• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল ‍আউয়াল ১৪৪২

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়

কাল থেকে অভিভাবকহীন অনিশ্চয়তার মুখে ভর্তিপরীক্ষা

সংবাদ :
  • জেলা বার্তা পরিবেশক, বরিশাল

| ঢাকা , সোমবার, ০৭ অক্টোবর ২০১৯

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় (ববি) ৮ অক্টোবর থেকে পুরোপুরি অভিভাবকহীন হচ্ছে। ট্রেজারার প্রফেসর ড. একেএম মাহবুব হাসান টানা চার মাস যাবৎ উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব পালন করছিলেন। আজ তার পদের মেয়াদ শেষ হলেও নিয়োগ হয়নি নতুন ট্রেজারার। রেজিস্ট্রার পদ শূন্য প্রায় এক বছর। ফলে ভিসির রুটিন দায়িত্ব পালন করার মতো পদাধিকারী কেউ না থাকায় প্রতিষ্ঠানটি এখন পুরোপুরি অভিভাবকহীন হয়ে পড়ল। এর ফলে অনিশ্চয়তার মুখে পরেছে আগামী ১৮ ও ১৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ভর্তিপরীক্ষা। তবে বিভিন্ন মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে, খুব শীঘ্রই ববিতে একজন ভিসি নিয়োগ হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর ভারত সফর শেষে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

গত ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে কটূক্তি করার অভিযোগে ছাত্র আন্দোলনের মুখে তৎকালীন ভিসি ড. এসএম ইমামুল হক মেয়াদ শেষ হওয়ার এক মাস আগেই বাধ্যতামূলক ছুটিতে যান। ২৫ জুন থেকে ভিসির রুটিন দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন ট্রেজারার প্রফেসর ড. একেএম মাহবুব হাসান।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, প্রফেসর ড. একেএম মাহবুব হাসান চার বছরের জন্য ২০১৫ সালের ৮ অক্টোবর ববিতে ট্রেজারার পদে যোগদান করেন। সে হিসাবে তার চার বছরের মেয়াদ পূর্ণ হবে আজ। শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ছুটির আগে গত বৃহস্পতিবার শেষ কর্ম দিবস করেছেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ট্রেজারার পদ শূন্য থাকলে বিধি অনুযায়ী উপাচার্যের রুটিন দায়িত্ব পালন করবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার। কিন্তু নারীঘটিত কারণে রেজিস্ট্রার মনিরুল ইসলাম এক বছর আগে প্রথমে সাময়িক বরখাস্ত ও পরে চূড়ান্তভাবে বরখাস্ত হন। বিষয়টি নিয়ে মনিরুল ইসলাম মামলা করায় নতুন রেজিস্ট্রারও নিয়োগ দেয়া হয়নি। ফলে ট্রেজারার ও রেজিস্ট্রার পদ শূন্য হওয়ায় ভিসির রুটিন দায়িত্ব পালন করার মতো পদাধিকারী কর্মকর্তা নেই। নতুন ভিসি নিযুক্ত না হওয়া পর্যন্ত এভাবেই চলবে এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি আগামী ১৮ ও ১৯ অক্টোবর ববির ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ভর্তিপরীক্ষা। প্রশ্নপত্র প্রণয়নসহ পরীক্ষা গ্রহণের প্রধান হলেন ভিসি। পদটি শূন্য হওয়ায় কিভাবে ভর্তিপরীক্ষা গ্রহণ করা হবে এ বিষয়ে কেউ কিছু বলতে পারছেন না।

জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সম্মেলনে যোগ দেয়ার আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. একিউএম মাহবুবের নাম চূড়ান্ত করে প্রধানমন্ত্রীর দফতরে পাঠানো হয়েছিল। অন্তত ৩ জনের নামের একটি প্যানেল করার জন্য প্রধানমন্ত্রী একক নামের প্রস্তাবটি ফেরত পাঠান।

সূত্রমতে, ববির সম্ভাব্য ভিসির তালিকায় যাদের নাম আছে তারা হচ্ছেন-ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. একিউএম মাহবুব এবং হিসাববিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান, ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আবু নাঈম শেখ, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত বিভাগের অধ্যাপক ড. মাহবুব আলম ও ভূতত্ত্ব ও খনিজবিদ্যা বিভাগ অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আক্তার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. রহমত আলী।