• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ৬ রবিউল ‍আউয়াল ১৪৪২

করোনা আতঙ্ক : ভার্চুয়াল অফিস ব্যবস্থাপনার দিকে বাংলাদেশ

গোলাম দাস্তগীর তৌহিদ

| ঢাকা , বুধবার, ২৫ মার্চ ২০২০

বিশ্ব যখন একের পর এক উন্নত প্রযুক্তি আবিষ্কারের মধ্যদিয়ে প্রযুক্তির মহাসড়কে, ঠিক তখনই আকস্মিকভাবে চীনের উহান শহরে গেল বছরের একেবারে শেষ দিনে (৩১ ডিসেম্বর, ২০১৯) প্রাদুর্ভাব ঘটে মহামারী নোভেল করোনা কোভিড-১৯। এই ভাইরাসের আঘাতে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়তে শুরু করে প্রযুক্তি ও বাণিজ্যেও পরা শক্তি চীনের সঙ্গে বিশ্বের সকল যোগাযোগ। এরই মাঝে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে ইউরোপ-আমেরিকাসহ বিশ্বের বেশিরভাগ দেশেই। চলতে থাকে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যুর মিছিল। ভয়ঙ্কও এক মহামন্দার দিকে এগিয়ে যেতে থাকে বৈশ্বিক অর্থনীতি।

ক্রমান্বয়ে ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে বাংলাদেশও। এ পরিপ্রেক্ষিতে শুরুতে দেশের টেলিকম অপারেটরা গত ১৫ মার্চ তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের ভার্চুয়াল অফিস বা ‘ওয়ার্ক ফর্ম হোম’ পদ্ধতি অনুসরণের ঘোষণা দিয়েছিলো। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে দেশের পরিস্থিতি দেখে সর্বস্তরের জনগণের নিরাপত্তার পাশাপাশি ব্যবসা বাণিজ্য টিকিয়ে রাখতে দ্রুত সিদ্ধান্ত নিয়ে এগিয়ে আসে বড় বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো। তারা একের পর এক ঘোষণা দিতে থাকেন ‘ওয়ার্ক ফর্ম হোম’ উদ্যোগের। ১৮ মার্চ থেকে সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ ঘোষণার পরই বাংলাদেশে শুরু হয়েছে মহামারী করোনা আতঙ্ক। ইতোমধ্যে এর প্রভাব পড়তে শুরু করেছে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ সব ক্ষেত্রে।

এ প্রসঙ্গে বঙ্গ বিডির পরিচালক নাভেদুল হক বলেন, বিশ্বে করোনার ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখে আমরা ১৬ মার্চ সিদ্ধান্ত নিয়ে ‘ওয়ার্ক ফর্ম হোম’ এর ঘোষণা দিয়েছি। আগামী দুই সপ্তাহ আমাদের কর্মীরা ভার্চুয়াল অফিস ব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠানের কর্মকা- চালিয়ে যাবে বিভিন্ন অনলাইন প্রযুক্তির মাধ্যমে।

এসবিকে টেক ভেন্সার এর ফাউন্ডার সোনিয়া বশির কবির বলেন, আমাদের কর্মচারীরা হোম অফিস করছেন। কারণ এমন পরিস্থিতিতে আমাদের প্রতিষ্ঠান কোনো প্রকার ঝুঁকির মধ্যে কাজ করার পলেসিতে বিশ্বাস করে না। কর্মীরাই হচ্ছে যেকোনো প্রতিষ্ঠানের প্রাণ তাই আমরা হোম অফিস ঘোষনা করেছি।

এ্যাডভান্স ইআরপি বাংলাদেশ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল বলেন, আমরাও আমাদের প্রতিষ্ঠানের কাজকর্ম বাসা থেকে চালু করে দিয়েছি।

একবিজ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক জুবায়েদা সুলতানা, স্কাইলার্ক সফট লিমিটেডের সিইও বি এম শরিফ, ফ্রিড ইন্টেলিজেন্টস লিমিটেড এর ফাউন্ডার সিইও লিও বিজয়, ইউমিডিজি মোবাইল বাংলাদেশ এর সিইও এবিএম ওবায়েদুল্লাহ বাদল বলেন, আমরা কিছু পরিকল্পনা ও কাজের লিস্ট অনুযায়ী ডিংটক, উইচ্যাট, ম্যাচেঞ্জার এর মাধ্যমে আমাদের প্রতিদিনের কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছি।

আমার পে এর ফাউন্ডার ও ম্যানেজিং পার্টনার এ এম ইশতিয়াক সরওয়ার, একজন হোস্টের ফাউন্ডার মাছুমুল হক, স্টার কম্পিউটার সিস্টেমস লিমিটেডের সিইও রেজওয়ানা খান, টাইকন সিস্টেম লিমিটেডের ফাউন্ডার সিইও এমএন ইসলাম, সিনেসিস আইটির সাদ্দাম হোসেন ব্যাবিলন রিসোর্সেস লিমিটেড, নিউজেন টেকনোলজি লিমিটেডের সিইও লিয়াকত হোসেন, দি ডাটাবিজ সফটঅয়্যারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও রাশেদ কামাল বলেন, আমরা আমাদের কমীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে আগামী ৩১ তারিখ পর্যন্ত হোম অফিস ঘোষণা করেছি। এটি আমাদের জন্য সম্পূর্ণ নতুন অভিজ্ঞতা, ভবিষ্যতে যে কোন দুর্যোগকালীন সময়ে এই অভিজ্ঞতা কাজে লাগাতে পারব। ডিভাইন আইটি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইকবাল আহমেদ ফখরুল হাসান রাসেল বলেন, আমাদের দৈনন্দিন কাজের ৭০-৮০ শতাংশ হোম অফিসের মাধ্যমে পরিচালনা করে যাচ্ছে। কারণ আমাকে পরিস্থিতির কথা বিবেচনায় রেখেই গ্রাহক ও কর্মচারীদের সেবা ঠিক রাখতে হচ্ছে। বিদেশী প্রতিষ্ঠান আসুস বাংলাদেশ এবং বাংলা ট্রিবিউনের মতো সংবাদ মাধ্যমও ‘ওয়ার্ক ফর্ম হোম’ চালু করেছে।