• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল ‍আউয়াল ১৪৪২

পুলিশের উদ্যোগে সারাদেশে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ

| ঢাকা , রোববার, ১৮ অক্টোবর ২০২০

image

গতকাল রাজধানীর টিএসসিতে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ

বাংলাদেশ পুলিশের উদ্যোগে সারাদেশে ৬ হাজার ৯১২টি বিটে একযোগে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল পুলিশ সদর দফতরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি) সোহেল রানা এ তথ্য জানান। তিনি জানান, সারাদেশে লাখ লাখ নারী-পুরুষ এ সমাবেশে উপস্থিত ছি?লেন এবং কোটি কোটি দর্শক ও সাধারণ মানুষ এ সমাবেশ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেখেছেন। নিঃসন্দেহে ধর্ষণসহ নারী ও শিশু নির্যাতনবিরোধী সচেতনতা সৃষ্টিতে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। ইতোমধ্যেই প্রতিটি বিটের নিজস্ব একটি ফেসবুক পেজ খোলা হয়েছে।

নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী সমাবেশে পুলিশসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধি, নারী ও শিশু অধিকার কর্মী, স্থানীয় নারী ও স্কুল-কলেজের ছাত্রীরা উপ?স্থিত ছি?লেন। সমাবেশে তারা ধর্ষণসহ যে কোন প্রকার নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে সমাজের সবস্তরের মানুষের মধ্যে ব্যাপক গণজাগরণ সৃষ্টি করতে এবং নির্যাতিত নারী ও শিশুর পাশে থাকতে সবাইকে আহ্বান জানান। নারী ও শিশু নির্যাতনসহ যে কোন প্রকার অপরাধের বিরুদ্ধে পুলিশ সোচ্চার রয়েছে। সাধারণ মানুষের সহযোগিতা ও সমর্থনে এ ধরনের অপরাধ নির্মূলে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বদ্ধপরিকর পুলিশ। অনুষ্ঠানটি সরাসরি বিট পুলিশিং কেন্দ্রের ৬ হাজার ৯১২টি ফেসবুক পেজে সম্প্রচার করা হয়েছে। এদিকে গতকাল সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) স্বোপার্জিত স্বাধীনতা চত্বরে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ ব্যানারে ধর্ষণের বিরুদ্ধে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে রমনা জোনের ডিসি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, গত কয়েক দিন ধরে ধর্ষণ ফ্রন্ট লাইনে চলে এসেছে। ধর্ষণের বিষয়ে সারাদেশের প্রান্তিক মানুষ যাতে সচেতন হতে পারে সেজন্য এ ধরনের সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে। যাতে করে কোন পরিবারের কোন বাবা-মায়ের ছেলে ধর্ষণের আসামি না হয়। আর কোন পুরুষ যদি ধর্ষকের উপাধি পেয়ে যায়, তাহলে তার মৃত্যুদণ্ড হবে, এটা যাতে তারা বুঝতে পারে। এখন ধর্ষণ বেড়ে গেছে। সেই সঙ্গে আসামিরাও ধরা পড়ছে। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড করা হয়েছে, এর ফলে কিছুটা হলেও এর ভয়াবহতা কমবে।

বরিশাল থেকে নিজস্ব বার্তা পরিবেশক জানান, নারী নির্যাতন বন্ধে শুধুমাত্র আইনের ওপর নির্ভরশীল হলে চলবে না। সামাজিক ও পারিবারিক সচেতনতা বৃদ্ধি করতে হবে। সামাজিক ও নৈতিক অবক্ষয় প্রতিরোধে প্রশাসনের সঙ্গে সমাজসচেতন সব নাগরিককে এগিয়ে আসতে হবে। এজন্য সবার আগে প্রয়োজন পারিবারিক সচেতনতা।

গতকাল বরিশালে অনুষ্ঠিত ‘নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনেরবিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশে’ বক্তারা এ অভিমত দিয়েছেন। ‘বিট পুলিশিং বাড়ি বাড়ি, নিরাপদ জীবন গড়ি’ এই স্লোগান তুলে ধরে বরিশাল মেট্রোপলিটন এলাকার (মহানগর) ৭০টি পয়েন্টে এ কর্মসূচি পালিত হয়। নগরীর অশ্বিনী কুমার হলে অনুষ্ঠিত বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানা আয়োজিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান।

সিলেট প্রতিনিধি জানান, সিলেট মেট্টাপলিটন পুলিশের ৬টি থানা এলাকার ৬৮টি বিটে ‘ধর্ষণ ও নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধ’ সংক্রান্তে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সংশ্লিষ্ট বিট এলাকার দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসার, এসএমপি’র ঊর্ধ্বতন অফিসার, উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, গণমাধ্যমকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশে অংশগ্রহণকারীরা পোস্টার, লিফলেট, প্ল্যাকার্ড প্রদর্শনের মাধ্যমে জনসাধারণকে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে এগিয়ে আসা এবং সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান। প্রতিটি বিট এলাকায় উপস্থিত পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলেন, দেশের জনগণের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে এবং প্রতিটি ঘটনায় অপরাধীকে আইনের আওতায় আনতে বাংলাদেশ পুলিশ পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে।

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি জানান, খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার ও দীঘিনালা উপজেলাতে ধর্ষণ, নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ করলো পুলিশ। ‘নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বন্ধ করি, নারী বান্ধব দেশগড়ি’ এই স্লোগানে সারাদেশের মতো জেলার ৪৭টি বিটেও ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা সৃষ্টির তৈরির লক্ষ্যে পুলিশিং সমাবেশ হয়েছে। খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার গোলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ মিলনাতয়নে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন, পুলিশ সুপার মো. আবদুল আজিজ।

বেগমগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন বলেছেন, তদন্ত সাপেক্ষে যেকোন অপরাধের সঙ্গে জড়িত সব অপরাধীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অপরাধী কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। তিনি গতকাল মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার, এই সেøাগানে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর বাজারে বেগমগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ আয়োজিত নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনবিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। জেলা পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেনের সভাপতিত্বে এবং বেগমগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহজাহান শেখের সঞ্চালনায় সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নব জ্যোতি খিশা, বেগমগঞ্জ মডেল থানার নবাগত ওসি কামরুজ্জামান সিকদারসহ অনেকে। সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি জানান, গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন প্রতিরোধে বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল একযোগে উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় গঠিত বিট পুলিশিং কমিটির উদ্যোগে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের নিয়ে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন প্রতিরোধে র‌্যালি ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি জানান, দিনাজপুরের ফুলবাড়ী থানা পুলিশের উদ্যোগে গতকাল উপজেলার পৌর এলাকাসহ সাত ইউনিয়নে একযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ফুলবাড়ী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় চত্বরে আয়োজিত নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ফুলবাড়ী থানার ওসি মো. ফখরুল ইসলাম।

টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি জানান, কক্সবাজারের টেকনাফে নারী ধর্ষণ ও নির্যাতন বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে সারাদেশের ন্যায় টেকনাফেও এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে টেকনাফ পৌরসভার শাপলা চত্বরে যুবলীগের এক অস্থায়ী কার্যালয়ে ওসি হাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুল আলম।

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতনবিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল জগন্নাথপুর পৌরসভা বিট পুলিশিংয়ের উদ্যোগে পৌর ভবনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জগন্নাথপুর থানার ওসি মো. ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাংবাদিক আবদুল হাইয়ের পরিচালনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা পুলিশ সুপার নুরুল ইসলাম।