• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৪ জুলাই ২০২০, ৩০ আষাঢ় ১৪২৭, ২২ জিলকদ ১৪৪১

শিল্পকলায় সমসাময়িক নৃত্য সন্ধ্যা

    সংবাদ :
  • সাংস্কৃতিক বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০১৯

image

শিল্পকলায় নৃত্য সন্ধ্যায় একটি নান্দনিক পরিবেশনা-সংবাদ

সমসাময়িক নৃত্য পরিকল্পনাকারীদের তৈরি দশটি দলীয় এবং একটি একক নৃত্য পরিবেশনা নিয়ে শিল্পানুরাগী দর্শক-শ্রোতাদের সামনে প্রদর্শিত হলো মনোমুগ্ধকর এক নৃত্য সন্ধ্যা। গতকাল সন্ধ্যায় গ্যোয়টে ইন্সটিটিউট বাংলাদেশ এবং শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে একাডেমির নাট্যশালার মূলমঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় এই আয়োজন। এর আগে গ্যোয়টে ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ তরুণ প্রতিভাবান নৃত্যশিল্পীদের নিয়ে নৃত্যের কোরিওগ্রাফি বিষয়ক একটি কর্মশালার আয়োজন করা হয়। টমাস বুঞ্জারের সহায়তায় অনুষ্ঠিত সেই কর্মশালায় অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশী নৃত্যশিল্পীরা পারফরম্যান্স করেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপিরচালক লিয়াকত আলী লাকী এবং গ্যোয়টে ইন্সটিটিউট বাংলাদেশের পরিচালক ড. কিরস্টেন হাকেনব্রোক। এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে দু’দেশের নৃত্যশিল্পের উন্নয়ন হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তারা। নৃত্যানুষ্ঠানের শুরুতেই মেহরাজ হক তুষারের পরিবেশনাটির নাম ছিল ‘ট্রাস্ট’ বা ‘বিশ্বাস’। এতে তিনি বিশ্বাস এবং বন্ধন এর এক অপূর্ব সম্মিলন ঘটান। পারভীন সুলতানা কলি পরিবেশন করেন ‘ইমপ্রিজনড ফ্রিডম’ বা ‘অবরুদ্ধ স্বাধীনতা’ নামের নাচ। এতে মূলত নারীদের স্বাধীনতার বিষয়টি ফুটে ওঠে। আরিফুল ইসলাম অর্ণব পরিবেশন করেন ‘এ স্ট্রাগলিং আইডেনটিটি’ বা ‘একটি সংগ্রামী পরিচয়’ শিরোনামের নৃত্য। এই নৃত্যের মধ্য দিয়ে সমাজে অবহেলিত হিজড়া বা তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের মনের অভিব্যক্তি এবং বাহ্যিক আচরণ তুলে ধরেন তিনি। মৌমিতা জয় রায়ের পরিবেশনাটি ছিল ‘রিলিজিওন-এ কজ অব কনফ্লিক্ট ইন কালচার’। অনিন্দিতা খান পরিবেশন করেন ‘রিফিউজিস’ নামের নৃত্য। এ নৃত্য দুটিতে মূলত সমাজের বিভিন্ন অসঙ্গতি এবং নিজেদের মধ্যকার বিরূপ ভাবকে ফুটিয়ে তোলা হয়।

এরপরের পরিবেশনার শিরোনাম ‘রাশ’। যার অর্থ ‘নলখাগড়া’। কোরিওগ্রাফার তাহনুন আহমেদী এতে দেশের বর্তমান সমাজের সঙ্গে বেড়ে উঠার নানা প্রতিকূলতা তুলে ধরেন সুদেঞ্চা স্বয়ম্প্রভার পরিবেশনার নাম ‘শি’। ঘুরেফিরে এতে সমাজে নারী-পুরুষের বৈষম্যের নানা বিষয় উঠে এসেছে। ‘ট্রাই নট টু ক্রাই’ পরিবেশনায় মো. ফরহাদ আহমেদ ছেলে শিশু এবং ছেলেরা কিভাবে নানা অপব্যবহারের শিকার হয় তা তুলে ধরেন। ‘বন্ডিং অব সিভলিংস’ পরিবেশনায় বৃষ্টি বেপারী ভাইবোনদের বিচ্ছেদ ও মিলনের আনন্দ-বেদনার কাব্য তুলে ধরেন। ইয়াসিন আরাফাতের ‘ক্লাউডস’ পরিবেশনায় উঠে এসেছে মাদকের ভয়াবহতা। আর ‘ট্রু স্টোরি’তে স্নাতা শাহরীন তুলে ধরেন নারীর শারীরিক ও মানসিকতার নানা গল্প। প্রতিটি পরিবেশনায় মূল শিল্পীর সাথে অংশ নেন একাধিক সহশিল্পী। অংশ নেয়া ১১ তরুণ নৃত্য পরিকল্পনাকারীরা এই সময়ের বাংলাদেশের পরিবার, সমাজ, সংস্কৃতি, জীবন ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন বিষয় নৃত্য শৈলিতে তুলে ধরে দর্শক-শ্রোতাদের মুগ্ধ করেন