• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ২৪ চৈত্র ১৪২৬, ১২ শাবান ১৪৪১

সাভারে মাদক নিরাময়কেন্দ্রে

যুবককে পিটিয়ে হত্যা

আশুলিয়ায় গলা কেটে যুবক খুন

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, সাভার (ঢাকা)

| ঢাকা , শনিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২০

সাভারের জাহাঙ্গীর মিয়া (৩৮) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ ওঠেছে আদর মাদক নিরাময় কেন্দ্র নামে একটি প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের বিরুদ্ধে । অন্যদিকে সাভারের আশুলিয়ায় অজ্ঞাত (৩১) এক যুবককে গলা কেটে হত্যার করেছে দুর্বৃত্তরা। তবে পুলিশের ধারণা যুবকের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ছিনিয়ে নিয়ে তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। এ সময় মৃতদেহের পাশ থেকে দুটি রক্তমাখা হেলমেট ও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি ছুরি উদ্ধার করেছে পুলিশ আশুলিয়া থানা পুলিশ।

গতকাল দুপুরে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে জাহাঙ্গীরের মরদেহ ও আশুলিয়ার কাঠগড়া-গাজীরচট আঞ্চলিক সড়কের পালোয়ানপাড়া এলাকার একটি বাঁশ ঝাড়ের ভেতর থেকে অজ্ঞাত ওই যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

নিহত জাহাঙ্গীর ময়মসিংহ জেলার ফুলপুর থানার মোহাম্মদ হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। সে পরিবার নিয়ে সাভার পৌর এলাকার ব্যাংক কলোনী মহল্লায় বসবাস করে বিসমিল্লাহ ভাতের হোটের পরিচালনা করতেন । অন্যদিকে নিহত অজ্ঞাত যুবকের পড়নে কালো রঙের প্যান্ট ও সোয়েটার পরিহিত ছিল। কিন্তু তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ নিহতের নাম পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেনি। নিহত জাহাঙ্গীরের ভাই মানিক মিয়া জানান, বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় চিকিৎসার জন্য সাভার পৌর এলাকার রেড়িও কলোনী মহল্লায় অবস্থিত আদর মাদক নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করান। এরপর রাতে নিহতের স্বজনরা জাহাঙ্গীরকে দেখতে গেলে নিরাময় কেন্দ্রের কর্মকর্তারা দেখা করার অনুমতি দেয়নি। পরে শুক্রবার সকালে নিরাময় কেন্দ্র থেকে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করে পরিবারের সদস্যদের এনাম মেডিকলে কলেজ হাসপাতালে আসতে বলে। এরপর হাসপাতালে এসে জাহাঙ্গীরের রক্তাক্ত মরদেহ দেখতে পায় স্বজনরা। নিহতের স্বজনদের দাবি জাহাঙ্গীরকে মারধরের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।

তবে আদর মাদক নিরাময় কেন্দ্রে ম্যানেজার রুবেল জানান, জাহাঙ্গীরকে সন্ধ্যায় চিকিৎসার জন্য নিরাময় কেন্দ্রে ভর্তি করানো হয়েছে। সকালে হঠাৎ অচেতন অবস্থায় দেখতে পেয়ে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপালে নেয়া হয়েছিল। তবে কিভাবে তার মৃত্যু হয়েছে তা তিনি জানেন না এবং নিহতের শরীরের আঘাতের চিহ্নের বিষয়ে জানতে চাইলে কিভাবে তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন আসল তাও জানেন না বলে নিশ্চিত করেন ওই কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে সাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান মোল্ল্যা জানান, খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। নিহতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে এবং তার মাথায় ক্ষত ও ঘাঁড়ের পিছনের হাড় ভাঙ্গা বলে জানান তিনি ।

অন্যদিকে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হারুন অর রশিদ অজ্ঞাত যুবকের মরদেহে উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, স্থানীয়দের খবরে কাঠগড়া পালোয়ানপাড়া এলাকায় একটি বাঁশ ঝাড় থেকে ওই অজ্ঞাত যুবকের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ সময় লাশের পাশ থেকে রক্তমাখা দুটি মোটরসাইকেলের হেলমেট ও হত্যায় ব্যবহৃত একটি ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে।

এ সময় পুলিশের ওই কর্মকর্তা আরও জানান, ছিনতাইকারীরা ওই যুবককে ধারাল অস্ত্র দিয়ে জবাই করে হত্যার পর তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি ছিনিয়ে নিয়ে গিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।

পৃথক ঘটনায় নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং সাভার মডেল থানা ও আশুলিয়া থানায় পৃথক দুইটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান পুলিশের কর্মকর্তা ।