• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৭ মহররম ১৪৪২, ০৮ আশ্বিন ১৪২৭

মাধ্যমিক স্তরের ৪০ লাখ শিক্ষার্থী উপবৃত্তি পাবেন বিকাশে

| ঢাকা , শনিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২০

image

মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকার গৃহিত এসইডিপি প্রকল্পের আওতায় উপবৃত্তি পাবেন ৪০ লাখ শিক্ষার্থী। সম্প্রতি নিজ কার্যালয়ে বরগুনার আমতলী সরকারি একে হাই স্কুলের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী তামান্না আক্তারের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলার পর তার অভিভাবকের বিকাশ একাউন্টে তাৎক্ষণিক উপবৃত্তির টাকা পাঠিয়ে প্রকল্পটি উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রদত্ত উপবৃত্তির টাকা অগ্রণী ব্যাংক হয়ে তাৎক্ষণিক শিক্ষার্থীর অভিভাবকের বিকাশ একাউন্টে পৌঁছে যাওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন মন্ত্রী এবং উপবৃত্তি পাওয়া শিক্ষার্থী।

দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় বিভিন্ন স্তরের মধ্যে মাধ্যমিকেই ঝরে পড়ার হার বেশি। সংশ্লিষ্টদের মতে এই ঝরে পড়ার মূল কারণগুলোর অন্যতম প্রাথমিক স্তরের চেয়ে মাধ্যমিক স্তরে পড়ার খরচ বেশি। সরকারের পক্ষ থেকে এই স্তরের শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার কমাতে বিভিন্ন সময়ে কয়েকটি প্রকল্পের মাধ্যমে উপবৃত্তি দেয়া হচ্ছিল। তবে এবছর সবগুলো প্রকল্পকে সমন্বিত করে সেকেন্ডারি এডুকেশন ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম (এসইডিপি) এর আওতায় উপবৃত্তি বিতরণের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার।

উপবৃত্তির মত পদক্ষেপের কারণে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষায় সুফল বইতে শুরু করেছে। এক হিসাবে দেখা যায় ২০০৮ সালে মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার ছিল ৬১.৩৮% যা কমে ২০১৮ সালে এসে দাঁড়িয়েছে ৩৮.৩০ শতাংশে। সম্বন্বিত এই প্রকল্প সার্বিক ভাবে উপবৃত্তির উপকারভোগীর সংখ্যা যেমন বাড়িয়েছে তেমনি মোবাইল ব্যাংকিংয়ের সহায়তায় এর বিতরণ ব্যবস্থাকে করেছে আরো কার্যকর ও নির্ভুল। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর এর হারমোনাইজড স্টাইপেন্ড প্রোগ্রাম এর প্রকল্প পরিচালক শরীফ মুর্তজা মামুন বলেন, দেশব্যাপী ছাত্র-ছাত্রীদের হাতে উপবৃত্তির টাকা পৌঁছে দেয়ার ব্যাপারটি বিকাশের মাধ্যমে এখন সহজ হয়ে গেছে।

বিকাশের চিফ কর্মাশিয়াল অফিসার মিজানুর রশীদ বলেন, উপবৃত্তি বিতরণে স্বচ্ছতা, দ্রুততা নিশ্চিত করে সাফল্যের সঙ্গে ২০১৭ সাল থেকে মাধ্যমিক স্তুরের উপবৃত্তি বিতরণ করছে বিকাশ। প্রায় ৩৫ লাখ শিক্ষার্থীর অভিভাবকের মোবাইলে পৌঁছে যাওয়া উপবৃত্তির অর্থ তারা কোন রকম বাড়তি খরচ ছাড়াই ক্যাশআউট করে নিতে পারছেন। সারাদেশে বিকাশের দুই লাখ ২৫ হাজার এজেন্ট পয়েন্ট থেকে ক্যাশআউট করার সুযোগ থাকায় এসব শিক্ষার্থীদের বাড়তি কোন ঝামেলায় পড়তে হচ্ছে না। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।