• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ০৪ জুলাই ২০২০, ২০ আষাঢ় ১৪২৭, ১২ জিলকদ ১৪৪১

ব্যক্তিজীবন ও সমাজে মায়ের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে হবে

আইভী

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ

| ঢাকা , সোমবার, ১৩ মে ২০১৯

image

নারায়ণগঞ্জ : গতকাল বিশ্ব মা দিবসে হলি উইলস স্কুল প্রবর্তিত ‘রত্নগর্ভা মা’ সম্মাননা দুই রত্নগর্ভা মা নাজমা বেগম ও উম্মে সালমার হাতে তুলে দেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী -সংবাদ

নারায়ণগঞ্জ সিটি কাপোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, ব্যক্তিজীবন ও সমাজে মায়ের মর্যাদা সমুন্নত রাখতে হবে। তিনি বলেন, মা আমার জীবনে সব অনুপ্রেরণার উৎস। গতকাল রোববার বিশ্ব মা দিবসে নারায়ণগঞ্জের হলি উইলস স্কুল প্রবর্তিত ‘রত্নগর্ভা মা’ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।

সিটি করপোরেশন কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মেয়র আইভী জালকুড়ি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আয়েত আলীর স্ত্রী কলেজ শিক্ষিকা নাজমা বেগম ও গোদনাইল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মোহর আলীর স্ত্রী উম্মে সালমার হাতে ‘রত্নগর্ভা মা’ সম্মাননা ক্রেস্ট ও মানপত্র তুলে দেন। এ সশয় বক্তব্য রাখেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার শাহজাহান ভূইয়া জুলহাস ও ৮ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর রুহুল আমিন মোল্লা। এছাড়া মুক্তিযোদ্ধা, এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তি ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

হলি উইলস স্কুল ৫ বছর ধরে প্রতি বছর মা দিবসে ‘রতœগর্ভা মা’ সম্মাননা প্রদান করে আসছে।

ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেন, একজন মা তার জীবনের সব সুখ-স্বাচ্ছন্দ্য বিসর্জন দিয়ে সন্তানকে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তোলেন। কিন্তু আমাদের মধ্যে অনেকেই সেই মাকে যথার্থ মর্যাদা দিই না। আমাদের এমন মানসিকতা পরিবর্তন করে মাকে উপযুক্ত মর্যাদা যেমন দিতে হবে, তেমনি বড় হয়ে মায়ের সুখ-দুঃখের সাথী হতে হবে। তিনি বলেন, আমি এখনও বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় মাকে সালাম করে বের হই। মায়ের সঙ্গে দেখা না করে বের হলে মনে সারা দিন সংকোচ-দ্বিধা লাগে, কী যেন বিপদ আসে, অমঙ্গল আসে। এখনও মা আমাকে ভীষণ যত্ন করেন। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, এখনকার মা-বাবারা ছেলেমেয়েদের শিক্ষিত করে তুলছে ঠিকই কিন্তু সেই সন্তানেরাই তাদের মা-বাবাকে বৃদ্ধাশ্রমে পাঠাচ্ছে। এই সমাজে আমরা দিন দিন স্বার্থপর ও আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছি। আমাদের সন্তানদের শুধু একাডেমিক শিক্ষায় শিক্ষিত করে তুললেই হবে না। তাদের ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।