• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০ চৈত্র ১৪২৭ ২৯ শাবান ১৪৪২

ঢাকা-কাঠমান্ডু

দ্বিপক্ষীয় ও আঞ্চলিক সহায়তা নিয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা নেপাল থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আনা হবে

সংবাদ :
  • কূটনৈতিক বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২০

নেপাল থেকে বাংলাদেশে আসবে প্রায় ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ। বাংলাদেশের সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবহার নিয়ে আগ্রহী নেপাল। দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বৃদ্ধিতেও আগ্রহী ঢাকা-কাঠমান্ডু। দু’দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় ও আঞ্চলিক রাজনীতি, বাণিজ্য, জ্বালানি খাত এবং পারস্পরিক সহায়তার বিষয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। গতকাল রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন মেঘনায় এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন। নেপাল প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রী প্রদীপ কুমার গোয়ালি। বৈঠক শেষে দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, বৈঠকে কানেকটিভিটি, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং বর্ডারের প্রতিবন্ধকতা সরানোর বিষয়েও ফলপ্রসূ আলোচনার পাশাপাশি নন-ট্যারিফ ব্যারিয়ার প্রতিবন্ধকতায় দূরেও আলোচনা হয়েছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আবদুল মোমেন বলেন, সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবহারের জন্য প্রস্তুাব দিয়েছে নেপাল, তারা আগ্রহ প্রকাশ করেছে। আমরা বলেছি স্বাগতম। তাদের আগ্রহে আমাদের টেকনিক্যাল এক্সপার্ট কমিটি সৈয়দপুর বিমানবন্দরটি পর্যবেক্ষবণ করবে। কী ধরনের প্লাইট আনাগোনা করা যায় সেটা আমরা দেখব। দুই দেশের মধ্যে বিদ্যুৎ আমদানি চুক্তি নিয়ে নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ভারতের জিএমআর কোম্পানি জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি করছে। সেখান থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করবে বাংলাদেশ। আগামী পাঁচ থেকে ছয় বছরেরর মধ্যে চুক্তিটি অনুয়ায়ী এটা সম্পূর্ণ করা যাবে। ড. মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যেন সব প্রতিবেশীর সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক মধুর ও শক্তিশালী হয়। তারই পরিপ্রেক্ষিতে নেপালের সঙ্গে আজ আমাদেরও বৈঠক। বৈঠকে আমরা যোগাযোগ, দ্বিপক্ষীয় ও আঞ্চলিক রাজনীতি, বাণিজ্য, জ্বালানি খাত এবং পারস্পরিক সহায়তার বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেছি। একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগ ও বাণিজ্যে কীভাবে বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা করা যায়, প্রতিবন্ধকতাগুলো দূর করা যায়, সেগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। তাদের বিভিন্ন পণ্যে আমাদের কাছে শুল্ক হ্রাসের আবেদন করেছে, আমরাও সেখানে আমাদের বিভিন্ন পণ্য রপ্তানিতে শুল্ক কমানোর প্রস্তাব করেছি।

নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ কুমার গাওয়ালি বলেন, আমরা বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের বাণিজ্য বাড়াতে চাই। এটি এখন সীমিত পর্যায়ে রয়েছে এবং এটি বাড়ানোর অনেক সুযোগ রয়েছে। কীভাবে ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়ানো যায় সেটা নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। প্রদীপ কুমার আরও বলেন, দু’দেশের মধ্যে অনেক বিষয়ে মিল রয়েছে, যা আমাদের একে অপরের কাছে নিয়ে আসে। আমাদের মধ্যে যে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য আছে আমরা সেটিকে আরও বাড়াতে চাই। এর জন্য আমরা একটি টাস্কফোর্স গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সম্প্রতি বাংলাদেশ ভারতের একটি কোম্পানি জিএমআরকে বাংলাদেশে বিদ্যুৎ রপ্তানির অনুমোদন দিয়েছে। সেটি হবে নেপালে। তাদের অবকাঠামো নির্মাণে নেপাল সরকারের পক্ষ থেকে সবধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। তাদের হয়তো পাঁচ থেকে ছয় বছর লাগবে। এরপরেই বাংলাদেশে বিদ্যুৎ পাঠানো সম্ভব হবে। পর্যটন খাতের বিষয়ে তিনি বলেন, দু’দেশের পর্যটকরা যেন স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণ করতে পারে সে বিষয়েও আমরা কথা বলেছি। নেপালি কিছু পণ্যের বাংলাদেশে প্রবেশে শুল্ক কমানোর আবেদনও করেছি আমরা।