• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ১ বৈশাখ ১৪২৮ ১ রমজান ১৪৪২

ক্রিকেটার রাকিবুল হাসানের গ্রামে আনন্দের বন্যা

সংবাদ :
  • নুরুল আমিন, ফুলপুর (ময়মনসিংহ)

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

দারিদ্র্যতা বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি যুব ক্রিকেটার রাকিবুল হাসানের। সফলতার দ্বারপ্রান্তে উড়তে জীবনের সঙ্গে করতে হয়েছে যুদ্ধ। দরিদ্র বাবার আনসার থেকে প্রাইভেটের যে টাকা দেয়া হতো সেই টাকা থেকে বাঁচিয়ে ক্রিকেট অনুসরণে খরচ করত ইয়ং টাইগার রাকিবুল। বলছি ফুলপুর উপজেলার রূপসী ইউনিয়নের বাশাটি গ্রামের দামাল ছেলে রাকিবুল হাসান এর কথা। লেখা পড়ার চেয়ে খেলাধুলার প্রতি ছিল তার অতি আগ্রহ। পাড়ার বন্ধুদের সঙ্গে খেলাধুলা করতে করতে এক পর্যায় ঢাকার একটি ক্লাবের সঙ্গে সংযুক্ত হয়েছে। তারপর থেকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। একের পর এক সফলতা আসতে থাকে তার ঝুলিতে। রাকিবুল হাসানের উইং রান সংগ্রহের মাধ্যমে বিশ্বকাপ জয়ের খবর ফুলপুরে পৌঁছার সঙ্গে সঙ্গে সারা ফুলপুরে বয়ে যায় আনন্দের বন্যা। উপজেলা সদরসহ গ্রামের পাড়ায় পাড়ায় চলে মিষ্টিমুখ ও আনন্দ উল্লাস। ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসক ও ফুলপুর ইউএনও সহ অনেকেই তার পরিবারের সঙ্গে কথা বলে রোববার রাতেই অভিনন্দন জানান। ফুলপুর উপজেলা শহরে বের হয় আনন্দ মিছিল। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে অন্যতম নায়ক রাকিবুল হাসানের বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার রুপসী ইউনিয়নের বাশাটি গ্রামে। সাধারণ পরিবারে জন্ম নেয়া রাকিবুল হাসানের গর্বিত পিতা শহীদ মিয়া একজন গাড়িচালক। ২ ভাই ও ১ বোনের মধ্যে রাকিবুল ২য়। বড় বোন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী, রাকিবুল দ্বাদশ শ্রেণীর ছাত্র আর ছোট ভাই নবম শ্রেণীর ছাত্র। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে জয় সূচক রান করে নতুন ইতিহাসের জন্ম দিয়েছেন রকিবুল হাসান। ২৫ বলে ৯ রান যদিও তেমন কিছু নয় কিন্তু দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিতে অধিনায়ক আকবর আলীর সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। পুরো টুর্নামেন্টই বল হাতে দারুণ পারফরম্যান্স করেছেন। সোমবার রাকিবুল হাসানের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় প্রায় পরিত্যক্ত একটি ছোট্ট টিনের ঘর, একটি রান্নার ঘর আছে বাড়িতে। এলাকার প্রত্যেক বাড়িতে কারেন্ট থাকলেও তাদের বাড়িতে নেই বিদ্যুৎ সংযোগ। বাড়িতে যাওয়ার রাস্তাটি প্রায় অকেজো। এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায় রফিকুলের পিতা ঢাকায় বাসা ভাড়া করে গাড়ির ড্রাইভারি করেন। তার এক ফুফু স্বামীসহ বাড়িতে থেকে বাড়ি পাহারা দেন।