• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শুক্রবার, ০২ অক্টোবর ২০২০, ১৪ সফর ১৪৪২, ১৭ আশ্বিন ১৪২৭

সংসদে প্রধানমন্ত্রী

কারা ক্যাসিনো খেলছে জানতে সিঙ্গাপুরের তথ্য চাওয়া হয়েছে

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের কারা সিঙ্গাপুরে ক্যাসিনো খেলেছে, তাদের তথ্য চেয়ে সে দেশের সরকারকে অনুরোধ করা হয়েছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধ যাতে কেউ করতে না পরে সে জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে। গতকাল একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চম অধিবেশনের ৪র্থ কার্যদিবসে প্রধানমন্ত্রীর জন্য নির্ধারিত ‘প্রশ্ন জিজ্ঞাসা ও উত্তর’ পর্বে এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। এরআগে বিকেলে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়।

মানুষের কল্যাণে প্রয়োজনে বাবার মত আমিও জীবন দেবো: এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের মানুষের জন্য জীবন দিয়ে গেছেন। আমিও আমার জীবন উৎসর্গ করেছি বাংলাদেশের জনগণের জন্য। মানুষের কল্যাণে যা যা প্রয়োজন, সবই আমি করব। আর কী কী দেবার আছে, জানি না। প্রয়োজনে আমার জীবনও যদি দিতে হয়, বাবার (জাতির পিতাবঙ্গবন্ধুর) মতো তাও দিয়ে যাব।

দুর্নীতির বিষবৃক্ষ উপড়ে সুশাসন প্রতিষ্ঠা : বিরোধী (জাতীয় পার্টি) দলের সংসদ সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলার তারকা চিহ্নিত প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, দুর্নীতির বিষবৃক্ষ সম্পূর্ণ উপড়ে ফেলে দেশের প্রকৃত আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য একটি সুশাসনভিত্তিক প্রশাসনিক কাঠামো তৈরি করতে আওয়ামী লীগ সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, দুর্নীতিসহ সব ধরনের অপরাধের বিরুদ্ধে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের অপরাধ যাতে কেউ করতে না পারে সেজন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে।

অভিজাত গাড়ির মালিকদের তথ্য সংগ্রহ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, কারা কারা অভিজাত গাড়ি ক্রয় করেছে, সে সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বিদেশে পাচারকৃত অর্থ ফেরত আনার বিষয়ে দুর্নীতি দমন সংক্রান্ত জাতিসংঘ কনভেনশন (ইউএনসিএসি)-এর ৬(৩) এবং ৪৬ (১৩) ধারা অনুসরণে দুর্নীতি দমন কমিশন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয়কে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ প্রহণের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

জেলা উপজেলাসহ সব সেক্টরে অভিযান : জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মো. মুজিবুল হক চুন্নুর এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্যাসিনো দুর্নীতির সঙ্গে যেই জড়িত থাকুক না কেন তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকবে। সুনির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে ইতোমধ্যে ক্যাসিনো দুর্নীতি ও অবৈধ অর্থ সম্পদ অর্জনের সঙ্গে জড়িত বিভিন্ন ব্যক্তিকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানের পাশাপাশি কঠোর গোয়েন্দা নজরদারিও অব্যাহত রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামাজিক অপরাধের বিরুদ্ধে জেলা, উপজেলা ও পৌরসভাসহ সব সেক্টরে ও স্থানে সরকারের চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে।

রোহিঙ্গা সমস্যা সৃষ্টিতে জিয়ার হাত ছিল : তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সংদ সদস্য সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারীর প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সৃষ্টির পেছনে জিয়াউর রহমানের যে হাত রয়েছে এতে কোন সন্দেহ নেই। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতার হত্যার পর বিভিন্ন হত্যা ক্যু’র রাজনীতি শুরু হয় এবং এরপর পার্বত্য চট্টগ্রামে সমস্যার সৃষ্টি হয়। এটা ছিল ১৯৭৭ সালে তারপর শুরু রোহিঙ্গা সমস্যা ১৯৭৮ সালে, এটা হল বাস্তবতা। তিনি বলেন, সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়; এই নীতিতেই আমরা বিশ্বাস করি। তাই শান্তিপূর্ণভাবে এই সমস্যা সমাধানের উদ্যোগও নেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটা কথা স্পষ্ট করে বলতে চাই বাংলাদেশের মাটিতে প্রতিবেশী কোন দেশের কেউ কোন রকমের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাতে পারবে না এবং তাদের কোন অবস্থান বাংলাদেশের মাটিতে হবে না। এ ব্যাপারটা আমরা নিশ্চিত করেছি।

চীনকেও সমুদ্র বন্দর ব্যবহারে স্বাগত জানানো হবে : এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন চট্টগ্রাম ও মোংলা বন্দর ব্যবহারে ভারতের সঙ্গে এসওপি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এর ফলে ভারত আমদানি-রপ্তানির জন্য এই বন্দর দুটি ব্যবহার করতে পারবে। এটি উভয়দেশের জন্যই লাভজনক। ভারতের পাশাপাশি অদূর ভবিষ্যতে নেপাল ও ভুটান আমাদের বন্দর ব্যবহারের সুযোগ নেবে বলে আশা করি। চীনের দক্ষিণ-পঞ্চিমাঞ্চলের রাজ্যগুলো এ বন্দর দুটি ব্যবহার করতে চাইলে স্বাগত জানানো হবে বলেও তিনি জানান।