• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৮ রবিউস সানি ১৪৪১

ময়মনসিংহে ঐতিহ্যবাহী মঙ্গল শোভাযাত্রার ৩৩ বছরে পদার্পণ

সংবাদ :
  • শরীফুজ্জামান টিটু, ময়মনসিংহ

| ঢাকা , শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০১৯

image

ময়মনসিংহে বাংলা বর্ষবরণের প্রস্তুতি -সংবাদ

বাংলা নববর্ষকে বরণ করতে ময়মনসিংহে চলছে ব্যাপক প্রস্তুতি। প্রতিবছর বর্ষবরণ উৎসবে ময়মনসিংহের ঐতিহ্যবাহী বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা এবার ৩৩ বছরে পদার্পণ করছে। এছাড়াও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, গ্রামীণ লোকজ খেলা নৌকা বাইচ, ঘোড়দৌড়সহ নানা আয়োজনের প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। ময়মনসিংহে বর্ষবরণের মূল আকর্ষণ পহেলা বৈশাখ ভোরে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রাটি প্রশাসেনর সহযোগিতায় সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আয়োজনে সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হবে। প্রতি বছরই নগরীর ঐতিহ্যবাহী মুকুল নিকেতন স্কুলের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের দ্বারা তৈরি গ্রামীণ লোকজ বিভিন্ন উপকরণ এই শোভাযাত্রায় শোভা পায়।

৩২ বছর ধরে চলে আসা এই মঙ্গল শোভাযাত্রার মূল বৈশিষ্ট হলো গ্রাম বাংলার লোকজ ঐতিহ্যের সবধরনের উপকরণ নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় এই বিশাল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা। এই শোভাযাত্রা স্বার্থক করে তোলার জন্য প্রতিবছরের মতো এবারও ব্যাপক প্রস্তুতি চলছে মুকুল নিকেতন স্কুল প্রাঙ্গণে। স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ সবাই হাত লাগাচ্ছেন কাজে। কারও হাতে তুলি আবার কেউ কাগজ কেটে তৈরি করছেন বিভিন্ন ধরনের মুখোশ। স্কুল প্রাঙ্গণে তৈরি হচ্ছে জাতীয় পাখি দোয়েল, মোরগ, ময়ূর, বাঘ, হরিণ, কুড়েঘর, পালকিসহ বিভিন্ন লোকজ উপকরণ।

স্কুলের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা প্রতিবছর পহেলা বৈশাখের আগে বেশ উৎসাহ নিয়েই এর প্রস্তুতির কাজ করে থাকেন।

মুকুল নিকেতন স্কুলের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা জানালেন, প্রতি বছরেই তারা এই কাজটি আগ্রহ ও আনন্দের সাথেই করে থাকেন। মঙ্গল শোভাযাত্রা শেষে ব্রহ্মপুত্র নদের তীরে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদীন পার্কের বৈশাখী মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সেই সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানে ময়মনসিংহের মুকুল ফৌজ, উদীচীসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন অংশগ্রহণ করে। মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতির পাশাপাশি সেই অনুষ্ঠানের অংশ নিতে শিশু শিল্পীরাও প্রস্তুত হচ্ছে। ময়মনসিংহের এই ঐতিহ্যবাহী মঙ্গল শোভাযাত্রা উপভোগ করতে দেশের দূর-দূরান্ত থেকে সেদিন মানুষ এসে হাজির হয় ময়মনসিংহ নগরীতে। প্রতিবছর এটি হওয়াতে এটি একটি প্রাণের মেলায় পরিণত হয়েছে।

মুকুল নিকেতন স্কুলের বর্তমান রেক্টর ও ময়মনসিংহ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহ্বায়ক আমির আহমেদ চৌধুরী রতনের পরিকল্পনায় ও সার্বিক তত্ত্বাবধানেই এই মঙ্গল শোভাযাত্রাটি গত ৩২ বছর ধরে হয়ে আসছে। এবারের ৩৩তম এই শোভাযাত্রা সম্পর্কে তিনি বলেন, সবার সহযোগিতায় বাংলার লোকজস বৈশিষ্টের উপকরণ নিয়ে প্রতিবছর এই শোভাযাত্রাটি করি, আমাদের ছেলেমেয়েরা রাত-দিন পরিশ্রম করে বেশ আনন্দের সাথেই এই আয়োজনটি করে। এবারও এই শোভা যাত্রার প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। ময়মনসিংহের ৩৩ বছরের এই মঙ্গল শোভাযাত্রাটি এখন সার্বজনিন রূপ নিয়েছে। শোভাযাত্রাটি মুকুল নিকেতন স্কুল থেকে যাত্রা শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে বৈশাখীর মুল অনুষ্ঠান কেন্দ্র শিল্পাচার্য জয়নুল পার্কের বৈশাখী মঞ্চে গিয়ে শেষ হয়।

এছাড়াও বাঙালির প্রাণের উৎসব বাংলা নববর্ষ পহেলা বৈশাখ উদযাপনের লক্ষ্যে ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহর নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা থাকবে এবং অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বর্ষবরণের আগের দিন থেকে বর্ষবরণের পরের দিন পর্যন্ত শহরের মোড়ে মোড়ে ওয়াচ টাওয়ার, সাদা পোশাকে অতিরিক্ত পুলিশ ও পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের তীরবর্তী শিল্পাচার্য জয়নুল পার্কসহ পুরো নগরী সিসি ক্যামেরার আওতায় থাকবে বলে পুলিশ জানিয়েছে।