• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ০৮ এপ্রিল ২০২০, ২৫ চৈত্র ১৪২৬, ১৩ শাবান ১৪৪১

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করার আহ্বান স্পিকারের

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , রোববার, ২০ অক্টোবর ২০১৯

image

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে কাজ করতে তরুণ সমাজসহ সবার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। গতকাল দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে ‘যুব ছায়া সংসদ’-এর ৮ম অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান ‘যুব ছায়া সংসদ’-এর ৮ম অধিবেশন উদ্বোধন করেন। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘খাদ্য অপচয় রোধ, পুষ্টিকর খাদ্য নিশ্চিত করুন ও যুব ক্ষমতায়নে অগ্রাধিকার দিন।’

আমার ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ও সর্বদলীয় সংসদীয় গ্রুপের (এপিপিজি’স) সেক্রেটারি জেনারেল শিশির শীলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য অ্যারোমা দত্ত, সাবেক কৃষি সচিব আনোয়ার ফারুক, হাঙ্গার ফ্রি ওয়ার্ল্ডয়ের কান্ট্রি ডিরেক্টর আতাউর রহমান মিটন প্রমুখ।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দীর্ঘ তেইশ বছরের লড়াই সংগ্রামের মাধ্যমে জাতিকে স্বাধীন রাষ্ট্র উপহার দিয়েছেন। জাতির পিতার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশের থেকে বেরিয়ে এসেছে। আজকের বাংলাদেশ ২০২৪ সালের মধ্যে পরিপূর্ণ মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশে পরিণত হবে। তিনি বলেন, তরুণদের মুক্ত চিন্তার বিকাশে যুব ছায়া সংসদ ভূমিকা রাখছে। এ সময় তিনি গঠনমূলক সমালোচনা সহ্য করার মানসকিতা গড়ে তোলার আহ্বান জানান। স্পিকার বলেন, বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। বর্তমান সরকারের যুগোপযোগী পদক্ষেপের কারণেই এটা সম্ভব হয়েছে। ১০ টাকায় ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার মধ্যে দিয়ে অর্থনীতির সঙ্গে কৃষকের যোগসূত্র স্থাপন করে দিয়েছে সরকার। শিশু ও নারীর পুষ্টি নিশ্চিত করতে সরকার মাতৃত্বকালীন ভাতা ও ল্যাকটেটিং মাদার ভাতা চালু করেছে। তিনি বলেন, দেশীয় ফলে প্রচুর পরিমাণ পুষ্টি উপাদান রয়েছে। এ বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে হবে। তিনি বলেন, খাদ্য অপচয় রোধে যথাযথ গবেষণা ও তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে পরিকল্পিত উৎপাদন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে পারলে সারাদেশে সুষম উন্নয়ন পৌঁছে দেয়া সম্ভব হবে।