• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ২ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬, ১৯ রবিউল আওয়াল ১৪৪১

ময়মনসিংহ সিটি নির্বাচন

জাপা প্রার্থীর প্রত্যাহার, বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আ’লীগ প্রার্থী

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, ময়মনসিংহ

| ঢাকা , বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৯

ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়ন দাখিলের যাচাই-বাছাইয়ে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির দুই প্রার্থীকে বৈধ ঘোষণা করা হয়। গতকাল বিকেলে দুই প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর মধ্যে জাতীয় পার্টির প্রার্থী জাহাঙ্গীর আহমেদ তার প্রার্থিতা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিয়েছেন। ফলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সদ্য সাবেক পৌর মেয়র ইকরামুল হক টিটুর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। আজ মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। ঘোষণা অনুযায়ী আজ ময়মনসিংহ মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি জাহাঙ্গীর আহমেদ তার মনোনয়ন প্রত্যাহার করবেন। গতকাল স্থানীয় একটি হোটেলে এক কর্মী সমাবেশে ময়সনসিংহ মহানগর জাতীয় পার্টির সভাপতি জাহাঙ্গীর আহমেদ আগামী ৫ মে অনুষ্ঠিতব্য ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে তার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করার ঘোষণা দিয়েছেন। কর্মী সমাবেশে এক লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, যেহেতু জাতীয় পার্টি মহাজোটের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে, সেহেতু মহাজোটের শরিক দল হিসেবে ময়মনসিংহের স্থানীয় উন্নয়নে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টার উপলব্ধি করে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইকরামুল হক টিটুকে সমর্থন জানিয়ে আমি আমার মেয়র প্রার্থিতা প্রত্যাহারের ঘোষণা দিলাম। তিনি বলেন, নবগঠিত ময়মনসিংহ সিটি করপোরেশনের উন্নয়নে আমাদের নেত্রী রওশন এরশাদ এমপিসহ মহাজোটের সব স্থানীয় সংসদ সদস্য ও নেতা আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে ময়মনসিংহের উন্নয়নের রোডম্যাপ বাস্তবায়নে দৃঢ়ভাবে সহায়তা করবেন।

মনোনয়ন প্রত্যাহারের ঘোষণার পর উপস্থিত জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। ময়মনসিংহ জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম সম্পাদক আব্বাছ আলী তালুকদারের কাছে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে হতাশা প্রকাশ করে বলেন, এটি কী হয়েছে বলতে পারব না। কারণ এখানে নির্বাচনী কর্মী সমাবেশের কথা বলে নেতাকর্মীদের ডাকা হয়েছিল। কিন্তু এসে দেখলাম, আমাদের মেয়র প্রার্থী তার মনোনয়ন প্রত্যাহারের ঘোষণা দিচ্ছেন। এটি দলীয় সিদ্ধান্ত, নাকি ওনার ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত, নাকি তিনি ভয় পেয়ে প্রত্যাহার করেছেন- তা বলতে পারব না।

সমাবেশে উপস্থিত অন্যান্য নেতাকর্মীকেও এ ব্যাপারে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে দেখা গেছে।