• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

সীমান্ত প্রাচীর নির্মাণে অনড় ট্রাম্প

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , শনিবার, ১২ জানুয়ারী ২০১৯

image

ফের জরুরি অবস্থা জারির হুমকি

যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের জন্য তহবিল বরাদ্দে কংগ্রেসের অনুমোদন না পেলে আবারও জাতীয় জরুরি অবস্থা ঘোষণার হুমকি দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। মেক্সিকো সীমান্তের টেক্সাস অংশ পরিদর্শনে যাওয়ার সময় গত বৃহস্পতিবার ট্রাম্প পুনর্বার এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

যুদ্ধ কিংবা জাতীয় জরুরি অবস্থাজনিত পরিস্থিতির মধ্যে সামরিক নির্মাণ প্রকল্পগুলো পরিচালনার এখতিয়ার মার্কিন প্রেসিডেন্টের রয়েছে। মেক্সিকো সীমান্ত পরিদর্শনে যাওয়ার সময় এদিন সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এ সময় ‘জাতীয় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করার পুরোপুরি এখতিয়ার আমার রয়েছে’ জানিয়ে কংগ্রেসকে পাশ কাটাতে সে সাংবিধানিক ক্ষমতাই ব্যবহার করার হুমকি দেন ট্রাম্প। মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণে বরাদ্দ অনুমোদনের প্রশ্নে ট্রাম্পের সঙ্গে বিরোধী ডেমোক্র্যাটদের সমঝোতা না হওয়ায় ২০ দিন ধরে যুক্তরাষ্ট্র সরকারে চলছে আংশিক অচলাবস্থা (শাটডাউন)। তারপরও প্রাচীর নির্মাণের প্রশ্নে অনড় রয়েছেন ট্রাম্প। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারের সময় ট্রাম্প যে কোন মূল্যে সীমান্ত প্রাচীর নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দেন। অপরদিকে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদ নিয়ন্ত্রণে রাখা ডেমোক্র্যাটদের দাবি, তারা ‘জনগণের করের টাকায়’ এ প্রতিশ্রুতি পূরণ হতে দেবে না। দুই পক্ষের অনড় অবস্থানের কারণে গত ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে মার্কিন সরকারের বিভিন্ন সংস্থা ও বিভাগের ব্যয় নির্বাহে প্রয়োজনীয় অর্থ সংস্থানের বিলটি আলোর মুখ দেখেনি।

সম্প্রতি এ পরিষদ একটি বাজেট বিল পাস করলেও তাতে মেক্সিকো সীমান্তের জন্য তহবিল বরাদ্দ রাখা হয়নি। আবার অচলাবস্থা দীর্ঘায়িত হলেও মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের সিদ্ধান্ত থেকে না সরে দাঁড়ানোর হুমকি দিয়ে রেখেছেন ট্রাম্প। সর্বশেষ গত বুধবার ডেমোক্র্যাটদের শীর্ষ দুই নেতার (প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি ও সিনেট সংখ্যালঘু নেতা চাক শুমার) সঙ্গে করা বৈঠক থেকে বেরিয়ে যান। পরে এক যুক্তিতে ওই বৈঠককে ‘সময় নষ্ট করা’ বলে আখ্যা দেন ট্রাম্প। দুই পক্ষের আলোচনায় এমন অচলাবস্থার মধ্যেই পরদিন বৃহস্পতিবার টেক্সাসের রিও গ্রান্ডে ভ্যালির ম্যাকঅ্যালেনে একটি সীমান্ত টহল স্টেশন পরিদর্শনে যান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ সময় সাংবাদিকদের তিনি বলেন, প্রাচীর নির্মাণের জন্য কংগ্রেস যদি অর্থ বরাদ্দ না দেয়, ‘তবে আইনপ্রণেতাদের পাশ কাটাতে আমি সম্ভবত, বলা চলে অনেকখানি নিশ্চিতভাবেই জরুরি অবস্থা ঘোষণা করব।’ প্রেসিডেন্টের দাবি, তিনি জরুরি অবস্থা ঘোষণা করতে চান না, তবে বাধ্য হলে তা থেকে পিছপা হবেন না। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আমি এখনও তা করতে প্রস্তুত নই। তবে করতে হলে করব।’ এদিকে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, রিপাবলিকান ও ডেমোক্র্যাটদের এমন মুখোমুখি অবস্থানের মধ্যেই কেন্দ্রীয় সরকারের এক চতুর্থাংশ বিভাগ ও সংস্থার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে আছে। ২০ দিন ধরে বেতন পাচ্ছেন না কয়েক লাখ মার্কিনি। অপরদিকে সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনের বরাতে জানা গেছে, জরুরি অবস্থা জারি করলে ডেমোক্র্যাটরা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আইনি চ্যালেঞ্জে যেতে পারবেন। তবে ট্রাম্পের বিশ্বাস তিনি ওই চ্যালেঞ্জে জিতে যাবেন।

