• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২০ জৈষ্ঠ ১৪২৭, ১০ শাওয়াল ১৪৪১

রংপুরে মিনিক্যাসিনো

রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই রেজিস্ট্রারসহ

১২ জন গ্রেফতার

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক, রংপুর

| ঢাকা , শুক্রবার, ২৫ অক্টোবর ২০১৯

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলা সদরে অবৈধ ভাবে মিনি ক্যাসিনি জুয়া খেলার সময় রংপুর রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই সহকারী রেজিস্ট্রার তরিকুল ইসলাম ও আবদুর রহিম রংপুরে কর্মরত খাদ্য কর্মকর্তা এনামুল হক ও কাউনিয়া মহিলা কলেজের শিক্ষক হুমায়ুন কবীর তারাসহ ১২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল দুপুরে আসামিদের আদালতে হাজির করে জামিনের আবেদন করা হলে বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দেবাংসু কুমার তাদের জামিন মজ্ঞুর করেন। তবে গণমাধ্যম কর্মীরা তাদের ছবি ও ভিডিও ধারণ করার জন্য অদালত চত্বরে অপেক্ষা করলে আসামিরা বিকেল পর্যন্ত আদালতের হাজত খানায় অবস্থান করে। ফলে সন্ধার দিকে অনেকটা দৌড়ে আদালত এলাকা থেকে চলে যায় তারা।

পুলিশ জানায় গত বুধবার রাত ১০টার দিকে তারা গোপন সূত্রে খবর পায় যে কাউনিয়া উপজেলার সদরের নিজ পাড়া এলাকায় মহিলা কলেজের শিক্ষক হুমায়ুন কবীর তারার একটি দোচালা ঘরে বড় ধরনের মিনি ক্যাসিনো জুয়ার আসর বসানো হয়েছে। খবর পেয়ে কাউনিয়া থানার এস আই আজমল হোসেন এস আই আমিনুল হকসহ কয়েকজন পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে গেলে আসামিরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেষ্টা করে। পুলিশ এ সময় ১২ জনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। এ সময় জুয়ার সরজ্ঞাম জব্দ করা হয়। গ্রেফতাকৃতরা হলেন কাউনিয়া মহিলা কলেজের শিক্ষক হুমায়ুন কবীর তারা, রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই সহকারী রেজিস্ট্রার তরিকুল ইসলাম ও আবদুর রহিম রংপুর খাদ্য বিভাগে কর্মরত খাদ্য পরিদর্শক এনামুল হক , কাউনিয়া নিজ পাড়া এলাকার আবদুল গফুর, আজিজুল ইসলাম, মমিনুল ইসলাম, নিরজ্ঞন চন্দ্র, অমল চন্দ্র দেবনাথ, মোফাজ্জল হোসেন, আরিফুল ইসলাম ও আতাউর রহমান। এ ঘটনায় কাউনিয়া থানায় জুয়া আইনে একটি মামলা দায়ের করেন এস আই আজমল হোসেন।

এ ব্যাপারে কাউনিয়া থানার ওসি আজিজুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ওরা টাকার বিনিময়ে সেখানে মিনি ক্যাসিনো বসিয়েছিল। ঘটনা স্থল থেকে জুয়া খেলার সরঞ্জামসহ তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল বেলা ১১টার দিকে গ্রেফতারকৃত ১২ আসামিকে রংপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চালান দেয়া হয়।

এদিকে আদালতের জিআরও এস আই সালাম জানান আসামিদের পক্ষে জামিনের আবেদন করা হলে বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দেবাংসু কুমার তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। এদিকে গ্রেফতারের বিষয়টি জানাজানি হলে প্রিন্ট ইলেক্টনিক্স ও অনলাইন মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা আদালত চত্বরে ভীড় করলে আসামিরা গণমাধ্যম কর্মীদের চোখ এড়াতে আদালতের হাজত খানায় সন্ধা পর্যন্ত অবস্থান করে। পরে সব আসামি অনেকটা দৌড় দিয়ে আদালত চত্বর থেকে চলে যায়।

এদিকে রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ বিভাগের সহকারী পরিচালক আরিফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় বেরোবির দুই কর্মকর্তাকে মামলায় আটক থাকার দায়ে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এরা হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন পুল এ কর্মরত উপরেজিস্ট্রার মো. তারিকুল ইসলাম এবং প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের সহকারী রেজিস্ট্রার এসএম আবদুর রহিম।