• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই ২০২০, ০১ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৪ জিলকদ ১৪৪১

আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন

গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করছে : তথ্যমন্ত্রী

সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

| ঢাকা , শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯

image

শিল্পকলায় আলোকচিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তথ্যমন্ত্রীসহ অন্যরা -সংবাদ

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বাংলাদেশের গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করছে। সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে স্বাধীনতা ভোগ করছে। সরকার মিডিয়ায় কোন ধরনের সেন্সরশিপ আরোপ করছে না। গতকাল রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন (বিপিজেএ) আয়োজিত ‘রূপসী বাংলা জাতীয় আলোকচিত্র প্রদর্শনী, প্রতিযোগিতা এবং সংবর্ধনা অনুষ্ঠান’-এ যোগদান শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী ও জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম, শিল্পকলা একাডেমির সম্পাদক কাজী আসাদুজ্জামান, বিপিজেএ’র সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক কাজল হাজরা প্রমুখ। পরে মন্ত্রী তিনজন প্রবীণ ফটো সাংবাদিকের (মরণোত্তর) পরিবারের সদস্যদের মাঝে সম্মাননা তুলে দেন। এই তিন সাংবাদিক হলেন- এস এম মোজ্জাম্মেল হোসেন, মোশাররফ হোসেন লাল ও জহিরুল হক। এছাড়া রূপসী বাংলা আলোকচিত্র প্রদর্শনীর প্রতিযোগিতায় আবদুল্লাহ অপু, জাকির হোসেন চৌধুরী ও সোহেল আহমেদ যথাক্রমে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান লাভ করেন। তথ্যমন্ত্রী তাদের হাতেও সম্মাননা তুলে দেন।

‘রিপোর্টার্স উইদাউট বর্ডার’ কর্তৃক জরিপের বার্ষিক প্রতিবেদনে ‘প্রেস ফ্রিডম সার্ভে ইনডেক্স’-এ বাংলাদেশের অবস্থান চার ধাপ নিচে নেমে ১৫০তম হয়েছে। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী ওই প্রতিবেদনের ফল নাকচ করে বলেন, ‘আমি ওই প্রতিবেদনের সঙ্গে একমত না এবং আমি মনে করি বাংলাদেশে গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করছে।’ তিনি বলেন ‘বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দেশে সংবাদ প্রকাশে অনেক বিধিনিষেধ রয়েছে। এমনকি তাদের (গণমাধ্যম) যেকোন ভুল সংবাদের জন্য জরিমানা দিতে হয়। আমি জানি না তারা কিভাবে জরিপ করেছে।’ তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশে গণমাধ্যম স্বাধীনভাবে কাজ করছে এবং গত ১০ বছরে গণমাধ্যম শিল্পে একটি বিপ্লব ঘটেছে। সংবাদপত্রের সংখ্যা সাতশ’ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে এক হাজার দুইশ’ হয়েছে এবং ৩৩টি ইলেকট্রনিক মিডিয়া সম্প্রচার চালাচ্ছে। সংবাদ প্রকাশে কোন সেন্সরের ভেতর দিয়ে যেতে হয় না।’

সরকার বেকায়দায় পরেনি : আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রশ্নে বলেন, আদালতে দোষী সাব্যস্ত হয়ে তিনি (বেগম জিয়া) এখন কারাগারে। তিনি যদি জামিন প্রার্থনা করেন আদালতই একমাত্র তাকে জামিনে মুক্তি দিতে পারে। অন্যদিকে বেগম জিয়া যদি প্যারোলে মুক্তি চান তাহলে তার আবেদনটি সরকার বিবেচনা করবে। এছাড়া তার মুক্তির অন্য কোন পথ নেই। তথ্যমন্ত্রী বলেন, কাউকে তো জোর করে প্যারোল দেয়া যায় না। সরকার এমন কোন বেকায়দায় নেই যে, খালেদা জিয়াকে যেকোন উপায়ে মুক্তি দিতে হবে।

বিএনপি সংসদে যোগ দিলে স্বাগত : বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের সংসদে যোগদানের সম্ভাবনা সম্পর্কে তিনি বলেন, তারা যদি সংসদে যোগ দেয় দেশের জনগণ তাদের এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাবে। তিনি আরও বলেন, আমরাও তাদের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাব। বিএনপি সংসদে যোগ দিলে তা হবে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত। তারা সংসদে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এবং গণতন্ত্র শক্তিশালী হবে।