• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮ ১ রমজান ১৪৪২

গ্রন্থমেলায় রোদের ঝিলিক : ভিড় দর্শনার্থী ও পাঠকের

সংবাদ :
  • আবদুল্লাহ আল জোবায়ের

| ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

অমর একুশে গ্রন্থমেলা মেলা শেষ হতে আর মাত্র চারদিন বাকি। মঙ্গলবার গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির কারণে গ্রন্থমেলায় ক্রেতা পাঠকদের আনাগোনা কম থাকলেও গতকাল মেলায় ছিল রোদের ঝিলিক। এদিন মেলায় দর্শনার্থীদের পাশাপাশি প্রচুর ক্রেতা পাঠকের আগমন ঘটেছে। আর তাই গতকাল কর্মদিবসে বইমেলায় বই বিক্রির পরিমাণ ছিল অনেক বেশি। এমনটাই জানিয়েছেন প্রকাশক ও বিক্রয়কর্মীরা।

বাঙালির প্রাণের একুশে গ্রন্থমেলা কেবল বই বিক্রি আর লেখক-পাঠকদের জন্য নয়। এটি বন্ধু-বান্ধবের আড্ডাস্থল হিসেবেও পরিচিত। তাইতো সন্ধ্যা হলেই আড্ডার ঠিকানা হয়ে ওঠে অমর একুশে গ্রন্থমেলা প্রাঙ্গণ। আর তাদের জন্যই পুরো মেলা জুড়েই দেখা যায় উৎসবের আমেজ।

গতকাল মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায়, মেলা ঘিরে জমে ওঠেছে আড্ডা। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা সন্ধ্যার সময় আড্ডা দেয়। বন্ধু-বান্ধব আর পরিবারের সঙ্গেও এ সময় জমে ওঠে আড্ডা খোশগল্প। লেখক পাঠকদের মধ্যেও জমে এই আড্ডা।

কুমিল্লা থেকে বান্ধবীকে নিয়ে মেলায় আসা নাজমুল হোসাইনের সঙ্গে কথা হল অন্য প্রকাশের সামনে। তিনি বলেন, বান্ধবীকে নিয়ে মেলায় ঘুরতে এসেছি। সুমন্ত আসলামের ‘কে তুমি’ উপন্যাসটি কিনে দিলাম বান্ধবীকে। আরও কিছুক্ষণ মেলায় ঘুরব। মেলায় অনেক মানুষের সমাগমের মধ্যে ঘুরতে ভালোই লাগে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী নূর হোসেন বলেন, আমরা বন্ধুরা এখানে নিয়মিত আসি। আড্ডা দেই। এটাতো স্রেফ মেলা নয়, আমাদের জন্য একটা উৎসবও। মেলা শেষ না হওয়া পর্যন্ত এখানে যেন একটা উৎসবের আমেজ থাকে। দেখা যায়, একাডেমির নতুন ভবনের সামনে পুকুর পাড়, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মুক্তমঞ্চের আশপাশ, লিটলম্যাগ প্রাঙ্গণসহ বিভিন্ন স্টল বা প্যাভিলিয়নের পাশে জমে আড্ডা। দেশের চলমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট, লেখার ধরণসহ নানা বিষয় ওঠে আসে তাদের আড্ডায়।

এদিকে মেলায় বিক্রির বিষয়ে জানতে চাইলে অন্য প্রকাশের বিক্রয়কর্মী নাইম বলেন, আজ মেলায় বিক্রি অনেক ভালো। প্রথম দিকে মেলায় শুধু দর্শনার্থী ছিল। তাদের বেশিরভাগই ঘোরাঘুরির জন্য মেলায় আসতেন। অল্প সংখ্যকই তখন বই কিনতেন। তবে এখন মেলা একদমই শেষের দিকে। তাই মেলা যত শেষের দিকে যাচ্ছে, তত আসল বইপ্রেমীদের সংখ্যা বাড়ছে।