প্রসঙ্গত, মার্কিন অর্থবছর শুরু হয় ১ অক্টোবর। তার আগেই বাজেট অনুমোদন করিয়ে নেয়ার সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা থাকলেও সমঝোতার অভাবে কখনও কখনও মার্কিন কংগ্রেস তা পাস করাতে ব্যর্থ হয়। এমন অবস্থায় অস্থায়ী বাজেট বরাদ্দের মধ্য দিয়ে সরকার পরিচালনার তহবিল জোগান শ্লথ হয়। অস্থায়ী এ বাজেট বরাদ্দের ক্ষেত্রে দুই কক্ষের অনুমোদনসহ প্রেসিডেন্টের সইয়ের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কেন্দ্রীয় সরকারের তিন চতুর্থাংশ কার্যক্রম পরিচালনার অর্থ বরাদ্দ করা আছে। বাকি এক চতুর্থাংশের বাজেট ফুরিয়ে যাওয়ায় অচলাবস্থা ঠেকাতে গত ২১ ডিসেম্বর নতুন অস্থায়ী বাজেট বরাদ্দ ছিল অপরিহার্য। তবে মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের বরাদ্দ প্রশ্নে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের মধ্যে সমঝোতা না হওয়ায় সৃষ্টি হয় ‘অচলাবস্থা’। বরাদ্দ কম পড়ে যাওয়ায় যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ১৫টি কেন্দ্রীয় দফতরের মধ্যে ৯টিতে আংশিক শাটডাউন শুরু হয়।

বিশ্ব অর্থনৈতিক সম্মেলনকে ট্রাম্পের না

এদিকে সুইজারল্যান্ডে অনুষ্ঠেয় বিশ্ব অর্থনৈতিক সম্মেলনে ডোনাল্ড ট্রাম্প যোগ দিচ্ছেন না বলে জানা গেছে। স্বয়ং মার্কিন এ প্রেসিডেন্ট গত বৃহস্পতিবার এমন ঘোষণা দিয়ে জানান, চলমান শাটডাউন পরিস্থিতিতে খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই সফর বাতিল করতে হচ্ছে তাকে। মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণে বরাদ্দ অনুমোদনের প্রশ্নে ট্রাম্পের সঙ্গে ডেমোক্র্যাটদের সমঝোতা না হওয়ায় ২০ দিন ধরে যুক্তরাষ্ট্র সরকারে চলছে আংশিক অচলাবস্থা। তারপরও প্রাচীর নির্মাণের প্রশ্নে অনড় অবস্থানে রয়েছেন ট্রাম্প। এদিন এক টুইটবার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘সীমান্তে নিরাপত্তা প্রশ্নে ডেমোক্র্যাটদের একগুঁয়েমির কারণে আমি খুবই সম্মান রেখে ও বিনয়ের সঙ্গে দাভোসে বিশ্ব অর্থনৈতিক সম্মেলনের সফর বাতিল করছি। আয়োজকদের জন্য শুভকামনা। আমি তাদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী। গত বছর সম্মেলনটিতে অংশ নেন ট্রাম্প। এবারও প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের নিয়ে যাওয়ার কথা ছিলো তার।