• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ০৭ জুলাই ২০২০, ২৩ আষাঢ় ১৪২৭, ১৫ জিলকদ ১৪৪১

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল দাবি : ফের আন্দোলনে ঢাবি শিক্ষার্থীরা

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, ঢাবি

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ৩০ এপ্রিল ২০১৯

প্রশাসনিক কার্যক্রমে বিড়ম্বনা, শিক্ষার্থীদের অস্তিত্ব সংকট ও পরিচয় বিড়ম্বনা, বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ধসের সম্ভাবনা প্রভৃতি বিষয়কে সামনে এনে রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে ফের আন্দোলনে নেমেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীরা। এ দাবিতে ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীবৃন্দ’র ব্যানারে শিক্ষার্থীরা গতকাল সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে সমাবেশ ও পরবর্তীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। মিছিল শেষে শিক্ষার্থীরা একই দাবিতে উপাচার্যের কাছে স্মারকলিপি পেশ করে। এদিকে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ সমাবেশে সমর্থন দিয়েছে ডাকসু ও ছাত্রলীগের নেতারা। এর আগে গত বছরের ১৪ জানুয়ারি একই দাবিতে আন্দোলন করে শিক্ষার্থীরা। পরবর্তীতে সেই আন্দোলনে ছাত্রলীগ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা ও ছাত্রীদের ওপর নিপীড়ন চালায়।

বেলা সাড়ে ১১টায় এ সমাবেশ শুরু হয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রচারণা চালিয়ে এ কর্মসূচির ডাক দেয়া হয়। তারা যেসব যুক্তি তুলে ধরে সাত কলেজের অধিভুক্তি আন্দোলনে নেমেছেন তা হলো- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রশাসনিক কার্যক্রমে বিড়ম্বনা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের প্রতি শিক্ষকদের অবহেলা, ঢাবি শিক্ষার্থীদের অস্তিত্ব সংকট ও পরিচয় বিড়ম্বনা, গবেষণা ফান্ডের অভাব থাকা সত্ত্বেও সাত কলেজের জন্য প্রশাসনিক ভবন নির্মাণের আশ্বাস প্রদান, আন্তর্জাতিক র‌্যাংকিং গণনা করার সময় অধিভুক্ত কলেজগুলোকেও বিবেচনা করা হয় বিধায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান ধসের সম্ভাবনা ইত্যাদি।

আন্দোলনকারীরা জানান, সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলই তাদের একমাত্র দাবি। এ বিষয়ে আন্দোলনকারীদের সমন্বয়ক বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী আহমেদ মুনীর তাঈফ বলেন, আমাদের আন্দোলন কোন ব্যক্তি বা প্রশাসনের বিরুদ্ধে নয়। আমাদের আন্দোলন একটি প্রশাসনিক ভুল সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৩ হাজার শিক্ষার্থীর বিভিন্ন সমস্যার দায়ভার যেখানে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নিতে পারে না, সেখানে তারা কিভাবে নতুন করে আরও ২ লাখ ৬৭ হাজার শিক্ষার্থীর দায়ভার নিবেÑপ্রশ্ন রাখেন তিনি। তিনি বলেন, প্রশাসনিক ভবনে আমাদের ভোগান্তি পোহাতে হয়, সেমিস্টার পদ্ধতিতে আমাদের পরীক্ষার ফল দিতে পাঁচ-ছয় মাস লেগে যায়, সেখানে কর্তৃপক্ষ বর্ষভিত্তিক সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের ফল কিভাবে ৯০ দিনের মধ্যে প্রকাশ করবে? সাত কলেজের জন্য আলাদা প্রশাসনিক ভবন তৈরির প্রশাসনের প্রতিশ্রুতির সমালোচনা করে তিনি বলেন, যেখানে বিশ^বিদ্যালয়ের আবাসন সংকটের কারণে শিক্ষার্থীরা বারান্দায় ঘুমায় সেখানে কর্তৃপক্ষ কিভাবে সাত কলেজের জন্য আলাদা প্রশাসনিক ভবন করে তাদের উন্নতির প্রতিশ্রুতি দেয়!

প্রায় এক ঘণ্টার সমাবেশ শেষে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশ থেকে শিক্ষার্থীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিল নিয়ে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপাচার্যের কার্যালয়ে যায়। এ সময় তারা ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষ থেকে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

এদিকে শিক্ষার্থীদের এই কর্মসূচিতে সমর্থন দিয়েছে ডাকসু নেতারা। এ বিষয়ে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নূর বলেন, অধিভুক্তির ফলে বেশ কিছু সমস্যা তৈরি হয়েছে। আমরা মনে করি, অধিভুক্তির ফলে সাত কলেজ ও ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়েরই ক্ষতি হচ্ছে। এজন্য কার্যকর সমাধান হচ্ছে সাত কলেজকে আগের মতো জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে দেয়া।

ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকী দ্বিতীয় মেয়াদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য থাকাকালে ২০১৭ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর সরকারি সাতটি কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এ সিদ্ধান্তের বিপক্ষে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।