• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯, ১২ আষাঢ় ১৪২৫, ২২ শাওয়াল ১৪৪০

ফলোআপ

লক্ষ্মীপুরের দগ্ধ তরুণীর মৃত্যু নিয়ে মামলা

চারজন আটক

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, লক্ষ্মীপুর

| ঢাকা , বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯

স্ত্রীর স্বীকৃতি আদায়ে চট্টগ্রাম থেকে লক্ষ্মীপুরে আসার পর আগুনে দগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শাহীনুর আক্তার নামের এক তরুণীর মৃত্যুর ঘটনায় মামলা হয়েছে। মামলায় সালাউদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে প্রধান আসামি করে পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে। এরমধ্যে প্রধান আসামি সালাউদ্দিন ছাড়া বাকি চার আসামি সালাউদ্দিনের ভাই আলাউদ্দিন, আবদুর রহমান, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য হাফিজ উদ্দিন ও গ্রাম পুলিশ আবু তাহের আটক রয়েছেন। সোমবার বেলা ১১টার দিকে অগ্নিদগ্ধ শাহীনুর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান। তার শরীরের ৪০ শতাংশ দগ্ধ হয়। তার শ্বাসনালী পুড়ে গিয়েছিল। এর আগে রোববার বিকেলে কমলনগর উপজেলার চরফলকন ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের আইয়ুবনগর এলাকার একটি সয়াবিন ক্ষেতের ভেতর থেকে গায়ে আগুন লাগা অবস্থায় দৌড়ে বের হন শাহীনুর। পরে দগ্ধ অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। এরপর চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন ইউপি সদস্য হাফিজ উদ্দিন ও গ্রাম পুলিশ আবু তাহের। অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। লক্ষ্মীপুর সদর হাসপতালে চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় দগ্ধ শাহীনুর জানিয়েছিলেন, দুই বছর আগে মোবাইল ফোনে কমলনগরের পাটারীরহাট এলাকার মোহর আলীর ছেলে সালাউদ্দিনের সঙ্গে তার প্রেম হয় এবং এর কয়েকমাস পরে রাউজানে একটি কাজী অফিসে তাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে সালাউদ্দিন শ্বশুরালয়ে আসা যাওয়া করলেও স্ত্রীকে কখনোই নিজের বাড়ি নেয়ার আগ্রহ দেখাননি। তাই স্ত্রীর স্বীকৃতি আদায়ে চট্টগ্রাম থেকে লক্ষ্মীপুরে সালাউদ্দিনের বাড়িতে আসেন শাহীনুর। সেখানে আসার পর সালাউদ্দিন বিয়ের বিষয়টি অস্বীকার করেন। স্থানীয়রা বলেন, এ সময় ওই তরুণীর কাছে বিয়ের কাবিননামা চাওয়া হলে তাৎক্ষণিকভাবে সে তা দেখাতে পারেননি। পরে তাকে কাবিননামা আনতে বলা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় রোববার বিকেলে তাকে একটি ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকে করে চট্টগ্রামে যাওয়ার জন্য হাজিরহাট বাসস্ট্যান্ডে পাঠিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু কিছু দূর গিয়ে ওই তরুণী ইজিবাইক থেকে নেমে ফের সালাউদ্দিনের বাড়িতে যায়। এর কিছুক্ষণ পর গায়ে আগুন নিয়ে সয়াবিন ক্ষেত থেকে দৌড়ে বের হয় ওই তরুণী। কমলনগর থানার ওসি ইকবাল হোসেন বলেন, বিষয়টি আমরা এখনও নিশ্চিত নই। একেকজন একেক কথা বলছেন। সোমবার রাতে ওই তরুণীর বাবা বাদী হয়ে কমলনগর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় সালাউদ্দিন নামে এক ব্যক্তিকে প্রধান আসামি করে পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।