• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯, ১২ বৈশাখ ১৪২৫, ১৮ শাবান ১৪৪০

সিরিয়ায় আইএসের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত লড়াই শুরু : এসডিএফ

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , সোমবার, ১১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

image

মুস্তাফা বালি

সিরিয়ায় কিছু অঞ্চলে অবস্থানরত ইসলামপন্থি জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত লড়াই শুরু হয়েছে বলে ঘোষণা দিয়েছে মার্কিন সমর্থিত দেশটির বিদ্রোহী গোষ্ঠী সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্স (এসডিএফ)। এ বিদ্রোহী গোষ্ঠীর এক মুখপাত্র এক টুইটবার্তায় বলেন, ‘এসডিএফ অভিযান শুরু করেছে। বাঘুজ গ্রামে অবশিষ্ট যে কয়জন আইএস রয়েছে তাদের উৎখাত করা হবে।’ এ ঘাঁটির ভিতরে থাকা বেসামরিক নাগরিকদের সরিয়ে নেয়ার পরই হামলা শুরু করা হবে বলে জানিয়েছেন এসডিএফের মুখপাত্র মুস্তাফা বালি। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনের বরাতে এ তথ্য জানা গেছে। ফোরাত নদীর পূর্ব পাড়ে বাঘুজ শহরে আইএসের ওই ছিটমহলটি ঘেরাও করে রেখেছে এসডিএফ। ফোরাত নদীর পূর্ব পাড়ে এটি আইএসের শেষ ছিটমহল। সিরিয়ার এ এলাকায় আইএসের সঙ্গে এসডিএফের লড়াই চলছে। তবে কতো দ্রুত ছিটমহলটি থেকে বেসামরিক নাগরিকদের সরিয়ে নেয়া সম্পন্ন হবে সে বিষয়ে এসডিএফের গণমাধ্যম দফতরের প্রধান মুস্তাফা বালি কোন ইঙ্গিত দেননি। ওই ছিটমহলটিতে থাকা বেসামরিক নাগরিকদের বেশিরভাগই আইএস যোদ্ধাদের পরিবারের সদস্য। শুক্রবার রাতে তিনি বলেছেন, “অবশ্যই সেখানে একটি নিরাপদ করিডোর আছে এবং বেসামরিকরা প্রতিদিনই বের হয়ে আসছে, এভাবে বাঘুজে তাদের সংখ্যা কমে আসছে এবং শহরটি বেসামরিক নাগরিক মুক্ত হয়েছে বলে আমরা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত এটি চলবে।’ ‘এরপর দায়েশের (আইএস) উপস্থিতি শেষ করার জন্য আমরা হামলা করবো অথবা তারা নিজেরাই আত্মসমর্পণ করবে। তাদের জন্য আর কোনো বিকল্প নেই।

কোনো আলাপ-আলোচনা হচ্ছে না এবং আলাপ-আলোচনার কোনো ইচ্ছাও নেই এটি নিশ্চিত করছি আমরা।’ গত শনিবার থেকে শুরু হওয়া এ অভিযানে এখনও পর্যন্ত ২০ হাজারেরও বেশি বেসামরিক নাগরিককে সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বালি। তিনি বলেন, গত এক সপ্তাহ ধরেই বেসামরিক নাগরিকদের সরানো হচ্ছে। সম্প্রতি, মার্কিন বিমান হামলার সহায়তা নিয়ে বেশ কিছু অঞ্চল থেকে আইএস উৎখাত করেছে এসডিএফ ও কুর্দি বাহিনী। বালি বলেন, শেষ এ ঘাঁটিতে প্রায় ৬০০ আইএস সেনা থাকতে পারে। তাদের বেশিরভাগই বিদেশি। আটকা পড়ে থাকতে পারে আরও কয়েক শ’ বেসামরিক নাগরিক। দু’বছর আগে (২০১৭ সাল) সংগঠনটি সামরিক পরাজয় বরণ করে ও এর রাজধানীসহ সব বড় শহর থেকে বিতাড়িত হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত জানুয়ারি মাসের মধ্যে সিরিয়ার একটি ছোট এলাকার মধ্যে আটকে পড়ে আইএস।