• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ৪ বৈশাখ ১৪২৮ ৪ রমজান ১৪৪২

পুলিশ কর্মকর্তাদের ডিএমপি কমিশনার

আইনি সেবা নিতে আসা নাগরিকদের সহযোগিতা করতে হবে

    সংবাদ :
  • নিজস্ব বার্তা পরিবেশক
  • | ঢাকা , মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০

থানাকে সেবার কেন্দ্র এবং পুলিশ কর্মকর্তাদের আইনি সেবা নিতে আসা নাগরিকদের সার্বিকভাবে সহযোগিতার তাগিদ দিয়েছেন ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। গতকাল ডিএমপি সদর দফতরে মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় তিনি এ তাগিদ দেন। অপরাধ পর্যালোচনা সভায় অংশগ্রহণ করা ডিএমপির একাধিক কর্মকর্তা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, গতকাল বেলা ১১টায় ডিএমপি সদর দফতরে মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় জানুয়ারি মাসে ডিএমপির ৮ বিভাগে পুলিশের কার্যক্রম, অপরাধ, মামলা, মামলার তদন্ত, আসামি গ্রেফতার, মাদক, অস্ত্র উদ্ধার, ছিনতাইকারী অজ্ঞান ও মলমপার্টি গ্রেফতার, চুরি ডাকাতির মতো অপরাধ রোধসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সার্বিক কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা হয়। আলোচনায় পুলিশ কর্মকর্তারা অংশ নেন। মাসিক এ অপরাধ সভায় ডিএমপির সদর দফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বিভিন্ন ইউনিটের প্রধান, ৮ বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনারর উপস্থিত ছিলেন।

ডিএমপির একাধিক কর্মকর্তা বলেন, সভার শুরু এবং শেষে ডিএমপি কমিশনার ডিএমপির সব থানাগুলো এবং পুলিশ কর্মকর্তাদের জনমুখী হওয়ার দাগিদ দিয়েছেন। থানায় এসে কোন বিচারপ্রার্থী যেন ঘুষ বা হয়রানির শিকার না হন এ বিষয়ে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বার বার বলেছেন, পুলিশকে পুরোপুরি জনমুখী হতে হবে। ডিএমপির সব থানায় সাধারণ ডায়েরি, মামলা দ্রুত সময়ের মধ্যে নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করতে হবে। মামলা বা ডিজির তদন্তে কোন গাফলতি থাকলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ডিএমপির একাধিক কর্মকর্তা বলেন, ডিএমপি কমিশনার ডিএমপির ৫০ থানায় পুলিশের সেবার মান আরও বাড়ানোর তাগিদও দিয়েছেন। থানাগুলোতে মানুষ যেন অভিযোগ, মামলা বা জিডি করতে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করতে না হয়, অভিযোগ জিডি বা মামলার তদন্তে ঠিকভাবে মনিটরিং করা হয় এসব বিষয়ে সংশ্লিস্ট বিভাগের উপ-কমিশনারদের নজরদারী রাখারও তাগিদ দিয়েছেন।

সভায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও জননিরাপত্তা বিধানসহ ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে ডিএমপি’র বিভিন্ন পর্যায়ের পুলিশ সদস্যকে পুরস্কৃত করেন কমিশনার। ডিএমপির গোয়েন্দ বিভাগ ডিবি, কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট, বিভিন্ন জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার, সহকারী পুলিশ কমিশনার, বিভিন্ন থানার ওসি, এসআই এআইআইরা মাদক উদ্ধার, অস্ত্র উদ্ধার, চোরাইগাড়ি উদ্ধার, চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা, ধর্ষণ মামলাসহ বিভিন্ন মামলা তদন্ত, আসামি গ্রেফতার, জঙ্গি গ্রেফতারসহ বিভিন্ন কর্মকর্তাদের জন্য পুরস্কৃত হন।