• banlag
  • newspaper-active
  • epaper

রবিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৯, ১২ ফাল্গুন ১৪২৫, ১৮ জমাউস সানি ১৪৪০

যুক্তরাষ্ট্রে আরেকটি ‘অচলাবস্থা’র আলোচনা থমকে গেছে

সংবাদ :
  • সংবাদ ডেস্ক

| ঢাকা , মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০১৯

সীমান্ত নিরাপত্তা নিয়ে সমঝোতায় পৌঁছানো ও সরকারের আরেকটি অচলাবস্থা এড়ানোর লক্ষ্যে যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতাসীন রিপাবলিকান পার্টি ও বিরোধী ডেমোক্র্যাটিক পার্টির আইনপ্রণেতাদের মধ্যে চলমান আলোচনা থমকে গেছে। এতে মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালনকারীরা গতকালের (সোমবার) মধ্যে একটি চুক্তিতে পৌঁছে আগামী শুক্রবারের মধ্যে প্রস্তাব আকারে তা পাস করাতে চাইছিলেন। কারণ যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘদিন ধরে চলা আংশিক অচলাবস্থা অবসানে গত ২৫ জানুয়ারিতে হওয়া তিন সপ্তাহের চুক্তিটির সময়সীমা শুক্রবার শেষ হবে।

নতুন কোন সমঝোতা চুক্তি ছাড়া শুক্রবারের সময়সীমা পার হলে আবারও আংশিক অচলাবস্থায় পড়বে মার্কিন কেন্দ্রীয় সরকার। এর আগে কাটানো টানা ৩৫ দিন আংশিক অচলাবস্থা একটি রেকর্ড। যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর তোলার লক্ষ্যে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দাবিকৃত অর্থ বরাদ্দের বিলই এ দুই রাজনৈতিক পক্ষের মতভেদের মূল কারন হিসেবে কাজ করছে বলে দাবি বার্তা সংস্থা বিবিসি ও রয়টার্সের। অভিবাসীদের আটক করার নীতি নিয়ে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের মধ্যে বিরোধের পর গত রোববার চলমান আলোচনা থমকে যায় বলে জানিয়েছেন রিপাবলিকান সিনেটর রিচার্ড শেলবি। আরেকটি অচলাবস্থা এড়ানোর আলোচনায় ক্ষমতাসীন রিপাবলিকানদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন তিনি। এদিকে দিরোধী ডেমোক্র্যাটদের দাবি, মার্কিন আইসিই (ইমিগ্রেশন অ্যান্ড কাস্টমস এনফোর্সমেন্টের) আটক কেন্দ্রগুলোতে (ডিটেনশন সেন্টার) যে পরিমাণ বিছানা আছে তা কমানো হোক। এর পাশাপাশি ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরও ওই কেন্দ্রগুলোতে যারা অবস্থান করছে তাদের পরিবর্তে যেসব অভিবাসীর বিরুদ্ধে অপরাধের রেকর্ড রয়েছে তাদের আইসিই কর্মকর্তারা আটক করুক। এসব শর্তের বিনিময়ে রিপাবলিকানদের সীমান্ত প্রাচীরের জন্য কিছু অর্থ ছাড়ের প্রস্তাব দিয়েছে বিরোধী আইনপ্রণেতারা। কিন্তু তাদের প্রস্তাবিত অর্থ বরাদ্দ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রস্তাবিত সীমান্ত প্রাচীর নির্মাণের জন্য দাবিকৃত প্রয়োজনীয় (৫ দশমিক ৭ বিলিয়ন ডলার) অর্থ তহবিলের চেয়ে অনেক কম। এ প্রসঙ্গে মার্কিন টেলিভিশন ফক্স নিউজকে রোববার দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সিনেটর শেলবি বলেছেন, ‘আমরা সেখানে পৌঁছতে পারব বলে মনে হচ্ছে না। চুক্তির সম্ভাবনা ৫০-৫০। অচলাবস্থার অপচ্ছায়া সবসময়ই ঘিরে ছিল।’

অপরিদকে বিরোধী ডেমোক্র্যাট নেতারা মধ্যস্থতাকারীদের একটি সমঝোতায় পৌঁছতে বাধা দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ট্রাম্প।

গত মাসে তিনি আলোচনাকে ‘সময়ের অপচয়’ বলে মন্তব্য করেন। যুক্তরাষ্ট্রে নতুন করে আবারও অচলাবস্থা শুরু হলে দেশটির হোমল্যান্ড সিকিউরিটি, পররাষ্ট্র, কৃষি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ফের অর্থ সংকটে পড়বে। এর ফলে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রায় আট লাখ কর্মচারী আবারও বেতন-ভাতা থেকে বঞ্চিত হবেন।