• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল ‍আউয়াল ১৪৪২

প্রবাসীদের বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলন

সংবাদ :
  • প্রতিনিধি, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল)

| ঢাকা , বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০

image

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) : প্রবাসীর বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলন করা হচ্ছে -সংবাদ

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ এবং সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে উপজেলা প্রশাসন প্রবাসীদের বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলন শুরু করেছে। গতকাল বিকেলে পতাকা উত্তোলন উদ্বোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল মালেক।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জোবায়ের হোসেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মাকসুদা খানম প্রমুখ।

সংশ্লিষ্ঠ সূত্র মতে, মির্জাপুরে গতকাল পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা ১৩০ প্রবাসীর বাড়ি চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব বাড়ি এবং আশপাশের মানুষকে সচেতন করতে উপজেলা প্রশাসন ওইসব বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলনের সিদ্ধান্ত নেয়। সিদ্ধান্ত মতে গতকাল বিকেল থেকে প্রবাসীদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে লাল পতাকা উত্তোলন শুরু করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবদুল মালেক বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধ এবং এলাকাবাসীকে সচেতন করতে উপজেলা প্রশাসন প্রবাসীদের বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলন করছে।

৪০৯ বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলন মোরেলগঞ্জে

গনেশ পাল, মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট)

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে করোনাভাইরাস বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে বাড়ি বাড়ি যাচ্ছেন ইউএনও মো. কামরুজ্জামান।

৪০৯ বাড়িতে লাল পতাকা উত্তোলন করা হয়েছে। দু’দিন ধরে উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নসহ পৌরসভায় বিদেশ ফেরত বাড়িগুলোতে এ লাল পতাকা টাঙ্গিয়ে দেয়া হয়। ওই বাড়ির মানুষগুলো সর্ম্পকে তাদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে এই পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী কর্মকর্তা।

এদিকে বাগেরহাট জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদ গতকাল বনগ্রাম, হোগলাপাশা, দৈবজ্ঞহাটীর ইউনিয়নের বিদেশ ফেরত বাড়িগুলো পরিদর্শন করেন।

এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. কামরুজ্জামান, থানা ওসি কেএম আজিজুল ইসলামসহ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ইতোমধ্যে এ উপজেলায় গত এক সপ্তাহ ধরে করোনাভাইরাস বিষয়ক সচেতনতায় লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে। বাজারে দ্রুব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখার জন্য দু’দিনে মোবাইল কোটে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ৩৪ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে চায়ের দোকানগুলোতে টিভি কেরামবোর্ড।

প্রতিটি গ্রামের বিদেশ ফেরত মানুষদের হোম কোয়ারেন্টিনে স্বেচ্ছায় দুই সপ্তাহের জন্য পাঠানোর জন্য মাইকিং করে আহ্বান জানানো হয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়ন ও পৌরসভায় মেয়র ও চেয়ারম্যানদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠন করা হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডা. কামাল হোসেন মুফতি জানিয়েছেন করোনাভাইরাস সচেতনতায় মাঠ পর্যায়ে কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইস সিপি ফিল্ড ওর্য়াকরা কাজ করছেন। এ পর্যন্ত ৬১ জনকে হোম কোয়ারেন্টিনে পাঠিয়েছে। এদের মধ্যে ভারত থেকে আসা ৫০ জন, বাকি ১০ জন সিংঙ্গাপুর, রোমান, গ্রিস, জার্মানসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আসেছেন।

অফিস সূত্রে আরও জানা গেছে, লাল পতাকা টাঙ্গানো হয়েছে যে বাড়িগুলো তেলিগাতি ১৪, পঞ্চকরণ ১০, পুটিখালী ১২, দৈবজ্ঞহাটী ১৪, রামচন্দ্রপুর ২০, চিংড়াখালী ১৯, হোগলাপাশা ১৪, বনগ্রাম ২৭, হোগলাবুনিয়া ২৪, বহরবুনিয়া ৮, জিউধরা ১৩, নিশানবাড়িয়া ১৫, বারইখালী ১১, মোরেলগঞ্জ সদর ২৬, খাউলিয়া ৩১, পৌরসভা ৮।