তরুণদের আগ্রহ সাইন্স ফিকশনে : গতকাল বইমেলায় কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীদের ভিড়ও চোখে পড়ার মত। অন্যদের গল্প-উপন্যাস বা কবিতার বইয়ের প্রতি আগ্রহ থাকলেও ক্ষুদে বইপ্রেমী, কিশোর, তরুণদের একটি বড় অংশের বেশি আগ্রহ সায়েন্স ফিকশন বা বিজ্ঞান কল্পকাহিনীর বইয়ে। লেখক ও অভিভাবকরা বলছেন, সায়েন্স ফিকশন বইগুলো মূলত বিজ্ঞানমনস্ক সৃষ্টিশীল চিন্তার জগতকে দারুণভাবে প্রভাবিত করে কিশোর, তরুণদের। তাই তাদের এসব বইয়ের প্রতি একটু বেশিই আগ্রহ। বাংলা একাডেমির তথ্য অনুযায়ী মঙ্গলবার পর্যন্ত বইমেলায় নতুন বই এসেছে চার হাজার ৮৩টি। এরমধ্যে সায়েন্স ফিকশন বা বিজ্ঞান কল্পকাহিনীর বই এসেছে ৫৬টি।

জানা গেছে, বিজ্ঞান কল্পকাহিনীর বইয়ের মধ্যে জাফর ইকবালের লেখা বইগুলো জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি। বইমেলায় এবারের সায়েন্স ফিকশন বইগুলোর মধ্যে রয়েছে মুহম্মদ জাফর ইকবালের ‘রহস্যময় ব্লাক হোল’, শফিকুল ইসলামের ‘ট্রাইলিন’, শাহেদ ইকবালের ‘অন্ধ মাকড়শা’, মিন্টু হোসেনের ‘এলিয়েন’, মোশতাক আহমেদের ‘ইডিন’, দীপু মাহমুদের ‘হারাকিরি’, মোশতাক আহমেদের ‘নিঃসঙ্গ গিরি’, সালমান ফরিদের ‘রেবুলু জিরো জিরো ওয়ান’, নাসিম সাহনিকের ‘ল্যাংগুয়েজ হান্টার’, বদরুল আলমের ‘এক্স ওয়ার্ল্ড’ সহ আরও নানা বই।

‘আইনসভায় বঙ্গবন্ধু’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন :

সিনিয়র সাংবাদিক আসাদুজ্জামান সম্রাট সম্পাদিত ‘আইনসভায় বঙ্গবন্ধু’ নামক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। বইটিতে স্বাধীনতা উত্তর ও স্বাধীনতাপূর্ব গণপরিষদ ও সংসদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভূমিকা এবং সমসাময়িক সংবাদপত্রে এর প্রতিফলন তুলে আনা হয়েছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অমর একুশে বইমেলায় এই মোড়ক উন্মোচন করেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মসিউর রহমান, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক শিরীণ আখতার এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান।

গ্রন্থমেলায় ইসলাম সাইফুলের ‘কপোতাক্ষীর সাথে আধেক প্রেম’ :

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয়েছে ইসলাম সাইফুলের কবিতার বই ‘কপোতাক্ষীর সাথে আধেক প্রেম’। বইটি প্রকাশ করেছে অভিযান প্রকাশনী। প্রচ্ছদ করেছেন আমিনুল ইসলাম তুহিন। গ্রন্থমেলায় হাওলাদার প্রকাশনীর ৫৯৪-৯৫ নম্বর স্টলে পাওয়া যাচ্ছে বইটি। মূল্য ধরা হয়েছে ১২৫ টাকা। প্রকাশকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এই কবির বই নতুন হলেও অনেক পাঠক আগ্রহ নিয়ে বইটি কিনছেন। বিশেষ করে বসন্তের সঙ্গে প্রেমের কবিতা তরুণ-তরুণীদের মধ্যে সাড়া জাগিয়েছে। ‘কপোতাক্ষীর সাথে আধেক প্রেম’ কাব্যগ্রন্থের কবির মূল নাম মো. সাইফুল ইসলাম। মূলত শখের বসেই কবিতা লিখে চলেছেন নিয়মিত। তার কবিতার মূল উপজীব্য হল ভালোবাসা।