• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল ‍আউয়াল ১৪৪২

চট্টগ্রাম-কুষ্টিয়া

ডেঙ্গুতে আরও ২ জনের মৃত্যু

    সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক
  • | ঢাকা , সোমবার, ০৭ অক্টোবর ২০১৯

চলমান ডেঙ্গু রোগে আরও দুজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এরমধ্যে চট্টগ্রামে এক তরুণীর এবং কুষ্টিয়ায় এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে চট্টগ্রামে মৃতুবরণকারী তরুণী একজন কলেজছাত্রী ব্যুরো প্রধান ও প্রতিনিধির পাঠারো খবরে এ তথ্য জানা গেছে,

চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায় : চট্টগ্রাম নগরীতে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক তরুণীর মৃত্যু হয়েছে। তার নাম সুমি বৈদ্য (১৯)। গত শনিবার সন্ধ্যা ৭টা ৫৭ মিনিটে চট্টগ্রাম নগরীর মেহেদিবাগে বেসরকারি ন্যাশনাল হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রদীপ বড়ুয়া এ কথা নিশ্চিত করেছেন। মৃত সুমি বৈদ্য নগরীর ফয়’সলেক এলাকার সুনীল বৈদ্যের মেয়ে। তিনি স্থানীয় একটি কলেজ থেকে এ বছর উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করেছেন।

জানা যায়, গত ৩০ সেপ্টেম্বর জ্বরে আক্রান্ত সুমিকে বেসরকারি ইউএসটিসি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত বৃহস্পতিবার তাকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে গত শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে তাকে নগরীর ও আর নিজাম রোডের মেডিকেল সেন্টারে নেয়া হয়। সেখানে অপারগতা প্রকাশের পর তাকে ন্যাশনাল হাসপাতালে নেয়া হয়। ন্যাশনাল হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রদীপ বড়ুয়া বলেন, আশঙ্কাজনক অবস্থায় সুমি বৈদ্য আমাদের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে।

দৌলতপুর প্রতিনিধি জানায় :

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে শামীম বিশ্বাস (২৫) নামে আরও এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। শামীম উপজেলার রিফায়েতপুর ইউনিয়নের ঝাউদিয়া কাগহাটি গ্রামের রফিকুল বিশ্বাসের ছেলে। শামীমের স্বজনরা জানান, গত কয়েকদিন আগে শামীমের জ্বর ও ডায়রিয়া হলে স্থানীয় দৌলতপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেই। এতে দু-একদিন সুস্থ থাকার পর শনিবার সে আবার অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত তাকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শামীম মারা যায়, সে এক জন সদ্য বিবাহিত যুবক ছিল, তার স্ত্রী বর্তমানে সন্তান সম্ভাবা। দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. অরবিন্দু পাল জানান, শামীম নামের ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগী শনিবার সকাল ৯টার দিকে ভর্তি হয়। তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল। কিন্তু কোন অবস্থায় উন্নতি না হওয়ায় তাকে কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা.নুরুন্নাহার জানান, ডেঙ্গু জ¦রে আক্রান্ত শামীম নামের রোগী শনিবার বেলা সাড়ে ৩টায় হাসপাতালে ভর্তি হন। তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসাও দেয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার দিবাগত রাত দেড়টায় মৃত্যু হয়। ভর্তির সময় রোগীর অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। এই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কোন ডেঙ্গু রোগীর মৃত্যু এটাই প্রথম জানালেন এই তত্ত্বাবধায়ক। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শারমিন আক্তার বলেন, ‘শামীমের মৃত্যুর খবর শুনে রোববার সকালে আমি তার বাড়িতে এসেছি, এ উপজেলায় ডেঙ্গু অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছিল কিন্তু হঠাৎ করে কেন ডেঙ্গুর বিস্তার বাড়ল এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নিতে কাজ শুরু করেছি। উল্লেখ্য, দৌলতপুর উপজেলায় গত তিনদিনে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দৌলতপুর উপজেলায় ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে দুই কলেজ ছাত্রসহ চার জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটল।