• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০, ২৬ আষাঢ় ১৪২৭, ১৮ জিলকদ ১৪৪১

বিএনপি নেতা শাহীন হত্যার ২ আসামি গ্রেফতার

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, বগুড়া

| ঢাকা , শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০১৯

বগুড়ায় অ্যাডভোকেট মাহবুবুল হক শাহীন হত্যা মামলার রহস্য উন্মোচন এবং ঘটনার সঙ্গে জড়িত ২ আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

পুলিশ সুপার আশরাফ আলী ভূঞা বৃহস্পতিবার তার কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, কিলিং মিশনে সরাসরি অংশ নেয়া রাসেল (২৮) ও এজাহারভুক্ত আসামি পায়েল শেখকে (৩৮) গ্রেফতার এবং হত্যাকা-ে ব্যবহৃত একটি পালসার মোটরবাইক উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার প্রেসব্রিফিং-এ জানান, বগুড়া জেলা মোটর মালিক গ্রুপের নেতৃত্ব নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে চলে আসা দ্বন্দ্বের জের ধরেই এ হত্যাকা- ঘটানো হয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়। ঘটনার দিন ১৪/৪/২০১৯ সন্ধ্যার পর মোটর মালিক গ্রুপের একজন নেতার অফিসে এক গোপন বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে উক্ত নেতার সঙ্গে তার একজন সার্বক্ষণিক সহযোগী, চারমাথার একজন ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ীসহ আরও কয়েকজন উপস্থিত ছিল। উক্ত অফিস রুমের বাইরে কয়েকজন অপেক্ষায় ছিল। সেখানে মোটর মালিক সমিতির বিবাদী পক্ষের অন্যতম আইনজীবী নেতা অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম শাহীনকে নিষ্ক্রিয় করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

পরিকল্পনা অনুসারে উক্ত নেতার ঘনিষ্ঠ সহযোগী এবং আরও একজন তাদের নিজস্ব লোকদের খবর দেয় এবং চারটি মোটরসাইকেল নিয়ে ঘটনাস্থল উপশহর বাজারের দিকে এসে উপযুক্ত সময় ও সুযোগের অপেক্ষায় থাকে। আগে থেকে উক্ত স্থানে অবস্থান করা এক ব্যক্তি চারমাথার ফ্লেক্সিলোড ব্যবসায়ীকে মোবাইলে খবর দিলে গ্রেফতারকৃত পায়েল শেখ, রাসেল এবং আরও ৮/৯ জন ঘটনাস্থলের কাছে চলে আসে। নিশিন্দারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলিম এবং মোটর মালিক সমিতির হিসাবরক্ষক বাপ্পির সঙ্গে গল্প করা অবস্থায় অ্যাডভোকেট শাহীন মোবাইলে কথা বলতে বলতে একটু সরে গেলে সুযোগ বুঝে আসামিরা তাকে উপর্যুপরি কোপায় এবং ছুড়িকাঘাত করে। অ্যাডভোকেট শাহীন পড়ে গেলে তারা দ্রুত দশতলা ভবনের পাশ দিয়ে দৌড়ে নিশিন্দারার দিকে চলে যায়।

গুরুতর আহত অ্যাডভোকেট মাহবুবুল হক শাহীনকে আলিম চেয়ারম্যান এবং বাপ্পি একটি ব্যাটারিচালিত ইজিবাইকে তুলে নিয়ে প্রথমে নামজগড়ের স্বদেশ হাসপাতালে নিলে সেখানে ভর্তি করতে অনীহা প্রকাশ করা হলে আরেকটি সিএনজিযোগে মোহাম্মদ আলী হাসপাতালে নিলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এরপর মৃতদেহ শজিমেক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।