• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১

চট্টগ্রামে শিল্পী মুন্নীর একক সংগীতসন্ধ্যা

সংবাদ :
  • চট্টগ্রাম ব্যুরো

| ঢাকা , শনিবার, ০৬ এপ্রিল ২০১৯

সুরের ব্যবহার বিশ্বজনীন শাশ্বত ও চিরন্তন। এই সুর যখন বেসুরো হয়ে যায়, মানুষের জীবনের ছন্দপতন ও পরিসমাপ্তি ঘটে বলে জানালেন বক্তারা। বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের শিল্পী সোনিয়া হায়দার মুন্নীর একক সংগীতসন্ধ্যায় বক্তারা এসব কথা বলেন। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় থিয়েটার ইনস্টিটিউট, চট্টগ্রামে (টিআইসি) উক্ত অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। ‘আমার একতারা লাগেনা, আমার দোতারা লাগেনা’ দেশের গান দিয়ে এই সুরেলা অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। তিন ঘণ্টাব্যাপী একের পর এক রবীন্দ্র, নজরুল, লালন, হাসানসহ পল্লী, আঞ্চলিক ও আধুনিক গানে পুরো অনুষ্ঠান মাতিয়ে রাখেন শিল্পী সোনিয়া হায়দার মুন্নী। চট্টগ্রাম সাংস্কৃতিক পরিষদের আয়োজনে সবার জন্য উন্মুুক্ত এই অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন, চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন, বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের জেনারেল ম্যানেজার নিতাই কুমার ভট্টাচার্য, বাংলাদেশ বেতার চট্টগ্রামের আঞ্চলিক পরিচালক এসএম আবুল হোসেনসহ বিভিন্ন ব্যাক্তিরা। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিষদের সভাপতি এস.এম. ফরিদুল হক। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক মো. আবু শহীদ ফারুকী। অনুষ্ঠানে কণ্ঠশিল্পী আবদুর রহিম, কণ্ঠশিল্পী গিরাজা রাজবর, মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এ.কে.এম বেলায়েত হোসেন, জয়ন্তী লালা, অধ্যাপক কবি রঞ্জন বণিক, বাংরা টিভি চট্টগ্রাম সংলাপের উপস্থাপক মু. কামাল উদ্দিনকে সংবর্ধিত করা হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানে শিল্পী সোনিয়া হায়দার মুন্নীর একক এ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন করেন অতিথিরা। বক্তারা বলেন, সংগীতকে নিয়ে আজও পৃথিবীতে প্রতিটি মানুষ তার মানসিক আনন্দের মূল খুঁজে পায়। বর্তমানে বাংলাদেশে সংগীত নিয়ে যারা কাজ করছেন এবং এর আগেও যারা কাজ করে গেছেন তারা সবাই সংগীতশিল্পী শুধু নয়, সাধকও বটে। মিয়া তানসেন থেকে শুরু করে সংগীতকে উচ্চাঙ্গের পর্যায়ে নিয়ে যেতে সবাই যার যার অবস্থানে থেকে সৃষ্টি করে গেছেন সংগীতের নতুন নতুন ধারা। বর্তমানে আমাদের বাংলাদেশে সংগীতকে বহুধারায় দেখা যায়। রবীন্দ্র নজরুল, লালন, হাসানসহ পল্লী, আঞ্চলিক ও আধুনিক গানে এক বিশাল ভান্ডার রয়েছে আমাদের। তারা বলেন, সুর অবগাহনে যারা মগ্ন তারাই সুর সাধক ও সুরস্রষ্টা। সুরের ব্যবহার বিশ্বজনীন শাশ্বত ও চিরন্তন। এই সুর যখন বেসুরো হয়ে যায়, মানুষের জীবনের ছন্দপতন ও পরিসমাপ্তি ঘটে। তারা অনুষ্ঠানে শিল্পী সোনিয়া হায়দার মুন্নীর সফলতা কামনা করেন।