• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৮ শ্রাবন ১৪২৫, ১৯ জিলকদ ১৪৪০

পছন্দমতো এপিএস নিয়োগ দিতে পারবেন মন্ত্রিসভার সদস্যরা

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , শুক্রবার, ১১ জানুয়ারী ২০১৯

নবগঠিত মন্ত্রিসভার সদস্যরা নিজেদের পছন্দের ব্যক্তিকে সহকারী একান্ত সচিব (এপিএস) হিসেবে নিয়োগ দিতে পারবেন। তবে এপিএস যিনি হবেন, তার প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তার পদে আবেদন করার ন্যূনতম যোগ্যতা থাকতে হবে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন গতকাল সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়ে বলেন পিএস মন্ত্রণালয় ঠিক করে দিলেও এপিএস নিয়োগে আগের রেওয়াজই বহাল থাকবে।

আগে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের পছন্দ অনুযায়ী তাদের একান্ত সচিব (পিএস) ও সহকারী একান্ত সচিব নিয়োগ দিত সরকার। তবে এবার প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় নিজ উদ্যোগেই মন্ত্রিসভার সদস্যদের পিএস নিয়োগ দিয়েছে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার দুটি আদেশে উপসচিব পদমর্যাদার ৪৫ জন এবং সিনিয়র সহকারী সচিব পদমর্যাদার এক কর্মকর্তাকে মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের পিএস নিয়োগ দিয়েছে। পিএস নিয়োগ পাওয়া সবাই বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা। বিগত সময়ে অন্যান্য ক্যাডার থেকে কোটায় উপসচিব হওয়া কর্মকর্তারাও পিএস হিসেবে নিয়োগ পেতেন।

এরপর থেকেই এপিএস পদে নিয়োগের ক্ষেত্রেও মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীদের পছন্দ গুরুত্ব পাবে না বলে সচিবালয়ের কর্মকর্তাদের মধ্যে আলোচনা চলছিল গত কয়েক দিন ধরে।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা পছন্দের ব্যক্তিকে এপিএস হিসেবে নিয়োগ দিতে পারবেন। তবে এখন থেকে পিএস সরকারের পক্ষ থেকে দেয়া হবে। বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে সময়ের প্রয়োজনে যে লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, সেই লক্ষ্য বাস্তবায়ন করতে অত্যন্ত যাচাই-বাছাই করে সৎ, যোগ্য এবং পরীক্ষিত কর্মকর্তাদের একান্ত সচিব হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।’

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট একাধিক কর্মকর্তা সংবাদকে জানান, সাধারণত প্রশাসনের উপসচিব মর্যাদার কর্মকর্তারা মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীর পিএস হিসেবে নিয়োগ পান। অনেক ক্ষেত্রে এসব কর্মকর্তা পদোন্নতি পেলেও তাদের নিজের সঙ্গে রেখে দেন মন্ত্রীরা। এ নিয়ে নানা রকম বিতর্ক হয়। অতীতে কারও কারও বিরুদ্ধে অনিয়ম ও ক্ষমতার অপব্যবহারেরও অভিযোগ ওঠে। তবে এবার সরকার মন্ত্রিসভার সদস্যদের পিএস নিয়োগ নতুন সরকারে আসা পুরনো মন্ত্রীরাও তাদের আগের পিএসকে রাখতে পারছেন না। সবাইকে নতুন পিএস ঠিক করে দিয়েছে সরকার।

রেওয়াজ অনুযায়ী মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রীরা তাদের পছন্দের ব্যক্তিকে এপিএস হিসেবে নিয়োগ দিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে আধা-সরকারিপত্র (ডিও লেটার) দেবে। এরপর মন্ত্রণালয় তাদের নিয়োগ দিয়ে আদেশ জারি করবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সংবাদকে বলেন, এবার সরকারের পক্ষ থেকেই পিএস নিয়োগ দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছিল। প্রধানমন্ত্রী তা অনুমোদন করায় একসঙ্গে মন্ত্রিসভার সব সদস্যেল জন্য পিএস নিয়োগ দেয়া হয়েছে।

এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে নানা রকম বিতর্ক তৈরি হওয়ার কারণে এবার এপিএস পদে রাজনৈতিক নিয়োগ বাদ দেয়ার প্রস্তাব ছিল। এপিএস হিসেবে সরকারের ক্যাডার সার্ভিস বা নন-ক্যাডার কর্মকর্তাদের মধ্য থেকে নিয়োগ দেয়ার একটি প্রস্তাবও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছিল। সেটি আর বাস্তবায়ন হচ্ছে না বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিজের কাছেই রেখেছেন। তিনি গত বুধবার মন্ত্রিসভার সদস্যদের সতর্ক করে বলেছেন, কাজের ক্ষেত্রে যেন কোনো গাফিলতি না হয়, সেজন্য নজর রাখবেন তিনি।