায় রহিমকে দেখতে পায় এলাকাবাসী। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে কালিয়াকৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়।

রহিম জানান, তিনি গত রোববার রাত অনুমান পৌনে ১০টার দিকে প্রতিদিনের মতো রিকশা চালিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় পথিমধ্যে মুরগি বিক্রেতা আলী ফকিরের সঙ্গে দেখা হলে তাকে বলেন, ‘আঙ্কেল, আপনি ওই খারাপ মেয়ে স্বপ্নার সাথে অবৈধ মেলামেশা করেনÑ এটা আমি জানি। মেয়েটা ভালো না। আপনি কেন তার সাথে মেলামেশা করেন।’ এ কথায় আলী ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারধর শুরু করে। একপর্যায়ে তার ছেলে মো. আরাফাত হোসেন (২৪) ও তার সঙ্গী আরও কয়েকজন যুবক তাকে মারধর করতে থাকে। পরে আলী ফকির ও কয়েকদিন আগে জেল থেকে ছাড়া পাওয়া একাধিক মামলার আসামি মো. হানিফ (২৮) তার হাত ও চোখ বেঁধে ফেলে। মুহূর্তের মধ্যে তুষার ওরফে ছোটন (২০), রুবেল (২৭), আকাশ, আয়নালসহ আরও অজ্ঞাতনামা কয়েকজন জন মিলে হাত-পা বেঁধে সারা রাত কোনো এক জায়গায় আটক রেখে রাত ১০টা থেকে সোমবার ভোর ৫টা পর্যন্ত পিটিয়ে এবং দু’পায়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে ক্ষতবিক্ষত করে। তবে হাত-পা ও চোখ বেঁধে রাখায় তাকে কোথায় আটক রেখে নির্যাতন করা হয়েছে, এ বিষয়ে কিছু জানাতে পারেননি তিনি।

এ বিষয়ে কালিয়াকৈর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. নজরুল ইসলাম জানান, প্রাথমিকভাবে রহিমের কাছ থেকে ঘটনার কিছু তথ্য পাওয়া গেছে। তিনি সুস্থ হলে ঘটনার পুরো তথ্য পাওয়া যাবে। এছাড়া ঘটনায় এখনো কোনো অভিযোগ করা হয়নি। তবে এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।